kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

আমরা বরং টেস্ট খেলার জন্য মরিয়াই হয়ে থাকি

ফিটনেস টেস্টে সব সময়ই প্রথম হয়ে থাকেন তিনি। গত বুধবারের ব্লিপ টেস্টেও তাই হয়েছেন সাব্বির রহমান। ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টির পর এখন যিনি টেস্ট খেলার স্বপ্নেও বুঁদ হয়ে আছেন। সেটি ছাড়াও সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে বললেন আরো অনেক কথাই

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আমরা বরং টেস্ট খেলার জন্য মরিয়াই হয়ে থাকি

প্রশ্ন : টেস্ট ক্রিকেটে খেলা আপনার স্বপ্ন। স্বপ্ন পূরণের জন্য নিজেকে কতটা উপযোগী করে তুললেন?

সাব্বির রহমান : বাংলাদেশ দলের হয়ে সাদা পোশাকে ক্রিকেট খেলার জন্য নিজেকে উপযোগী করে তুলতে চেষ্টা তো করছি।

সুযোগ পেলে যাতে টিকে থাকতে পারি, সেই প্রস্তুতিও নিচ্ছি। এখন দেখা যাক, সুযোগ পেলে অবশ্যই তা কাজে লাগাতে চেষ্টা করব।

প্রশ্ন : এই টি-টোয়েন্টির যুগে টেস্ট খেলার জন্য আপনার আকুল হয়ে থাকার কারণটা কী?

সাব্বির : দেখুন, টেস্ট ক্রিকেটটাই হলো আসল। একজন ক্রিকেটারের আসল পরীক্ষাটা এখানেই হয়। সব ক্রিকেটারই এটি খেলার স্বপ্ন দেখে। আমিও তাই। টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডে খেলার পর এখন বাকি আছে শুধু টেস্ট খেলাই। সুযোগ পেলে টেস্টেও দেশের জন্য ভালো কিছু করে টিকে থাকতে চাই।

প্রশ্ন : পৃথিবীর সব পেশাজীবীই সম্ভবত অল্প পরিশ্রমে বেশি রোজগার করতে চায়। ক্রিকেটাররাও এর ব্যতিক্রম নয় বলে এখন শুধুই টি-টোয়েন্টি খেলোয়াড় হয়ে যাওয়ার প্রবণতাও বাড়ছে। তা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের মধ্যে এমন আলোচনা কখনো হয়?

সাব্বির : একদমই না। বাংলাদেশ দলের ড্রেসিংরুমে ঢোকার পর থেকে আমি অন্তত কখনো এ ধরনের আলাপ শুনিনি যে আমাদের কেউ কম পরিশ্রমে বেশি রোজগার করার কথা বলছে। নিজেদের মধ্যে এই আলোচনাই করি যে কবে আবার টেস্ট খেলব বা কবে টেস্ট খেলার সুযোগ আসবে। আমরা বরং টেস্ট খেলার জন্য মরিয়াই হয়ে থাকি।

প্রশ্ন : এখন ওয়ানডে খেলার জন্যও নিশ্চয়ই আপনারা মরিয়া হয়ে আছেন?

সাব্বির : অবশ্যই। কারণ গত ৯ মাস ধরে ওয়ানডে খেলা হয় না আমাদের। তা ছাড়া ইংল্যান্ড সিরিজের আগে কিছু আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলা আমাদের জন্য জরুরিও হয়ে পড়েছিল। আফগানিস্তান সিরিজটি হচ্ছে বলে সুবিধাই হলো আমাদের। তিনটি ম্যাচই আমরা জিতে ভালো প্রস্তুতি নিয়েই নামতে চাই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে।

প্রশ্ন : ওয়ানডেতে ইংল্যান্ডের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স বাংলাদেশকে কি বার্তা দিচ্ছে?

সাব্বির : দেখুন, নিজেদের মাঠে সব দলই বাঘ। তা সে ভারত, পাকিস্তান কিংবা ইংল্যান্ড, যে-ই হোক না কেন। সুতরাং ইংল্যান্ড ইংল্যান্ডের মাঠে ভালো খেলেছে। আর আমাদের এখানে এসে ওদের ভালো করতে হলে আমাদের স্পিনারদের সামলে তবেই করতে হবে। কাজেই ওদের এখনকার পারফরম্যান্সে এমন কোনো বার্তা নেই যে এখানে এসে ৪০০ বা ৫০০ করবে। ওরা ৪০০ করলে তা তাড়া করার মতো ব্যাটসম্যান আমাদেরও আছে।

প্রশ্ন : বোলিং করা কি ছেড়েই দিলেন?

সাব্বির : না, আমি বোলিং করতে খুবই আগ্রহী। প্রিমিয়ার লিগ, বিসিএল কিংবা জাতীয় লিগে আমি অধিনায়ককে গিয়ে বলিও, ‘প্লিজ আমাকে বল দাও। ’ মাশরাফি ভাইও বলে, সুযোগ পেলে আমাকে বোলিং দেওয়া হবে। তো আমি সেই আশায়ই আছি।


মন্তব্য