kalerkantho


মুখোমুখি প্রতিদিন

লন্ডনপ্রবাসীরা সিলেটের দলের ব্যাপারে আগ্রহী

আগামীকাল থেকে ঢাকায় শুরু হচ্ছে জেবি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের সপ্তম পর্ব। এরপর লিগ চলে যাবে সিলেটে, যেখানে ফুটবল সব সময় বেশ জমজমাট আবহ নিয়ে হাজির হয়। সিলেট জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বাফুফে সদস্য মাহিউদ্দিন আহমেদ সেলিম সিলেট ভেন্যুর প্রস্তুতি নিয়ে কথা বলেছেন কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের সঙ্গে

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



লন্ডনপ্রবাসীরা সিলেটের দলের ব্যাপারে আগ্রহী

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : সিলেটে প্রিমিয়ার ফুটবল লিগের প্রস্তুতি কেমন?

মাহিউদ্দিন আহমেদ সেলিম : খেলাটা তো গত ২৯ তারিখে হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু বৃষ্টির জন্য হয়নি। আমাদের মাঠ প্রস্তুত আছে, সব কিছু নিয়ে আমরা রেডি। কিন্তু প্রচার হয়নি। যারা স্বত্ব কিনেছে এটা তাদের কাজ, তারা এখনো প্রচারণায় নামেনি।

প্রশ্ন : ২৩ তারিখে কনসার্ট দিয়ে তো শুরু হচ্ছে বিপিএলের সিলেট পর্ব। তাতে মাঠের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।

সেলিম : না, সেটা কোনো সমস্যা হবে না। সালাম মুর্শেদী এবং সাইফ পাওয়ার টেকের লোকজন এসে ভেন্যু দেখে গেছেন। তাদের সঙ্গে কথা বলেই ঠিক করা হয়েছে, মঞ্চ হবে গোলপোস্টের পেছনে। সুতরাং মাঠের কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু কনসার্ট ও খেলার জন্য প্রচারণা দরকার। মানুষ না জানলে কিভাবে আসবে। এসব ঠিক করতেই আমি কাল ঢাকায় আসছি।

প্রশ্ন : খেলার মাঠের কী অবস্থা?

সেলিম : খেলার মাঠ একদম সবুজ। প্রিমিয়ার ফুটবল উপলক্ষে আমরা আগে থেকেই মাঠ নিয়ে রেখেছিলাম। কিছুদিন আগে এখানে কমিশনার কাপ হয়েছিল। তাতে টিকিট ছিল না, অনেক দর্শক হয়েছে। আশা করি বৃষ্টি না থাকলে প্রিমিয়ার লিগের খেলা দেখতেও মানুষ স্টেডিয়ামে আসবে।

প্রশ্ন : সিলেটের একটি দল থাকলে নিশ্চয়ই দর্শক আরো বেশি হতো।

সেলিম : সিলেটের দল থাকলে তো কথাই ছিল না। স্টেডিয়ামে বসার জায়গা দেওয়া যেত না। কিছুদিন আগে লন্ডন থেকে ফিরেছি আমি, সেখানে লন্ডনপ্রবাসী সিলেটিদের সঙ্গে কথা হয়েছে এ ব্যাপারে। তারাও খুব আগ্রহী সিলেটের একটা দল রাখার জন্য। এখানে অনেক ক্লাব থাকলেও আমরা চাইছি, সিলেট নাম রেখেই একটি ভালো দল তৈরি করতে, যেটা এখানকার লোকজনকে টানবে। এ ব্যাপারে বাফুফে সভাপতির সঙ্গে আমি আলাপ করব, আগামীবার এরকম একটা দল যেন বিপিএলে রাখা হয়।

প্রশ্ন : সিলেটে তো ক্রিকেটের জন্য আলাদা স্টেডিয়াম আছে। সিলেট জেলা স্টেডিয়ামটা কী ফুটবল এবং অন্যান্য খেলার জন্য নেওয়া যায় না?

সেলিম : কিছুদিন আগে এ বিষয়ে কথা হয়েছে ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান পাপন ভাইয়ের সঙ্গে। উনাকে এ কথাটা আমি বলেছি, বিভাগীয় স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পাশাপাশি ঘরোয়া ক্রিকেটের অনুমতি দেওয়ার জন্য। তিনি আশ্বাস দিয়েছেন, ঘরোয়া ক্রিকেটের জন্যও উন্মুক্ত করে দেবে এই স্টেডিয়াম। তখন আমাদের প্রথম বিভাগ ও দ্বিতীয় বিভাগ লিগ ওখানে চলে গেলে জেলা স্টেডিয়াম ফুটবলের হয়ে যাবে।


মন্তব্য