kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


হারে শুরু জয়ে শেষ

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



হারে শুরু জয়ে শেষ

ক্রীড়া প্রতিবেদক : সব ম্যাচ জেতার প্রত্যাশা জানিয়ে জাহানারা আলম তাঁর দল নিয়ে উড়াল দিয়েছিলেন আয়ারল্যান্ডের উদ্দেশে। বাংলাদেশ মহিলা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক জাহানারা অবশ্য সেই প্রতিশ্রুতি রাখতে পারেননি।

এর কিছুটা দায় প্রকৃতির, কিছুটা ব্যাটারদের। দুই টি-টোয়েন্টি ও দুই ওয়ানডে, এই চার ম্যাচ খেলতেই জাহানারাদের আয়ারল্যান্ড যাওয়া। সঙ্গে কোচ সারওয়ার ইমরান, নির্বাচক আতাহার আলী খান ও বিদেশি ট্রেনার কোরি বোকিং। তবে সিরিজের অবস্থা দেখে মনে হতে পারে, সঙ্গে দরকার ছিল একজন আবহাওয়াবিদও! প্রথম টি-টোয়েন্টি বৃষ্টির কারণে দেরিতে শুরু হয়ে নেমে এসেছিল ১০ ওভারের ম্যাচে, যাতে শেষ ৬ বলে ৭ উইকেট হাতে রেখেও ১০ রান নিতে পারেননি বাংলাদেশের মেয়েরা। পরের টি-টোয়েন্টি ভেসে গেছে বৃষ্টিতে, ভেজা মাঠ খেলার উপযোগী না থাকায় হয়নি দুটি ওয়ানডেও। এমন অবস্থায় বাড়ানো হয় একটি ওয়ানডে, ভেন্যু ব্রেডি ক্রিকেট ক্লাব মাঠ থেকে সরিয়ে নেওয়া হয় শ ব্রিজের ইস্টোনিয়ান ক্রিকেট মাঠে। মাঠ বদলে ভাগ্য বদলেছে জাহানারা-রুমানাদের। বাড়ানো এবং গোটা সফরে একমাত্র সম্পূর্ণ ম্যাচটিতে বাংলাদেশ জিতেছে ১০ রানে, হ্যাটট্রিক করেছেন রুমানা। তাই হার দিয়ে শুরু হলেও জয় দিয়ে শেষ হয়েছে মেয়েদের আয়ারল্যান্ড সফর, মাঝের অধ্যায় জুড়ে কেবলই বৃষ্টি।

টস জিতে ব্যাটিং নেন জাহানারা। কিন্তু এরপর টপ অর্ডারে সানজিদা বাদে রান করতে পারেননি আর কেউই। শেষ দিকে রিতু মনির ১৩, জাহানারার ১৪ আর নাহিদার ১১ রানে শেষ পর্যন্ত ৪০.১ ওভারে ১০৬ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। ইনিংসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান মিস এক্সট্রার, ২৬! আইরিশ বোলাররা যে ওয়াইড বলই করেছেন ২৩টি।

জবাবে আইরিশ মেয়েদের শুরুটা ছিল দারুণ। উদ্বোধনী জুটিতেই উঠে যায় ৫২ রান। এরপর জোড়া সাফল্যে বাংলাদেশ একটু আশার আলো খুঁজে পেলেও লরা ডেলানির ২৬ রানে সেই আলো মিলিয়ে যেতে থাকে আঁধারে। এর পরই বাংলাদেশের স্পিনাররা দৃশ্যপট পুরোপুরি বদলে দেন। নাহিদার বাঁহাতি স্পিন, ফাহিমা ও রুমানার লেগস্পিনে ৭৯-২ থেকে ৯৬ রানেই অলআউট আয়ারল্যান্ড। ১৭ রানে শেষ ৭ উইকেট হারায় আয়ারল্যান্ড। টানা তিন বলে গার্থ, শিলিংটন ও ওয়ালড্রনকে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে ফেলে মেয়েদের ক্রিকেটে যেকোনো সংস্করণেই বাংলাদেশের হয়ে প্রথম হ্যাটট্রিকের কৃতিত্ব দেখান রুমানা। সব মিলিয়ে মেয়েদের ক্রিকেটে এটা ১৭তম হ্যাটট্রিক, ওয়ানডেতে নবম। রুমানার নৈপুণ্যেই হারের কিনারা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে ১০ রানে জিতে যায় বাংলাদেশের মেয়েরা, সেই সুবাদে জিতে নেয় সিরিজটাও। সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন রুমানাই।


মন্তব্য