kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

এবার আমাদের দুটি ঈদ

কোনো গোল না করেও অনূর্ধ্ব-১৬ দলের অন্যতম সেরা পারফরমার সানজিদা আক্তার। প্রতিপক্ষ কোচদের চোখেও সবচেয়ে বিপজ্জনক ছিল বাংলাদেশের এই মিডফিল্ডার। কাল শেষ ম্যাচের পর টুর্নামেন্টে তার অভিজ্ঞতা এবং চূড়ান্ত পর্বে খেলা নিয়েই কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে কথা বলেছে সে

৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



এবার আমাদের দুটি ঈদ

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : আগের ম্যাচেই চ্যাম্পিয়নশিপ নিশ্চিত করে ফেলেছিলে, আজও জিতলে বড় ব্যবধানে। সব মিলিয়ে কেমন ছিল এই আসরটা তোমাদের কাছে?

সানজিদা : অনেক ভালো লেগেছে আমাদের সবার।

বাংলাদেশ প্রথম চ্যাম্পিয়ন হলো এই অনূর্ধ্ব-১৬ আসরে। থাইল্যান্ডে এখন আমরা চূড়ান্ত পর্বে খেলতে যাব, সেটিও প্রথমবারের মতো। সব মিলিয়ে আমরা তাই অনেক খুশি।

প্রশ্ন : তোমাদের সবাই প্রশংসা করছে, এত ভালো খেলার রহস্য কী?

সানজিদা : বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন আমাদের নিয়ে তিন মাসের ক্যাম্প করেছে। আমরা সবাই মনোযোগ দিয়ে অনুশীলন করেছি। একদম শুরু থেকেই আমরা সিরিয়াস ছিলাম। তখন থেকে একটাই চিন্তা, হয় এবারই কিছু একটা করব নয়তো নয়। ছোটন স্যার, লিটু স্যারও আমাদের সেভাবেই  অনুশীলন করিয়েছেন, তাঁরা যা যা বলেছেন আমরাও তা শুনেছি।

প্রশ্ন : আজকের কাদামাখা মাঠে খেলতে নিশ্চয় সমস্যা হয়েছে তোমাদের?

সানজিদা : কাদা মাঠে রানিং করতে কষ্ট হয়। তবু আমরা যত দূর সম্ভব চেষ্টা করেছি স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে।

প্রশ্ন : এই দলে তোমরা একই এলাকার এক স্কুলের অনেকে একসঙ্গে আছো, ভাল পারফর্ম করার পেছনে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়াটা কতটা কাজে দিয়েছে?

সানজিদা : এখানে আমরা আসলে কোনো এলাকা বা স্কুলের খেলোয়াড় হিসেবে খেলছি না, আমরা বাংলাদেশ দলের এখানে সবাই এক। আমরা একই অঞ্চলের একই স্কুলের দেখে এই ৯ জনই যে শুধু আমরা মিলেমিশে থাকি তা নয়, আমরা সবার সঙ্গেই মিলেমিশে থাকি, আমাদের বোঝাপড়াও তাই সবার সঙ্গে।

প্রশ্ন : এক বছর পর চূড়ান্ত পর্বে খেলতে যাবে, সেই প্রতিপক্ষরা তো বেশ শক্তিশালী—এ নিয়ে তোমাদের কী ভাবনা?

সানজিদা : আমরাও এখন থেকে অনুশীলন শুরু করব। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনকে বলব যেন আমাদের দীর্ঘ মেয়াদে অনুশীলনের ব্যবস্থা করে, যেন আমরা ওদের সঙ্গে লড়াই করতে পারি ওখানে গিয়ে।

প্রশ্ন : তুমি তো আজ শেষ ম্যাচেও গোল পেলে না, একটু কি মন খারাপ?

সানজিদা : না আমার একটুও মন খারাপ না। কারণ আমি জয়ের জন্য খেলেছি। আর যতগুলো ম্যাচ খেলেছি প্রত্যেক ম্যাচেই আমার ক্রসে, না হয় কর্নার কিকে একটা না একটা গোল হয়েছেই।

প্রশ্ন : গত ঈদে বাড়ি যাওনি, এবার বাড়িতে গেলে নিশ্চয় অনেক মজা করবে?

সানজিদা : তাতো করবই। এবার আমাদের দুটি ঈদ। চ্যাম্পিয়ন হয়েছি সে জন্য আনন্দ আবার ঈদের আনন্দ।


মন্তব্য