kalerkantho

মঙ্গলবার। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৯ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

বাংলাদেশে রাগবির অগ্রগতি প্রশংসনীয়

বাংলাদেশে রাগবি খেলাটা শুরু হয়েছে খুব বেশি দিন হয়নি। বাংলাদেশ রাগবি ইউনিয়ন নানা রকম কার্যক্রমের মাধ্যমে খেলাটাকে জনপ্রিয় করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এ দেশে। ঢাকায় তিন দিনের সফরে আসা এশিয়ান রাগবির স্ট্র্যাটেজিক ডেভেলপমেন্ট অ্যাডভাইজার ম্যাথ্যু ওকলে কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে কথা বলেছে এখানে তাঁর পর্যবেক্ষণ নিয়ে

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বাংলাদেশে রাগবির অগ্রগতি প্রশংসনীয়

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : তিন দিনের সফর কালই শেষ হয়ে যাচ্ছে, ঢাকায় সময়টা কেমন উপভোগ করেছেন আপনি?

ম্যাথ্যু ওকলে : ঢাকায় সময়টা আমি উপভোগ করেছি। ট্রাফিক জ্যাম আর এই আবহাওয়া আমার কাছে নতুন। যতটা সম্ভব এখানকার রাগবি-সংশ্লিষ্ট লোকজনের সঙ্গে আমি সময় পার করেছি। তিন দিনের এই সফরটা বেশ গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার কাছে। কালই আমি ঢাকা ছাড়ছি। এখান থেকেই সরাসরি ব্যাংককে যাব রাগবির একটি কনফারেন্সে যোগ দিতে।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের রাগবির কার্যক্রম ও উন্নতিতে কতটা সন্তুষ্ট আপনি?

ওকলে : আমি খুবই খুশি হয়েছি এখানকার কার্যক্রম জেনে। প্রতিবছর নিয়মিত খেলা হচ্ছে, উল্লেখযোগ্যসংখ্যক খেলোয়াড় আছে, বেশ সক্রিয়ই মনে হয়েছে আমার বাংলাদেশ রাগবি ইউনিয়নকে। এ দেশে খেলাটা শুরু হয়েছে খুব বেশি দিন হয়নি, সেই তুলনায় অগ্রগতি প্রশংসনীয়।

প্রশ্ন : কোন দিক দিয়ে বাংলাদেশ ভালো করছে আর দুর্বলতা কোথায়, যেখানে সবচেয়ে বেশি কাজ করতে হবে বলে মনে করেন উন্নতির জন্য?

ওকলে : উন্নতির তো আসলে শেষ নেই। আমি যা বুঝেছি এখানে খেলাটার চর্চা ভালোভাবেই শুরু হয়েছে, খেলাটা নিয়ে বেশ আগ্রহও তৈরি হয়েছে, সরকারি পর্যায়ে, প্রশাসনিক পর্যায়ে এখন কাজগুলো হতে হবে। ফেডারেশন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে এ নিয়ে আমরা আলোচনা করেছি। বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন, জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ, ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গেও আমার বৈঠক হয়েছে—এই সবগুলো অংশের সমন্বয় করেই এখানে খেলাটাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

প্রশ্ন : আপনার কী পরামর্শ থাকবে এখানকার উন্নতির জন্য?

ওকলে : গত তিন দিনের কার্যক্রমে যে ব্যাপারটিতে আমি সবচেয়ে গুরুত্ব দিয়েছি, তাহলো এখানকার কোচদের সংখ্যা ও দক্ষতা আরো বাড়ানো। সারা দেশের স্কুলগুলোতে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক শারীরিক শিক্ষা বা ক্রীড়া শিক্ষক আছেন, তাঁদের মধ্যে রাগবির জ্ঞানটা ছড়িয়ে দিতে পারলে আপনাতেই স্কুলগুলোতে রাগবির চর্চা বাড়বে। ব্যাংককের কনফারেন্সেও আমরা এ বিষয়টিতে আলোকপাত করতে যাচ্ছি।

প্রশ্ন : বিশ্বের অন্যান্য অংশের তুলনায় এই অঞ্চলে বা এশিয়ায় রাগবিটা ততটা জনপ্রিয় না, এর পেছনে কারণ কী বলে মনে করেন?

ওকলে : অর্থ এখানে একটা বড় কারণ। ফুটবলের মতো অত অর্থ রাগবির নেই, ফিফা প্রচুর অর্থ খরচ করছে সারা বিশ্বে খেলাটার উন্নয়নের পেছনে। ফুটবলের ইতিহাসও রাগবির চেয়ে অনেক সমৃদ্ধ। পেশাদারির দিক দিয়েও রাগবি এগোতে পারেনি, অন্য খেলাগুলো যেভাবে এগিয়েছে।


মন্তব্য