kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

জায়গা ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করছি

একসময় ‘দ্য ফিনিশার’ নাম পেয়ে যাওয়া নাসির হোসেনকে এখন কবে সুযোগ পাবেন ভেবে দিন পার করতে হয়। নিজের ক্যারিয়ারের এই উত্থানপতন নিয়েই তিনি কাল মুখোমুখি হলেন সংবাদমাধ্যমের

১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



জায়গা ফিরে পাওয়ার চেষ্টা করছি

প্রশ্ন : মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ, ক্যারিয়ারে দুটিই দেখেছেন আপনি। একসময় দলে অপরিহার্য ছিলেন, এখন নন।

এখান থেকে পাওয়া আপনার শিক্ষাটা কী?

নাসির হোসেন : অনেক কিছুই শেখার আছে। মানুষের জীবনে ভালো সময় যেমন আসে, তেমনি খারাপ সময়ও। এটা আমি  মেনেই নিয়েছি। এখন খারাপ সময় যাচ্ছে, ইনশা আল্লাহ সামনে ভালো সময়ও আসবে।

প্রশ্ন : দলে নিজের জায়গাটা ফিরে পাবেন বলে মনে করেন?

নাসির : এটা তো আমার হাতে নেই। টিম ম্যানেজমেন্ট যেটা ভালো মনে করেছে, সেটাই করেছে। হয়তো তারা আমার জায়গায় অন্য কাউকে ভালো মনে করেছে। আমি অবশ্য চেষ্টা করছি পারফরম্যান্স দিয়ে ওই জায়গাটা পুনরুদ্ধারের।

প্রশ্ন : ম্যাচ শেষ করে আসার জন্য আপনার নামই হয়ে গিয়েছিল ‘দ্য ফিনিশার’। তা এই নামটা মিস করেন কি না?

নাসির : মিস তো অবশ্যই করি। কিন্তু আমাকে যদি না-ই খেলায়, তাহলে ‘ফিনিশ’ করব কিভাবে! (হাসি...)।

প্রশ্ন : বলছিলেন যে দলে জায়গা পুনরুদ্ধারের জন্য প্রাণপণে খেটে চলেছেন। তা বাড়তি কিছু কি করছেন?

নাসির : আসলে আমাদের কোচ (চন্দিকা হাতুরাসিংহে) সবার জন্যই নির্দিষ্ট একটি সূচি তৈরি করে দেন। সেই অনুযায়ীই আমরা ব্যাটিং-বোলিং অনুশীলন করি। তবে আমি এর বাইরেও কাজ করি। অনুশীলন শেষে নিয়মিত আধঘণ্টা, এক ঘণ্টা ব্যাটিং করি। এভাবেই উন্নতি করে আগের জায়গাটায় ফেরার চেষ্টা করছি।

প্রশ্ন : এখন অনুশীলনের বাইরেও বাড়তি সময় দিচ্ছেন। অথচ একসময় আপনার মধ্যে এই বাড়তি খাটার মনোভাব না দেখেই নাকি চটে গিয়েছিলেন হেড কোচ হাতুরাসিংহে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় আপনার কখনো ঐচ্ছিক অনুশীলনে না যাওয়ার ব্যাপারটিও নাকি ভীষণ অপছন্দ করেছিলেন তিনি?

নাসির : দেখুন, আমি আগের মতোই আছি। ঐচ্ছিক অনুশীলনের কথা বলছেন তো? সেটি বিশ্বকাপের সময় আমি এক দিনই মিস করেছিলাম। তা ছাড়া ঐচ্ছিক অনুশীলন মানেই হলো দিনটি বিশ্রামের। কারো ইচ্ছা হলে অনুশীলনে যেতেও পারে, আবার ইচ্ছা না হলে নয়। এখন যে বাড়তি অনুশীলন করছি, সেটি আমার নিজের উন্নতির জন্য, দলে নিজের জায়গাটি ফিরে পাওয়ার জন্য।

প্রশ্ন : এক মাসের বেশি হয়ে গেল ক্যাম্প শুরু হয়েছে। কতটা উন্নতি করতে পারলেন?

নাসির : আমার মনে হয় সবারই ফিটনেসের অনেক উন্নতি হয়েছে। ক্যাম্পের শুরুতে আমার ব্লিপ টেস্টের রেজাল্ট এসেছিল ১০/৬। আর এখন সেটি ১১/৩। এরকমভাবে সবারই উন্নতি হয়েছে। এরপর আগামী এক-দেড় বছরে টানা খেলার কারণে আমাদের এমন ফিটনেস ক্যাম্প করার সুযোগ থাকবে না। এই ক্যাম্পটা না হলে খেলার মাঝখানে অনেকের ইনজুরিতে পড়ার সুযোগ বেশি থাকত।


মন্তব্য