kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লুইসের ফেরা আর বিনা মূল্যের বালোতেল্লি

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



লুইসের ফেরা আর বিনা মূল্যের বালোতেল্লি

গ্রীষ্মকালীন দলবদলের জানালা বন্ধ হয়ে গেল। এর আগে পরশু শেষ দিনে টুকরো টুকরো চমকের হাওয়া ছিল ঠিকই।

এক দিন আগেও কে ভেবেছিলেন, দুই বছর আগে চেলসি থেকে প্যারিস সেন্ত জার্মেইতে যাওয়া দাভিদ লুইস আবার ফিরবেন স্টামফোর্ড ব্রিজে! কিংবা আর্সেনালের জ্যাক উইলশায়ার ধারে চলে যাবেন বোর্নমাউথে!

দলবদলের শেষ দিনের হুড়োহুড়িতে দলবদল হয়েছে বেশ কিছু। জো হার্ট যেমন ম্যানচেস্টার সিটি থেকে ধারে নাম লেখান তোরিনোতে। যদিও তা অনুমান করা যাচ্ছিল আগে থেকেই। আবার নিউক্যাসল ইউনাইটেডের মুসা সিসোকো পাঁচ বছরের চুক্তি করেন টটেনহামের সঙ্গে। খেয়ালি প্রতিভা মারিও বালোতেল্লিকে বিনা মূল্যে বেচে দিয়েছে লিভারপুল। ইতালিয়ান ফরোয়ার্ড যোগ দেন ফরাসি ক্লাব নিসে। আবার চেলসি থেকে হুয়ান কারদাদো তিন বছরের জন্য ধারে যান ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়ন জুভেন্টাসে।

সব মিলিয়ে এই গ্রীষ্মকালীন দলবদলে অর্থের ঝনঝনানি ছিল তীব্র। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাবগুলো টানা দ্বিতীয় গ্রীষ্মে খেলোয়াড় কেনা বাবদ ব্যয় করেছে এক বিলিয়ন ইউরোর বেশি। সবচেয়ে বেশি ২১৩ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে ম্যানসিটি। আর ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তো পল পগবাকে ফুটবল ইতিহাসের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় বানিয়ে দেয় ১০৫ মিলিয়ন ইউরোতে জুভেন্টাস থেকে কিনে। ইংলিশ লিগের মতো ইতালিয়ান সিরি ‘এ’ এবং জার্মান বুন্দেসলিগাও খেলোয়াড় কেনায় গড়ে নতুন রেকর্ড। ইতালির ক্লাবগুলো খরচ করে ৬৯৯ মিলিয়ন ইউরো এবং জার্মান ক্লাবগুলো ৫৪৩ মিলিয়ন ইউরো। তুলনায় স্প্যানিশ ক্লাবগুলো এবার পিছিয়ে। ৪৫৮ মিলিয়ন ইউরো ব্যয় করেছে তারা। বিশেষত রিয়াল মাদ্রিদের নিষ্ক্রিয়তা ছিল বিস্ময়কর। স্প্যানিশ ক্লাবগুলোর মধ্যেও খেলোয়াড় কেনার ব্যয়ে পাঁচ নম্বরে তারা। সবচেয়ে বেশি ব্যয় করেছে বার্সেলোনা। এ ছাড়া ফ্রেঞ্চ ক্লাবগুলো খরচ করেছে ১৯১ মিলিয়ন ইউরো। মার্কা


মন্তব্য