kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বেয়ারস্টো, মঈন আলীরা আসছেন

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বেয়ারস্টো, মঈন আলীরা আসছেন

ট্রেভর বেলিস ও পল ফারব্রেস; ইংল্যান্ডের কোচ ও সহকারী কোচ। দুজনেই একটা সময় একই ভূমিকাতেই দায়িত্ব পালন করেছেন শ্রীলঙ্কা দলে।

ভয়াবহ সেই লাহোর হামলায় বাসে ছিলেন দুজনেই, খুব কাছ থেকে দেখেছেন মৃত্যুর বিভীষিকা। রেগ ডিকাসনের প্রতিবেদনে সন্তুষ্ট হয়েছেন তাঁরাও, বাংলাদেশ সফরে আসা নিয়ে তাঁদের কোনো আপত্তি নেই। শুধু ওয়ানডে অধিনায়ক এউইন মরগানই এখনো নেতিবাচক মানসিকতা দেখাচ্ছেন, যাতে সুর মেলাচ্ছেন ড্রেসিংরুমের আরো কয়েকজন। ইংল্যান্ডের সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে এমনটাই।

উপমহাদেশের দলে কোচিং করানোর অভিজ্ঞতা থেকেই হয়তো এখানকার মানুষের ওপর ভরসা রাখতে সাহস পাচ্ছেন ফারব্রেস। তাই তো লাহোর হামলায় আহত হওয়ার পরও বাংলাদেশ সফর নিয়ে কোনো উদ্বেগ নেই তাঁর মনে, ‘বিশ্বের কোথাও কেউ কারো নিরাপত্তার শতভাগ নিশ্চয়তা দিতে পারে না। তবে আমরা যেটা করতে পারি তা হলো বোর্ডের ওপর ভরসা করতে পারি যে তারা এমন কোথাও আমাদের পাঠাবে না যেখানে বিপদ হতে পারে। ’

বাংলাদেশ সফরের অতীত অভিজ্ঞতা থেকেই ফারব্রেস বললেন, ‘আগেও বাংলাদেশে গিয়েছি, এবারও আশা করি ব্যতিক্রম কিছু হবে না। আমাদের চারপাশে বড় ও শক্তিশালী নিরাপত্তা বেষ্টনী থাকবে। সবশেষ গিয়েছিলাম ২০১৪ সালে, তখন তাদের নির্বাচন সবে শেষ হয়েছে আর কিছু রাজনৈতিক ঝামেলাও বোধহয় হচ্ছিল। তার পরও বলতেই হবে, আমাদের দারুণ দেখভাল করা হয়েছিল। প্রথম প্রথম আশপাশে অনেক সশস্ত্র নিরাপত্তাকর্মী দেখলে একটু অদ্ভুত লাগবে, তবে খেলায় মন ঢুকে গেলেই সব ঠিক হয়ে যাবে। ’

মরগান অবশ্য এখনো দোনামোনা করছেন, ‘আমি এখনো কিছু ঠিক করিনি। যতক্ষণ না নিজে স্বস্তি পাচ্ছি, তার আগ পর্যন্ত সময় নেব। বলব না যে আমি যেতে অনিচ্ছুক, তবে একটা সন্ত্রাসী হামলার মাত্র মাসদুয়েক পর যখন কোথাও যাব, সেখানে গিয়ে মানিয়ে নেওয়া এবং ক্রিকেটে মনোযোগ দেওয়াটা সহজ নয়। ’ মরগানের ভাবনা ছড়িয়েছে ইংল্যান্ডের ড্রেসিংরুমের আরো কয়েকজনের মনেও। তবে তাদের মধ্যে নেই জনি বেয়ারস্টো। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, নির্বাচকরা দলে নিলে বাংলাদেশে আসতে আপত্তি নেই তাঁর, ‘আমি আত্মবিশ্বাসী হয়ে বলতে পারি, নির্বাচিত হলে আমার সিদ্ধান্ত হবে ইতিবাচক। ’ বাংলাদেশে প্রিমিয়ার লিগ খেলে যাওয়া মঈন আলীও কোনো সমস্যা দেখছেন না,‘দলে নির্বাচিত হলে অবশ্যই যাব। আমি পাঁচ-ছয়বার বাংলাদেশে গিয়েছি। আমার কথা হচ্ছে, এখন বিশ্বে কেউই কোনো জায়গায় নিরাপদ নয়। ’ মেইল অনলাইন


মন্তব্য