kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


দ্বিতীয়ার্ধের ঝড়ে বড় হার বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



দ্বিতীয়ার্ধের ঝড়ে বড় হার বাংলাদেশের

প্রথমার্ধ ১-১ গোলে সমতায় রেখেও বাংলাদেশ বড় হার ঠেকাতে পারেনি। দ্বিতীয়ার্ধে আরব আমিরাতের গোল উৎসবে তারা গতকাল আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত প্রীতি ম্যাচে ৬-১ গোলে হেরেছে।

বাংলাদেশ ডিফেন্সের সঙ্গে আমিরাতের ফরোয়ার্ডের লড়াইটাই প্রত্যাশিত ছিল। সেটাই হয়েছে তবে প্রথমার্ধ পর্যন্ত ১-১ গোলের সমতা দেখে ভালো লড়াইয়ের ছবি মেলে। কিন্তু আবুধাবিতে যে খবর পাওয়া গেছে, তাতে লড়াইটা করেছেন আসলে বাংলাদেশের গোলরক্ষক আশরাফুল রানা। মাত্র দুই মিনিটের মাথায় ইসমাইল হামাদির গোলে আরব আমিরাত এগিয়ে গিয়ে বড় ব্যবধানে জয়ের ইঙ্গিত দেয়। মিনিট তিনেক বাদেই অবিশ্বাস্যভাবে সেই গোল শোধ করে বাংলাদেশ ম্যাচে ফেরে। জুয়েল রানার বানিয়ে দেওয়া বলটি আমিরাতের জালে জড়িয়ে দেন তরুণ স্ট্রাইকার নাবিব নেওয়াজ জীবন। এ গোলই যেন লড়াইয়ের মন্ত্রে উজ্জীবিত করে পুরো দলকে। বিশেষ করে গোলরক্ষক আশরাফুল রানা অবিশ্বাস্য সব সেভ করেছেন, তাঁর অন্তত পাঁচটি দুর্দান্ত সেভে বাংলাদেশ বিরতিতে যায় ম্যাচ ১-১ গোলের সমতায় রেখে।

কিন্তু প্রতিরোধ ভেঙে যায় দ্বিতীয়ার্ধে। খেলা শুরু হতে না হতেই আহমেদ খলিলের গোলে ২-১ গোলের লিড নেয় আরব আমিরাত। ৭৩ মিনিটে ইসমাইল হামাদি নিজের দ্বিতীয় গোল করেন। এরপর ৮৫ মিনিট থেকে অতিরিক্ত সময় পর্যন্ত, অর্থাৎ সাত মিনিটে তিন-তিনটি গোল হজম করে বাংলাদেশ। তার মধ্যে সালাম সালেহর জোড়া গোল আছে। অন্য গোলটি করেছেন আহমেদ আলি। আমিরাতের ফরোয়ার্ডদের সঙ্গে পেরে ওঠেননি বাংলাদেশি ডিফেন্ডাররা। প্রথমার্ধে তাঁদের ব্যর্থতার পরও শেষ প্রাচীর হয়ে গোলরক্ষক রানা দাঁড়ালেও দ্বিতীয়ার্ধে তিনি সেই পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারেননি। তবে ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের স্প্যানিশ কোচ গঞ্জালো সানচেজ মরেনো দাবি করেছেন, ‘আমিরাতের তিনটি গোলই হয়েছে অফসাইড থেকে, নইলে এত বড় ব্যবধানে হারে না আমার দল। তবে আমাদের দল অনেক ভালো খেলেছে। গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানার পারফরম্যান্সে আমি খুব খুশি, তার এই ফর্ম জর্দানের ম্যাচেও দেখব আশা করি। ’ বাংলাদেশ দলের চার গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার সাফ ও বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে নিষিদ্ধ হয়েছেন। এ ছাড়া মিডফিল্ডার হেমন্ত কার্ড সাসপেনশনে এবং ফরোয়ার্ড সাখাওয়াত হোসেন ইনজুরির কারণে দলের বাইরে। অনেক নিয়মিত ও অভিজ্ঞ খেলোয়াড় না থাকায় নতুন দলের বড় পরীক্ষা হয়েছে আমিরাতের বিপক্ষে। আজ সকালেই বাংলাদেশ দল দুবাইয়ের বিমান ধরবে। ২১ তারিখ আম্মানে পৌঁছাবে ২৪ তারিখ জর্দানের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের শেষ ম্যাচ খেলার জন্য।


মন্তব্য