kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

ছন্দটা ধরে রাখলেই চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

বাংলাদেশের মেয়েদের ফুটবল বলতেই এত দিন সাবিনা খাতুনের নাম এসেছে সবার আগে। তবে এই মুহূর্তে পারফরম্যান্সে কৃষ্ণা রানী, অনুচিংরাই সবচেয়ে বেশি আলোচনায়। অনূর্ধ্ব-১৬-র মেয়েদের পারফরম্যান্সে সাবিনা নিজেও মুগ্ধ। তাদের খেলা নিয়েই কথা বলেছেন তিনি কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ছন্দটা ধরে রাখলেই চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : অনূর্ধ্ব-১৬-র মেয়েদের খেলা কেমন উপভোগ করছেন?

সাবিনা খাতুন : খুব ভালো লাগছে। ওরা টানা ম্যাচ জিতছে, একের পর এক গোলও করছে প্রতিটি ম্যাচে।

তবে এই দলগুলো কিছুটা দুর্বল বাংলাদেশের তুলনায়। কৃষ্ণাদের আসল পরীক্ষাটা হবে পরের ম্যাচেই চাইনিজ তাইপের বিপক্ষে। ওরাও একের পর এক ম্যাচ জিতছে, অনেকগুলো গোলও করেছে।

প্রশ্ন : ইরানকে নিশ্চয় দুর্বল দলের কাতারে ফেলা যাবে না?

সাবিনা : না, আমি তা বলছি না। ইরান অবশ্যই শক্তিশালী দল। ওদের ভালো খেলেই হারাতে হয়েছে। তবে সিঙ্গাপুর ও কিরগিজস্তান সেই মানের ছিল না।

প্রশ্ন : চ্যাম্পিয়ন হতে পারবে বাংলাদেশ?

সাবিনা : খেলার এই ছন্দটাই ধরে রাখতে হবে। এরপর আল্লাহ ভরসা। আমরা তো আশাই করছি, বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হবে। তবে চাইনিজ তাইপের খেলাগুলো আমার দেখা হয়নি, শুনেছি ওরাও বেশ ভালো খেলছে এই টুর্নামেন্টে।

প্রশ্ন : অনূর্ধ্ব-১৪ ও ১৬ পর্যায়ে গত দুই বছর ধরেই বাংলাদেশের মেয়েরা বেশ ভালো খেলছে, দুটি টুর্নামেন্টে ওরা জিতেছে, এতটা সাফল্য তো আপনার নেই, আফসোস হয় না?

সাবিনা : আমি যখন খেলা শুরু করি, তখন প্রায় শুরু থেকেই জাতীয় দলে খেলতে হয়েছি। জাতীয় দলে প্রথম সুযোগ পাই আমি ১৫ বছরে। তখন যদি অনূর্ধ্ব-১৬ পর্যায়ের এমন টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ আমরা পেতাম তাহলে নিশ্চয় আমরাও ভালো করতাম। এটা ভেবে কিছুটা আফসোস তো হয়ই, বয়সভিত্তিক পর্যায়ে সেভাবে আমরা খেলার সুযোগই পাইনি।

প্রশ্ন : এই দলটির কার কার পারফরম্যান্স আপনাকে মুগ্ধ করছে?

সাবিনা : ওদের সবচেয়ে বড় গুণ ওরা একটা দল হিসেবে খেলতে পারছে। প্রত্যেকের সঙ্গে প্রত্যেকের দারুণ বোঝাপড়া। এতে করেই ভালো পারফরম্যান্স হচ্ছে। তার মধ্যেও কৃষ্ণা, সানজিদা, মার্জিয়াদের কথা তো বলাই যায়। ওরাই আক্রমণে বেশি সক্রিয়। অবশ্য এখনো পর্যন্ত বাংলাদেশের ডিফেন্স লাইনকে তেমন পরীক্ষাই দিতে হয়নি।

প্রশ্ন : আপনি নিজে স্ট্রাইকার হিসেবে দারুণ সফল, এই দলে কৃষ্ণা রানী ও আনুচিং মুগিনির মধ্যে কাকে বেশি এগিয়ে রাখবেন এই পজিশনে?

সাবিনা : দুজনই বেশ ভালো। তবে আনুচিং জুনিয়র, কৃষ্ণার এরই মধ্যে বেশ অভিজ্ঞতা হয়ে গেছে। ও জাতীয় দলেও আমাদের সঙ্গে খেলেছে। ফলে স্ট্রাইকার হিসেবে ও অনেকটাই পরিণত। তবে আনুচিংয়ের সম্ভাবনাও অনেক। মূল জাতীয় দলে একসময় ওরাই প্রতিনিধিত্ব করবে। তবে ওদের নিয়ে এই চর্চাটা যেন ফেডারেশন ধরে রাখে।


মন্তব্য