kalerkantho


ফুটবল রোমাঞ্চের রাত

২ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



ফুটবল রোমাঞ্চের রাত

একটা সময় বাংলাদেশ ভাগ হয়ে যেত দুই অংশে। ফুটবল উন্মাদনায় আবাহনী-মোহামেডানের উত্তাপ ছড়ানো ম্যাচের আগে-পরে সমর্থকদের মারামারি-সংঘর্ষের খবর ছিল প্রত্যাশিত। ঢাকা লিগের সেই সোনালি দিনগুলো এখন অতীত। সময়ের পালাবদলে প্রযুক্তির উত্কর্ষে সুদূর স্পেনের এক দ্বৈরথ সারা বিশ্বের ন্যায় চুম্বকের মতো টেনে নিয়েছে বাংলাদেশের ফুটবল ভক্তদেরও। আবাহনী-মোহামেডানের চেয়েও অনেক গুণ তীব্র ঝাঁঝ সেই দ্বৈরথের—যে লড়াই শুধু মাঠের নয়, রাজনীতি ও জাতিগত বৈষম্যেরও। ন্যু ক্যাম্পে আজ রাত সাড়ে ১২টায় উত্তেজনা-রোমাঞ্চকর সে লড়াইয়ে আরেকবার জমে উঠবে ফুটবল বিশ্ব। নাম যার ‘এল ক্লাসিকো’।

বার্সেলোনা যেখানে প্রতিনিধিত্ব করে কাতালান জাতির। কাতালুনিয়া প্রদেশের রাজধানী বার্সেলোনার ফুটবল দলটি যেন গণমানুষের দল, কাতালুনিয়ার স্বাধীনতাকামী জনতার প্রতিবাদের ভাষাও। বিপরীতে রিয়াল মাদ্রিদ স্প্যানিশ জাতীয়তার প্রতীক।

ফুটবল এখন নিয়মিত সঙ্গী টেলিভিশনের পর্দায়। ইউরোপিয়ান ক্লাব ফুটবল এতটা জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে সারা রাত জেগে খেলা দেখতেও প্রস্তুত অনেকে। বিশ্বকাপে এলে যেখানে আর্জেন্টিনা-ব্রাজিল বলতে অস্থির সবাই, সেখানে স্পেনের সমর্থক থাকে খুবই সামান্য। অথচ ক্লাব ফুটবলে এই স্পেনকে ঘিরেই চলে কত সব আলোচনা, বাজি, লড়াই, প্রতিদ্বন্দ্বিতা। আজ ফুটবলের সেই দিন। সবচেয়ে সেরা ফুটবল দ্বৈরথ কিনা, এ নিয়ে খানিক বিতর্ক থাকলেও একটা বিষয় পরিষ্কার—টিভি দর্শকদের চাহিদায় ‘এল ক্লাসিকো’ এক নম্বর।

মাঠের বাইরের হিসাবে বার্সেলোনা-রিয়ালের লড়াই উত্তেজনায় ঠাসা। কিন্তু মাঠের ফুটবলে কি আদৌ আছে সেই উত্তাপ? প্রশ্নটা শুধু সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর আগের এল ক্লাসিকো বার্সেলোনা ৪-০ গোলে জিতে ফিরেছে বলে নয়, উঠছে রিয়ালের চলতি মৌসুমের পারফরম্যান্সের কারণে। আবার নিজের মাঠে বার্সার বিপক্ষে ‘লস ব্ল্যাঙ্কোদের’ অমন লজ্জা পাওয়ার ঘটনাটাও তো অস্বীকার করার উপায় নেই। যদিও ফুটবলের অন্যতম সেরা এ দ্বৈরথের রং পাল্টেছে মুহূর্তে। ঘুরে দাঁড়িয়ে রিয়াল জিতে ফিরেছে ন্যু ক্যাম্প থেকে। আজ তাহলে কেন নয়!

কিন্তু লা লিগার পয়েন্ট টেবিলে দুই দলের যে ফারাক, স্পষ্ট করে বললে শিরোপা দৌড়ে বার্সেলোনার ধারেকাছেও নেই রিয়াল। জিনেদিন জিদান নিজেই তো ছেড়ে দিয়েছেন শিরোপা জয়ের আশা। ফরাসি কিংবদন্তি আবার কোচ হিসেবে প্রথমবার নামতে যাচ্ছেন উত্তেজনাকর দ্বৈরথে। যে লড়াইয়ের আগে বার্সার চেয়ে মাদ্রিদের ক্লাবটি পিছিয়ে ১০ পয়েন্টে। তৃতীয় স্থানে থেকেও অবশ্য আশা ছাড়ছেন না রিয়াল ফরোয়ার্ড গ্যারেথ বেল, ‘ফুটবলে যেকোনো কিছু সম্ভব। জানি ১০ পয়েন্টে পিছিয়ে আছি, তবে আমরা শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাব। ’ আর এল ক্লাসিকো নিয়ে তাঁর পরিকল্পনা, ‘এই মুহূর্তে ওরা (বার্সেলোনা) দারুণ খেলছে, আমাদের তাই ম্যাচের নিয়ন্ত্রণটা নিতে হবে। আমরা আক্রমণ চালিয়ে ওদের দুর্বল জায়গাগুলোর ফায়দা তুলব। সেরাটা দিতে পারলে আমি আশাবাদী আমরা জিততে পারব। ’

বার্সেলোনা তা হতে দিলে তো! একে মর্যাদার লড়াই, তার ওপর আবার আজ কাতালানরা শ্রদ্ধা জানাবে তাদের হিরো ইয়োহান ক্রুইফকে। অধিনায়ক আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা আগেই জানিয়ে রেখেছেন, এল ক্লাসিকো জিতে উৎসর্গ করতে চান ডাচ কিংবদন্তিকে। ম্যাচের আগে ন্যু ক্যাম্প সাজবে ক্রুইফের জন্য, বার্সেলোনার জার্সিতে লেখা থাকবে ‘গ্রাসিয়েস ইয়োহান’, সঙ্গে আরো কত আয়োজন। শ্রদ্ধা জানানোর এমন উপলক্ষে শোকের কালো মেঘ ছড়িয়ে মেসিরা তো চাইবেনই খুশির বৃষ্টি নামাতে। আর্জেন্টাইন খুদে জাদুকরের জন্য আবার দিনটি বিশেষ হতে পারে অন্য কারণে। এল ক্লাসিকোর সর্বোচ্চ গোলের মালিক (২১) আজ লক্ষ্য ভেদ করলেই সিনিয়র ক্যারিয়ারের ৫০০তম গোলের মাইলফলক ছুঁয়ে ফেলবেন। ক্লাব সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলনের সময় কম পেলেও আর্জেন্টিনার জার্সিতে মহারণের প্রস্তুতিটা সেরে নিয়েছেন তিনি দারুণভাবে। আক্রমণভাগের সঙ্গী লুই সুয়ারেসও জাতীয় দল উরুগুয়ের জার্সিতে ঝালিয়ে নিয়েছেন নিজেকে। আর বিশ্বকাপ বাছাইয়ে প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ব্রাজিলের সবশেষ ম্যাচে নিষিদ্ধ থাকায় আগেই দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন নেইমার। চোটের কোনো সমস্যা না থাকায় আজ সেরা একাদশই পাচ্ছেন কোচ লুই এনরিকে।

খেলোয়াড়ি জীবনে এল ক্লাসিকোতে এনরিকের বিপক্ষে খেলা জিদান কোচিং ক্যারিয়ারেও মুখোমুখি মহারণে। বিশ্বকাপ জয়ী তারকা অস্বস্তিতে আছেন খানিকটা। রাফায়েল ভারান চোট পেয়েছেন মাংসপেশিতে। অবশ্য মহারণের আগে পেপে ফিট হওয়ায় এমনিতেই একাদশে জায়গা হতো না তাঁর। তবে দুশ্চিন্তাটা টোনি ক্রোসকে নিয়ে। স্প্যানিশ ক্রীড়া দৈনিক ‘মার্কা’র খবর, অনুশীলনে হামেস রোদ্রিগেসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে মাটিতে পড়ে গিয়েছিলেন জার্মান মিডফিল্ডার। এরপর আর অনুশীলন করেননি তিনি। বড় ধরনের কোনো সমস্যা হয়েছে কি না, তা জানা যায়নি। অবশ্য ফিট আছেন ‘বিবিসি’। আন্তর্জাতিক বিরতিতে করিম বেনজিমা ও বেল ছুটি পাওয়ায় এল ক্লাসিকোর প্রস্তুতিতে সময় পেয়েছেন যথেষ্ট। রোনালদো আবার বেলজিয়ামের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে গোল করে ঝালিয়ে নিয়েছেন নিজেকে।

এর মানে ‘এমএসএন’-এর সঙ্গে তৈরি ‘বিবিসি’ও। প্রস্তুত ন্যু ক্যাম্প। যেখানে শুরুটা হবে ক্রুইফকে শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা নিবেদনের মাধ্যমে। আর শেষটা...তোলা থাকল আগামীকালের জন্য! এএফপি


মন্তব্য