kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জয়ে শুরু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার নতুন যুগ

৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জয়ে শুরু ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার নতুন যুগ

উরুগুয়ের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার ১-০ ব্যবধানের জয়ে মহামূল্যবান গোলটি মেসির। তাতে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের বাছাই পর্বে সবার ওপরে উঠে গেছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। অন্যদিকে গ্যাব্রিয়েল জেসুসের জোড়া গোলের সঙ্গে নেইমারের লক্ষ্যভেদে পাওয়া জয়ে ৭ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট ব্রাজিলের।

ব্যর্থতার সঙ্গে বন্ধুতায় চাকরি খুইয়েছেন দুই কোচ কার্লোস দুঙ্গা ও জেরার্দো মার্তিনো। বিশ্ব ফুটবলের দুই পরাশক্তি ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা তাই সাফল্যের সন্ধানে শুরু করল নতুন যুগ; নতুন কোচ লিওনার্দো বাচ্চি ও এদগার্দো বাউসার অধীনে।

তাতে জয় দিয়েই নতুন দিনের ক্যানভাসে প্রথম আঁক দিল দল দুটি। আর বাছাই পর্বের ম্যাচ জয়ে বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে ওঠার লড়াইয়ে একটু স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলার সুযোগ পাচ্ছে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা।

‘সেলেসাও’দের ব্যর্থতা ছিল কোপা আমেরিকার প্রথম পর্ব থেকে ছিটকে যাওয়া। দুঙ্গার যুগ ফুরিয়ে যায় তাতে। হোজারিও মিকালির অধীনে অলিম্পিকে সোনার পদক জিতলেও জাতীয় দলের দায়িত্ব পাননি তিনি। তা সঁপে দেওয়া হয় তিতের (বাচ্চির ডাকনাম) কাছে। আর লাতিন আমেরিকা বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে পরশু তাঁর শুরু ইকুয়েডরের বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয়ে। গ্যাব্রিয়েল জেসুসের জোড়া গোলের সঙ্গে নেইমারের লক্ষ্যভেদে পাওয়া এই জয়ে ৭ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট ব্রাজিলের। তালিকায় পাঁচ নম্বরে থাকলেও শীর্ষে থাকা আর্জেন্টিনার মাত্র ২ পয়েন্ট পেছনে তারা।

কোচ পরিবর্তন হয়েছে এই ‘আলবিসেলেস্তে’দের। তাদের ব্যর্থতা আবার ভিন্ন মাত্রার। ২০১৪ বিশ্বকাপ ও ২০১৫ কোপা আমেরিকার ধারাবাহিকতায় এবারও লাতিন শ্রেষ্ঠত্বের ফাইনালের মঞ্চে গিয়ে যে খায় হোঁচট আর্জেন্টিনা! যার জেরে লিওনেল মেসির মতো মহাতারকা পর্যন্ত দিয়ে দেন জাতীয় দল থেকে অবসরের ঘোষণা। পরবর্তীতে চাকরি গেছে মার্তিনোর, নতুন কোচ বাউসা অবসরের সিদ্ধান্ত বদলে রাজি করান পাঁচবারের ফিফা বর্ষসেরাকে। পরশু উরুগুয়ের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার ১-০ ব্যবধানের জয়ে মহামূল্যবান গোলটি ওই মেসিরই করা। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের বাছাই পর্বে সবার ওপরে উঠে গেছে দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

অথচ কুঁচকির ইনজুরির কারণে উরুগুয়ের বিপক্ষে ম্যাচটি খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল মেসির। তা ঝেড়ে মাঠে নামেন তিনি। আর প্রথমার্ধজুড়ে আর্জেন্টিনার নিরঙ্কুশ আধিপত্যের ফসল তুলে নেন ৪২তম মিনিটের গোলে। উরুগুয়ের রক্ষণ-খেলোয়াড়দের ভিড়েও বক্সের বাইরে থেকে শট নেন মেসি। যা একজনের গায়ে লেগে খানিকটা দিক বদলে ঢুকে যায় জালে। এর খানিক পর পাওলো দিবালার লাল কার্ডে আর্জেন্টিনার কাজটি কঠিন হয়ে যায়। কিন্তু একজন কম নিয়েও দ্বিতীয়ার্ধে তেমন বড় পরীক্ষা দিতে হয়নি স্বাগতিক রক্ষণভাগকে। জয় দিয়ে শুরু হয় বাউসা-জমানা। যে জয়ের পর অধিনায়কের প্রশংসায় পঞ্চমুখ কোচ, ‘ইনজুরি সত্ত্বেও মেসি দুর্দান্ত খেলেছে। কুঁচকির ইনজুরি কতটা যন্ত্রণার, তা জানি। কিন্তু জানতাম যে, ও মাঠে থাকবে। ’

মেসির বার্সেলোনা সতীর্থ নেইমার আবার ছেড়ে দিয়েছেন ব্রাজিলের অধিনায়কত্ব। কিন্তু জাতীয় দলের জার্সিতে ঠিকই ঝলসে ওঠেন তিনি। তবে পরশু ইকুয়েডরের রাজধানী কিটোতে তাঁকে ছাড়িয়ে আরো বেশি আলোকিত গ্যাব্রিয়েল জেসুস। আন্তর্জাতিক অভিষেকেই যে জোড়া গোল করেছেন এই তরুণ, তাঁর আদায় করা পেনাল্টি থেকে অন্য গোলটি নেইমারের।

সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সাড়ে ৯ হাজার ফুট ওপরে অবস্থিত কিটোতে খেলা সব সময় চ্যালেঞ্জের। এখানে এর আগে কখনো বাছাই পর্বের ম্যাচ জেতেনি ব্রাজিল। তিতের অধীনে খেলা পরশুর ম্যাচেরও প্রথম ৭০ মিনিট নিষ্ফলা। এরপর জেসুসকে ইকুয়েডরের গোলরক্ষক ফাউল করলে পেনাল্টি পায় সেলেসাও। ব্রাজিলকে এগিয়ে নেন নেইমার। খানিক পরই হুয়ান কার্লোস পারেদেসের লাল কার্ডে কাজ সহজ জয়ে যায় সফরকারীদের। ৮৭তম মিনিটে মার্সেলোর নিচু ক্রসে ফ্লিক করে অসাধারণ গোল করেন জেসুস। আর ইনজুরি সময়ে নেইমারের কাছ থেকে বল পেয়ে বক্সের মাথা থেকে অসাধারণ আরেক গোলে অভিষেক স্মরণীয় করে রাখেন এই ফরোয়ার্ড।

ম্যাচের পর জেসুসের প্রশংসায় তাঁর ক্লাব কোচদেরও উল্লেখ করেন তিতে, ‘কুকা, মার্সেলো, অসওয়ালদোর মতো কোচরা এরই মধ্যে গ্যাব্রিয়েলের সঙ্গে কাজ করেছেন। তাদের সঙ্গে কথা বলেছি, যা আমাকে সাহায্য করেছে। আমাদের আজকের জয়ে ওই কোচদের অবদান রয়েছে। তাদের ধন্যবাদ। ’ আলাদা করে বলেছেন নেইমারের কথাও, ‘পুরো দলই দারুণ খেলেছে। নেইমারও। এই নেইমার ব্রাজিলের, যে এসেছে সান্তোস থেকে। টেকনিক্যাল নেতা হিসেবে নিজের ভূমিকা দারুণভাবে ও পালন করেছে। ’

এই জয়ে ১২ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের পাঁচ নম্বরে ব্রাজিলে। সমান পয়েন্ট হলেও গোলপার্থক্যে পিছিয়ে প্যারাগুয়ে, যারা পরশু ২-১ ব্যবধানে হারায় চিলিকে। কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়নরা ১০ পয়েন্ট নিয়ে আছে তালিকার সাত নম্বরে। আর আর্জেন্টিনা-ব্রাজিলের মাঝে থাকা উরুগুয়ে, কলম্বিয়া ও ইকুয়েডরের পয়েন্ট ১৩। পরশু হামেস রোদ্রিগেস ও ম্যাকনেলি তরেসের গোলে কলম্বিয়া ২-০ ব্যবধানে হারায় ভেনিজুয়েলাকে। আরেক ম্যাচে বলিভিয়া ২-০ গোলে হারিয়েছে পেরুকে।

এদিকে এশিয়া অঞ্চলে শুরু হয়েছে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের চূড়ান্ত রাউন্ডের খেলা। ছয়টি করে দল নিয়ে দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে খেলছে ১২ দেশ। প্রতি গ্রুপের শীর্ষ দুটি করে দেশ সরাসরি পাবে রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট। পহেলা সেপ্টেম্বর ‘এ’ গ্রুপের ম্যাচে জয় পেয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া, ইরান ও উজবেকিস্তান। দক্ষিণ কোরিয়া ৩-২ গোলে চীনকে, ইরান ২-০ ব্যবধানে কাতারকে এবং উজবেকিস্তান ১-০ গোলে হারায় সিরিয়াকে। ‘বি’ গ্রুপে জয়ে শুরু অস্ট্রেলিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি আরবের। ইরাকের বিপক্ষে অস্ট্রেলিয়ার ২-০ ব্যবধানে এবং থাইল্যান্ডের বিপক্ষে সৌদি আরবের ১-০ গোলের জয় ছিল প্রত্যাশিত। তবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের কাছে জাপানের ১-২ গোলে হেরে যাওয়া চমক ছড়িয়েছে নিঃসন্দেহে। এএফপি


মন্তব্য