kalerkantho

শনিবার । ২১ জানুয়ারি ২০১৭ । ৮ মাঘ ১৪২৩। ২২ রবিউস সানি ১৪৩৮।


মুখোমুখি প্রতিদিন

অলিম্পিকে খেলাটা এখন কঠিন হয়ে গেছে

সিদ্দিকুর রহমানের ক্যারিয়ারের অন্যতম বাজে মৌসুম যাচ্ছে এবার। নিজেকে মেলে ধরতে পারছেন না ঘরের কোর্স কুর্মিটোলায়ও। আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া পিজিটিআইয়ের টুর্নামেন্টে বিটিআই ওপেনে তাঁর ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে সে প্রসঙ্গেই কথা বলেছেন দেশসেরা এই গলফার

৩০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



অলিম্পিকে খেলাটা এখন কঠিন হয়ে গেছে

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : ঢাকা গত দুটি বড় টুর্নামেন্টে আপনি ভালো করতে পারেননি; এই আসরে নিশ্চয় সুযোগ ঘুরে দাঁড়ানোর?

সিদ্দিকুর রহমান : তা বলাই যায়। আমি আশাবাদী এই টুর্নামেন্ট নিয়ে। প্রস্তুতি ভালো আছে। এই মুহূর্তে নিজেকে বেশ ফিটও মনে হচ্ছে। টুর্নামেন্টটা আমি উপভোগ করতে চাই।

প্রশ্ন : পিঠের ব্যথাই কি আপনার পারফরম্যান্স খারাপ হওয়ার মূলে?

সিদ্দিক : ঢাকায় দুটি আসরেই ফিটনেস আমাকে ভুগিয়েছে। এই মুহূর্তে কোনো সমস্যা আছে বলে মনে হচ্ছে না। অবশ্য এমনটা বেশ কয়েকবারই মনে হয়েছিল, কিন্তু পরে সমস্যা হয়ে গেছে।

প্রশ্ন : এই মৌসুমে এখন পর্যন্ত আপনার যে পারফরম্যান্স, তাতে তো অলিম্পিকে খেলার সুযোগটাও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে গেল?

সিদ্দিক : হ্যাঁ, অলিম্পিকে খেলাটা এখন কঠিন হয়ে গেছে। জুন পর্যন্ত আমার হাতে বেশি টুর্নামেন্টও আর নেই। দুটি বা তিনটি টুর্নামেন্ট খেলার সুযোগ পাব। তাতে আবারও র‍্যাংকিংয়ে ফেরাটা কঠিন। তবে আমি আশা ছাড়ছি না। কারণ এখনো প্রতিটি টুর্নামেন্টই আমি জেতার জন্যই নামি।

প্রশ্ন : এই মৌসুমের সাতটি টুর্নামেন্টে কোনোটিতে বিশের মধ্যেও আপনি আসতে পারেননি; এতটা খারাপ হচ্ছে কী কারণে?

সিদ্দিক : দেখুন, আমি নিজে ভাবি না যে খুব খারাপ হচ্ছে। আমার প্রত্যাশামতো হয়তো খেলতে পারছি না। কিন্তু খুব খারাপ হচ্ছে ধরে নিয়ে যদি খেলতে থাকি তাহলে আমার জন্য ভালো করাটাও কঠিন হয়ে যাবে। আমার এখনো আত্মবিশ্বাস যে পরের টুর্নামেন্টটায়ও আমি চ্যাম্পিয়ন হতে পারি।

প্রশ্ন : এশিয়ান ট্যুর মেরিটে এই ৫৭তম স্থানে আছেন। শেষ কবে এত পেছনে ছিলেন, মনে করতে পারেন?

সিদ্দিক : ২০০৯-এ সম্ভবত। আমার ব্রুনাই ওপেন জয়েরও আগে। তবে সত্যি বলতে, আপনি বললেন বলেই জানলাম যে আমি ৫৭-তে আছি। ইচ্ছা করেই অমি দেখছি না র‍্যাংকিং য়ে ঠিক কার কী অবস্থা। আমি শুধু আমার নিজের খেলায়ই মনোযোগ রাখতে চাচ্ছি।

প্রশ্ন : মৌসুমের শেষে নিজেকে কোথায় দেখতে চান?

সিদ্দিক : যতটা ওপরে সম্ভব। নির্দিষ্ট কোনো লক্ষ্য স্থির করছি না।

প্রশ্ন : চার বছর পর দেশে পিজিটিআই টুর্নামেন্ট ফিরল, এটা নিশ্চয় ভালো খবর?

সিদ্দিক : অবশ্যই। আমার বা জামাল-সোহেলদের জন্য এটা হয়তো খুব বড় খবর নয়। কিন্তু দেশে আরো যারা পেশাদার আছে, এটা ওদের জন্য সত্যিই বড় মঞ্চ।


মন্তব্য