kalerkantho


ফিফা ও ফ্রান্স ফুটবলের বিচ্ছেদ

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ফিফা ও ফ্রান্স ফুটবলের বিচ্ছেদ

বিচ্ছেদ হচ্ছে ফিফা ও ফ্রান্স ফুটবলের মধ্যে! ২০১০ সাল থেকে ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলার ও ফ্রান্স ফুটবলের ব্যালন ডি’অর, দুটি পুরস্কার মিলিয়ে বছরের সেরা ফুটবলারের জন্য একটিই পুরস্কার নির্ধারণ করা হয়েছিল। ছয় বছর চলেছে এই পদ্ধতি।

জিয়ানি ইনফান্তিনো ফিফার নতুন প্রেসিডেন্ট হলে সম্পর্ক শীতল হয়ে পড়ে দুই পক্ষের, তাই ফ্রান্স ফুটবলের সঙ্গে চুক্তিটা আর নবায়ন করছে না ফিফা। দুই পক্ষই উত্সুক না হওয়ায় ফিফা ব্যালন ডি’অর আর থাকছে না। এখন থেকে ফ্রান্স ফুটবল শুধু ইউরোপের সাংবাদিকদের ভোটে নির্বাচিত করবে কে পাচ্ছে ব্যালন ডি’অর, ভোটাধিকার থাকছে না জাতীয় দলের কোচদের। ফিফা হয়তো ফের চালু করবে বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার, যেটা নির্ধারিত হয় জাতীয় দলের অধিনায়ক ও কোচের ভোটে।

ফিফার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘ফিফা ও ফ্রান্স ফুটবলের মধ্যে চুক্তির মেয়াদ জানুয়ারিতেই শেষ হয়েছে। আগস্টের শুরুতেই আমরা ফ্রান্স ফুটবলকে জানিয়ে দিয়েছি যে চুক্তি নবায়ন করা হচ্ছে না। ’ চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়াতে খুশি ফ্রান্স ফুটবল কর্তৃপক্ষও। লে’কিপ, ফ্রান্স ফুটবল, লা পারিসিয়ানসহ বেশ কিছু ফরাসি প্রকাশনার মালিক ফিলিপে আমুরি গ্রুপ তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, ‘বাড়ি ফিরছে ব্যালন ডি’অর। ’ ২০১০ সালে ফিফার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট সেপ ব্ল্যাটার ট্রফি স্বত্ববাবদ ১৫ মিলিয়ন ইউরো দিয়েছিলেন ফিলিপে আমুরি গ্রুপকে, চুক্তির মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়াতে ব্যালন ডি’অর নামটা ফেরত পাচ্ছে ফ্রান্স ফুটবল।

মুন্দো দেপোর্তিভো জানিয়েছে, ফিফা প্রেসিডেন্ট ইনফান্তিনোর ইচ্ছা বারবার একই লোক পুরস্কার না পেয়ে বছরে দুটি পুরস্কার হলে দুজন পেতে পারে, এ জন্যই ফ্রান্স ফুটবলের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ বাড়ায়নি ফিফা। চালু করার পর মেসি চারবার এবং রোনালদো দুইবার পেয়েছেন পুরস্কারটি। শুধু প্রথমবার, ২০১০ সালের পুরস্কারটি বাদ দিলে শীর্ষ দুইয়ে মেসি ও রোনালদোর মধ্যেই হয়েছে প্রতিদ্বন্দ্বিতা। দুটি পুরস্কার আলাদা হয়ে যাওয়াতে দুটির ভিন্নধর্মী নির্বাচন প্রক্রিয়ার কারণে এখন দুজন বিজয়ীকে পাওয়া যেতেই পারে। এএফপি, এএস


মন্তব্য