kalerkantho


জ্বলে উঠবেন সাকিব!

১৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



জ্বলে উঠবেন সাকিব!

সাকিব আল হাসানের বিশ্বকাপ শুরু ২৬ রান পেছনে থেকে। প্রথম পর্বের তিন ম্যাচ শেষেও কিনা ওই মাইলফলকের ৪ রান পেছনে তিনি!

তামিম ইকবালের কাছে বরং সেটি ছিল দূরের বাতিঘর।

দূরত্বটা ১৪১ রানের যে! অথচ ওই তিন খেলায় শুধু অর্জনের সেই ফলকে নিজের নাম খোদাই করেননি তিনি। মাইলফলক পেরিয়ে জুড়ে দেন আরো ৯২ রান। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে হাজার রানের মুকুট তাই তামিমের অধিকারে।

তাতে সাকিবের কাছে বড় একটি ইনিংসের দাবি আরো জোরালো হয় বৈকি! আজ পাকিস্তানের বিপক্ষেই কি সেই দিন?

তারকাখ্যাতিতে সাকিব-তামিমের এই টক্কর তো বাংলাদেশ ক্রিকেটের বহু পুরনো চর্চা। সেটি এক পাশে সরিয়ে ভিন্ন আরেক দ্বৈরথে চোখ রাখুন। সাকিবের সঙ্গে সাব্বির রহমানের। এমনিতে দুজনের তুলনা চলে না ঠিক। বাংলাদেশের সীমানা পেরিয়ে সাকিব সেই কবে থেকে বিশ্ব ক্রিকেটের সেরাদের সেরার তালিকায় জায়গা করে নেন! টি-টোয়েন্টিতে আরো বেশি করে। ক্রিকেটবিশ্বের নানা প্রান্তের ফ্র্যাঞ্চাইজি টুর্নামেন্টে এ বাঁহাতির চাহিদার তুঙ্গে থাকা সে ঘোষণাই দেয় সাড়ম্বরে।

অথচ অনাড়ম্বরে যেন বাংলাদেশ দলে সাকিবের ব্যাটিং পজিশনটি নিজের করে নিচ্ছেন সাব্বির। আর সেটিও কেমন করে! কুড়ি-বিশের ক্রিকেটে ২০১৬ সালে শুধু বাংলাদেশ না, পুরো বিশ্বেরই সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক সাব্বির। ১২ ম্যাচে ৩৮৮ রান করে তিনি এখন রাজাদের রাজা।

পারফরম্যান্সের রাজা সাকিবের কাছে আজ তাই ম্যাচ ঘোরানো ইনিংসের প্রত্যাশা বেড়ে যায় বটে!

বোলিংয়ে তাও যেমন-তেমন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ব্যাটিংয়ে বেশ বিবর্ণ সাকিব। আর তা অনেক দিন ধরে। ভাবা যায়, তাঁর মতো চ্যাম্পিয়নের কিনা বাংলাদেশের জার্সি গায়ে সর্বশেষ ২০ ম্যাচে ফিফটি নেই! টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্রথম খেলায় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে আউট ৫ রান করে। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে মাঠে নামতে না নামতেই বৃষ্টির প্রকোপে খেলা বন্ধ। ওমানের বিপক্ষে সর্বশেষ ম্যাচে ৯ বলে ১৭ রানের ছোট্ট একটি ইনিংস খেলেন। আর তাতেই ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত কিছুটা। দুটি চার ও এক ছক্কায় পুরনো সাকিবকে যেন লাল-সবুজে দেখা গেল অনেক দিন পর। আর এ আত্মবিশ্বাস থেকেই কিনা বোলিংয়েও পরে নেন ৪ উইকেট। ইডেন গার্ডেন্স আজ তাই মুখিয়ে ব্যাট-বলের ঝলসানো পারফরম্যান্সে ‘ঘরের ছেলে’কে বরণ করে নেওয়ার জন্য।

ঘরের ছেলে? হ্যাঁ, কলকাতা নাইট রাইডার্সেরই তো একজন এখন সাকিব! আইপিএলে দলকে চ্যাম্পিয়ন করানোর পথেও রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। যে কারণে এখন আর আইপিএলের নিলামে ওঠানো হয় না এ অলরাউন্ডারকে, প্রতিবার নাইট রাইডার্স ধরে রাখে বলে। আর ওই ফ্র্যাঞ্চাইজির হোমগ্রাউন্ড ইডেন গার্ডেন্স হওয়ার কারণে আজ ‘দ্বিতীয় ঘর’-এ খেলতে নামবেন সাকিব। বেগুনি-সোনালির বদলে লাল-সবুজ জার্সিতে, এই যা পার্থক্য! তবু পাগলপারা সমর্থন তিনি যে পাবেন—এ নিয়ে সংশয় সামান্য। সাকিবও নিশ্চয় বাজে ফর্মের চোরাবালি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য এ মঞ্চটা কাজে লাগাতে চাইবেন।

কাল বিকেলে ইডেন গার্ডেন্সে কিন্তু সাকিবকে তেড়েফুঁড়ে অনুশীলন করতে দেখা যায়নি। তবে তাঁর সঙ্গে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট ও সতীর্থদের ছোট ছোট সভা হয়েছে ঠিকই। ইডেন গার্ডেন্স যে সাকিবের খুব চেনা! আর সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাও বলেন তাঁর গুরুত্বের কথা, ‘এটি তো কেকেআরের হোম গ্রাউন্ড। এ মাঠ সম্পর্কে সাকিবের কাছ থেকে অনেক তথ্য নিতে পারব। ’ আর পারফরমার সাকিবের ওপর তো অধিনায়কের সংশয় নেই কখনো। ‘ওকে ছাড়াই আমরা এত ভালো খেলছি! সাকিব ফর্মে থাকলে তো আমাদের কেউ ঠেকাতে পারবে না’—ধর্মশালায় বলেছিলেন মাশরাফি। কালকের সংবাদ সম্মেলনেও বাঁহাতি অলরাউন্ডারের সামর্থ্যের পিঠে আস্থার হাত রাখেন তিনি, ‘সাকিব আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার। শেষ সাত-আট বছর সে যেভাবে আমাদের জন্য পারফর্ম করেছে, সেটা বিশেষ কিছু। আমি অবশ্যই চাইব, দলের সবাই পারফর্ম করুক। আর সাকিব যে দ্রুত ওর সেরাতে চলে আসবে, এ নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। ’

সাকিবের সামর্থ্যে সন্দেহ নেই কারো। তামিম অনেক পেছনে থেকেও তাঁর আগে টি-টোয়েন্টিতে হাজার রান করেন—তাতে কী? তাঁকে ভুলিয়ে সাব্বির নিজের করে নেন ৩ নম্বর জায়গা—তো? সাকিবের প্রতি আস্থায় ধরে না বিশ্বাসের ঘুণপোকা।

আজ পাকিস্তানের বিপক্ষে বিশ্বমঞ্চে সেই বিশ্বাসের প্রতিদান দেওয়ার চ্যালেঞ্জ সাকিব আল হাসানের। আর তিনি জিতলে তো বাংলাদেশের জয়ের সম্ভাবনাও বেড়ে যাবে সমান্তরালে!


মন্তব্য