kalerkantho

বুধবার । ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ । ৫ মাঘ ১৪২৩। ১৯ রবিউস সানি ১৪৩৮।


বিষণ্নতা নিয়েই ফিরছেন তাসকিন

২৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বিষণ্নতা নিয়েই ফিরছেন তাসকিন

যতক্ষণ শ্বাস, ততক্ষণই তো আশ! বাংলাদেশ দলের আশার প্রদীপটা তাই জ্বলছিল ঠিকই। নিবু নিবু সেই প্রদীপটা কাল নিভে গেল অবশেষে। চলতি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে আর খেলা হচ্ছে না তাই তাসকিন আহমেদের।

সাধ্যের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। তাসকিনের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ ঘোষণা করে আইসিসির যে সিদ্ধান্ত, তাতে অবাক হয় তারা। কিন্তু নির্বাক হয়ে আবার বসে থাকেনি। করে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আবেদন। পরশু বিকেল-সন্ধ্যায় হয় সেই আবেদনের শুনানি। জুডিশিয়াল কমিশনার মাইকেল বেলফ কিউসি টেলিকনফারেন্সের মাধ্যমে তিন ঘণ্টাব্যাপী এই শুনানি করেন। বেঙ্গালুরুর রিজ কার্লটন হোটেল থেকে তাতে যোগ দেন তাসকিন এবং বাংলাদেশ দলের টিম ম্যানেজমেন্টের আরো কয়েকজন। কাল সকালে আইসিসি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানিয়ে দেয় তাদের সিদ্ধান্ত। তাসকিনের বোলিং অবৈধ ঘোষণা করে সাময়িক যে নিষেধাজ্ঞা দেয় আইসিসি, বহাল রাখা হয় সেই সিদ্ধান্ত।

তাতেই আশার সামান্য সূর্যরশ্মি সরিয়ে হতাশার মেঘমালা আবার জাপ্টে ধরে বাংলাদেশ দলকে।

প্রথম আঘাতটি বজে র মতো আঘাত করে তাসকিনের মনোজগতে। হতাশায় ভেঙেচুরে একাকার হয়ে যান তিনি। কিন্তু সময় তো ব্যথার বড় উপশম। শুনানির পর আইসিসি আবেদন খারিজ করে দিলে তাই আর আগের মতো ভাঙচুর হয় না তাসকিনের মনে। বরং দ্রুত ফেরার প্রত্যয়ে এখনই এই বেঙ্গালুরু থেকে চেন্নাই গিয়ে আবার পরীক্ষা দিতে চান তিনি। তাতেও অবশ্য টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলার সম্ভাবনা নেই। বিসিবি তাই কেন ঝুঁকি নেবে এই তরুণকে নিয়ে! বিসিবি সভাপতি কাল টিম হোটেল রিজ কার্লটনে বললেন সেটিই, ‘ও যেহেতু বিশ্বকাপের ম্যাচ খেলতে পারছে না, তাই একটু সময় নিয়ে পরীক্ষা দেওয়াই ভালো। দেশে ফিরে গিয়ে অ্যাকশন শোধরানোর কাজ শুরু করবে। পরে সুবিধামতো সময়ে পরীক্ষা দেবে আবার। ’ তাসকিনকে এখনই চেন্নাই পাঠানোর আরেকটি সমস্যাও দেখছেন তিনি, ‘ওর সঙ্গে বোলিং কোচ হিথ স্ট্রিককেও তো পাঠাতে হবে। তখন আবার জাতীয় দল পড়ে যাবে সমস্যায়। কারণ কলকাতায় নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচের আগে তাদের ফেরা কঠিন। স্ট্রিককে সে ক্ষেত্রে পাবে না দল। ’ আর তাসকিন যদি দ্বিতীয়বার পরীক্ষা দিয়ে তাতেও উতরাতে ব্যর্থ হন, সে ক্ষেত্রে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা নেমে আসবে তাঁর ওপর। আবেগে ভেসে গিয়ে এত বড় ঝুঁকিও নিতে নারাজ বিসিবি।

এসব বিবেচনায় তাসকিনকে দেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। অভিযুক্ত অন্য বোলার আরাফাত সানি এরই মধ্যে গেছেন ফিরে। বেঙ্গালুরু-পর্ব শেষে আজ বাংলাদেশ দল যাচ্ছে কলকাতায়। দলের সঙ্গে সেখানে যাবেন তাসকিন। কাল সকালে দেশে ফেরার উড়ালে তুলে দেওয়া হবে তাঁকে। অভিযুক্ত দুজনকে একসঙ্গে না পাঠানোর কারণটা বলেছেন ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ, ‘একসঙ্গে পাঠালে হয়তো তাসকিনের মন ভেঙে যেত। তাই আলাদা আলাদা পাঠাচ্ছি। আর রিভিউয়ের আবেদনের সিদ্ধান্তও তো আগে পাইনি। ’

৯ মার্চ ধর্মশালায় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচে সন্দেহের আতশিকাচের তলায় পড়েন তাসকিন ও আরাফাত। ১২ মার্চ আরাফাত পরীক্ষা দিয়ে আসেন চেন্নাইতে আইসিসি অনুমোদিক স্যার রামাচন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে। ১৫ মার্চ যান তাসকিন। পরীক্ষায় সময় ন্যূনতম ছয়টি করে বাউন্সার, ইয়র্কার, গুডলেন্থ এবং নিজস্ব স্বকীয় কোনো ডেলিভারি থাকলে তা দেখা হয়। বাংলাদেশের পেসারের বাউন্সারেই হাতের কনুই অনুমোদিত ১৫ ডিগ্রির চেয়ে বেশি বাঁকে বলে জানানো হয় পরীক্ষার প্রতিবেদনে। ১৯ মার্চের সেই প্রতিবেদন পেয়ে ভীষণ অবাক হয় বাংলাদেশ। তাসকিনের অ্যাকশন কী করে অবৈধ হয়!

তবে অবাক হলেও নির্বাক হয়ে বসে থাকেনি বাংলাদেশ। ২১ মার্চ আইসিসির সিদ্ধান্তের বিপক্ষে আবেদন করা হয় পুনর্মুল্যায়নের। এরই শুনানি হয় পরশু সন্ধ্যায়। তাসকিনের বোলিং করায় যে নিষেধাজ্ঞা, সেই সিদ্ধান্ত আপাতত স্থগিত হবে বলে প্রবল আশাবাদী ছিল বাংলাদেশ ক্যাম্প। এমনকি ভারতের বিপক্ষে ম্যাচেই খেলানোর সামান্য সম্ভাবনাও তখন বড় হয়ে ওঠে। কিন্তু জুডিশিয়াল কমিশনার মাইকেল বেলফ কিউসির ভাবনা যে একই পথে হাঁটেনি। সব পক্ষের যুক্তি-তর্ক শুনে শেষে তাসকিনের বোলিং নিষেধাজ্ঞা বহাল রাখার সিদ্ধান্তই দেন তিনি।

এই ঘটনাকে পেছনে ফেলার তাগিদ ভারতের সঙ্গে ম্যাচের আগেই দিয়েছিলেন সহ-অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। এবার আক্ষরিক অর্থেই ঘটনাটি পিছু পড়ে গেল। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ অভিযানের বাকি অংশটা তাসকিনকে ছাড়াই কাটাতে হবে বাংলাদেশকে। এই পেসার এবার অ্যাকশন শুধরে আবার পরীক্ষা দিয়ে কত তাড়াতাড়ি জাতীয় দলে ফিরতে পারেন, সেটিই দেখার।


মন্তব্য