kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ভারত-অস্ট্রেলিয়া ‘কোয়ার্টার ফাইনাল’

২৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ভারত-অস্ট্রেলিয়া ‘কোয়ার্টার ফাইনাল’

বলছিলেন জেমস ফকনার, কিন্তু মনে হচ্ছিল স্টিভ ওয়াহর মুখ দিয়েই বেরোচ্ছে কথাগুলো! ১৯৯৯-র ওয়ানডে বিশ্বকাপে হারে হারে দেয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়া দলের অধিনায়ক স্টিভ তবু হাল না ছেড়ে বলেছিলেন, ‘এখান থেকেও চ্যাম্পিয়ন হওয়া সম্ভব। ’ টানা সাত ম্যাচ অপরাজিত থেকে সেবার অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বজয়ী দলের অধিনায়ককে আবার মনে করিয়ে দিলেন ফকনারই। গত পরশু ২৭ রানে ৫ উইকটে নিয়ে পাকিস্তানের বিদায় নিশ্চিত করা বাঁহাতি এ পেসার আজ মোহালিতে ভারতের বিপক্ষে ‘কোয়ার্টার ফাইনাল’ সামনে রেখে যেমন বলে ফেলেছেন, ‘আমরা টানা দুটি ম্যাচ জিতলাম। এখন বিশ্বকাপটি পেতে আমাদের জিততে হবে আরো তিনটি ম্যাচ। ’

সেই তিন ম্যাচের প্রথমটিতে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিপক্ষ ভারত একেই খেলছে দেশের মাটিতে, তার ওপর অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাদের সাম্প্রতিক রেকর্ডও ঈর্ষণীয়। এই জানুয়ারিতেই অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে স্বাগতিকদের তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে এসেছে মহেন্দ্র সিং ধোনির দল। এই বিশ্বকাপেই নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের ইতি টানতে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার অলরাউন্ডার শেন ওয়াটসন তাই এটাও মনে করিয়ে দিলেন যে, ‘ভারতের মাটিতে যেকোনো ফরম্যাটেই ওদের মুখোমুখি হওয়াটা যাকে বলে এক কথায় চূড়ান্ত রকমের চ্যালেঞ্জ। ভারতকে ওদের মাটিতে হারানোর অর্থই হলো সেটি অবিশ্বাস্য এক অর্জন। অস্ট্রেলিয়া দলের সবাই সেটি জানেও। ’

অবশ্য আর যেকোনো কিছুর চেয়ে দুই দলের কাছেই আজকের ম্যাচটির গুরুত্ব অন্য জায়গায় বেশি। তিন ম্যাচ খেলে দুটি করে জয়ে ৪ পয়েন্ট নিয়ে একে অন্যের মুখোমুখি হতে যাওয়া দুই দলের সামনে সমীকরণও জটিল নয় মোটেও। জিতলে সেমিফাইনাল হারলে বিদায়। সুপার টেন পর্বের এ ম্যাচকে তো এমনি এমনিই ‘কোয়ার্টার ফাইনাল’ বলা হচ্ছে না। নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে শুরু করা স্বাগতিকরা চির প্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের বিপক্ষে সহজে জিতলেও বাংলাদেশের কাছে হারতে হারতে জিতেছে। এমন চরম পরীক্ষার পর আজ আরেকটি শক্ত পরীক্ষা তাদের। তার ওপর এই ম্যাচের সঙ্গে সেমিফাইনালে যাওয়া বা না যাওয়ার অঙ্কও এমন জুড়ে গেছে যে চাপটা আরো বেশি। সেজন্য ভবিষ্যৎ না ভেবে কেবল এই ম্যাচ নিয়ে ভাবনায় ডুবে থাকাতেই সমাধান দেখছেন বিরাট কোহলি, ‘আমার তো মনে হয় বৃহত্তর পরিসরে না ভেবে এই ম্যাচেই মনোযোগটা রাখলে ভালো করব আমরা। ’ সেই সঙ্গে দলের সেরা পারফরমার এও যোগ করেছেন, ‘আপনি সহজেই জিততে চাইবেন স্বাভাবিক কিন্তু সব সময় তো আর তা হবে না। কখনো কখনো আপনাকে কঠিন পরিস্থিতির সঙ্গেও মানিয়ে নিয়ে খেলতে হবে। যেমনটি আমাদের শেষ দুটি ম্যাচে করতে হয়েছে। তবে পেছনে ফিরে দেখলে দেখবেন, এই মৌসুমে আমরা কিন্তু ধারাবাহিকভাবে বেশ ভালোই খেলছি। অস্ট্রেলিয়ায় গিয়ে জিতে আসার ইতিবাচক দিকগুলোতেও মনোযোগ দিতে পারি আমরা। তাই বলে সেটিকে সাফল্যের নিশ্চয়তা বলে মনে করারও কোনো কারণ নেই। ওইবারের (জানুয়ারির অস্ট্রেলিয়া সফর) ফল নিয়ে না ভেবে কেন আমরা ওদের হারাতে পেরেছিলাম, সেটি মনে রাখাই বরং বেশি গুরুত্বপূর্ণ বলে আমার মনে হয়। ’ এএফপি


মন্তব্য