kalerkantho


বোল্টনের বয়কট, ব্যাটি আর ড. আনসারি!

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বোল্টনের বয়কট, ব্যাটি  আর ড. আনসারি!

২০০৩ সালে তাঁর ক্যারিয়ারের শুরু বাংলাদেশে। শেষ টেস্টটাও ২০০৫ সালে খেলেছেন বাংলাদেশের বিপক্ষেই।

পুনর্জন্মও হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের সঙ্গে! বাংলাদেশ নামটা সোনার হরফে লেখা থাকবে গ্যারেথ ব্যাটির ক্যারিয়ারে। দুই ম্যাচের সিরিজের যেকোনোটির একাদশে থাকলেই ৩৯ বছর ছুঁই ছুঁই এই স্পিনার গড়বেন নতুন বিশ্ব রেকর্ড। সেটা অবশ্য গর্বের নয়, জ্বালা জুড়ানোর। ব্যাটির শেষ ম্যাচের পর গত ১১ বছরে ১৪২ টেস্ট খেলেছে ইংল্যান্ড। আর কোনো ক্রিকেটারকেই পরবর্তী টেস্ট খেলার মাঝে অপেক্ষা করতে হয়নি এত দিন।

রেকর্ডের হাতছানি আছে ‘বোল্টনের বয়কট’ খ্যাত হাসিব হামিদেরও। এই টি-টোয়েন্টি ধামাকা যুগের হয়েও জিওফ্রি বয়কটের মতো শুদ্ধ ব্যাটিংয়ের জন্য এমন নাম তাঁর। অভিষেক হলে ষষ্ঠ টিএনএজার হিসেবে ইংল্যান্ডের হয়ে টেস্ট খেলবেন ১৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। এই ছয়জনের মধ্যে ওপেনার হিসেবে সবচেয়ে কম বয়স হবে তাঁরই। বাংলাদেশ সফরে নজর থাকবে ইংলিশ বাঁ-হাতি অলরাউন্ডার জাফর আনসারির ওপরও। পেশাদার ক্রিকেটারের কঠিন জীবনেও তিনি পড়াশোনা করছেন ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে। পড়াশোনার পাট চুকলে তাঁর নামের পাশে যোগ হবে ‘ডক্টরেট’ উপাধি। ধারাভাষ্যকারও তখন গর্ব নিয়েই বলবেন ‘বল করতে আসছেন ড. জাফর আনসারি’।

৭ টেস্টে অফ স্পিনার গ্যারেথ ব্যাটির উইকেট ১১টি। নিতান্তই সাদামাটা ক্যারিয়ার। তবে সারের এই অধিনায়ক এবারের কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে নিয়েছেন ৪১ উইকেট। উপমহাদেশের ঘূর্ণি উইকেটে নির্বাচকরা সুযোগ দিয়েছেন এ জন্যই। তাতেই ইংল্যান্ডের ১৪২ টেস্ট পর নিজের পরবর্তী টেস্ট খেলার বিশ্ব রেকর্ডের সামনে তিনি। সুযোগ পাওয়া নিয়ে আত্মবিশ্বাসীও তিনি, ‘তরুণ বয়সেও হয়তো আজকের মতো এতটা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম না আমি। এত দিন পর এমন পরাবাস্তব সুযোগ পেয়ে আপ্লুত আমি। ’

১৯ বছর বয়সী হাসিব হামিদের একাদশে থাকাটা প্রায় নিশ্চিত। অ্যালেক্স হেলস না আসায় অ্যালিস্টার কুকের সঙ্গে উদ্বোধনী জুটিতে দেখা যেতে পারে তাঁকে। অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে সুযোগ পেলে এর আগেই হয়তো আসতে পারতেন বাংলাদেশে। দলে না থাকায় হয়নি সেটা। এর মাঝে নিজেকে শানিয়েছেন যথেষ্ট। ভেঙেছেন সবচেয়ে কম বয়সে ল্যাঙ্কাশায়ারের হয়ে এক হাজার রান করা মাইক আথারটনের রেকর্ড। কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে ১৫ ম্যাচে ৫২.৪৫ গড়ে ৪টি সেঞ্চুরিসহ করেছেন ১১৫৪ রান। সবটাই বয়কটের মতো শুদ্ধ ব্যাটিং করে। এর ব্যাখ্যায় জানালেন, ‘আমার বাবা ভক্ত ছিলেন বয়কটের। এ জন্যই হয়তো আমি তাঁর মতো হয়েছি, এটাই আসল মজার! তবে আমার শারীরিক গঠন অন্যদের মতো মজবুত নয়। তাই ধৈর্য নিয়ে অনেক বেশি সময় ধরে ক্রিজে পড়ে থাকার দিকে মনোযোগ দিতে হয়েছে। ইংল্যান্ডের উত্তরে ভেজা আর ধীর উইকেটে বলের জন্য অপেক্ষাও করতে হয়। বোল্টনে বেড়ে ওঠায় এভাবে খেলার জন্য বয়কটের মতো ব্যাটিং ধরন হয়ে গেছে আমার। ’

২৪ বছর বয়সী জাফর আনসারির বাবা হুমায়ুন আনসারিও নামকরা গবেষক। বর্ণবাদ ও জাতিতত্ত্বের ওপর গবেষণার জন্য পেয়েছেন সম্মানসূচক রাজকীয় ‘ওবিই’ খেতাব। তবে মেধাবী জাফরের এখন পিএইচডির চেয়ে বেশি ভাবনা বাংলাদেশ সফর নিয়ে। গত বছর পাকিস্তানের বিপক্ষে সুযোগ পেয়েও খেলা হয়নি কাউন্টিতে চোট পাওয়ায়। সেটা কাটিয়ে ফেরায় নির্বাচকদের প্রতি তাঁর কৃতজ্ঞতা, ‘আমার ওপর আস্থা রাখায় তাঁদের প্রতি কৃতজ্ঞ আমি। ইংল্যান্ড আমার খেয়াল রেখেছে, আশা করছি আমিও এর প্রতিদান দিতে পারব। ’ ডেইলি মেইল


মন্তব্য