kalerkantho


কাঠগড়ায় ‘ভারতপ্রেমী’ আফ্রিদি

১৫ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



কাঠগড়ায় ‘ভারতপ্রেমী’ আফ্রিদি

পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের সম্ভবত সমালোচিত হতে খুব ভালো লাগে! বাজে পারফরম্যান্সের জন্য তো বটেই, সেই সঙ্গে হুট করে এমন কিছু করে বসবে, যাতে সাবেকদের মুখ থেকে ছুটবে তেতো কথা। বিশ্ব টি-টোয়েন্টি যেন বিষয়টির উত্কৃষ্ট উদাহরণ।

নিরাপত্তা শঙ্কায় শহীদ আফ্রিদিদের ভারতে যাওয়াটাই ঢেকে গিয়েছিল কুয়াশায়। অনেক নাটকের পর ভারতে পা দেওয়ার পর আবার নতুন বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন আফ্রিদি ও শোয়েব মালিক। ‘পাকিস্তানের চেয়ে ভারতীয় সমর্থকদের কাছ থেকে বেশি ভালোবাসা পাই’—আফ্রিদির এ মন্তব্যের পর থেকে সমালোচনার ঝড় উঠেছে পাকিস্তানে। ৩৬ বছর বয়সী এ অলরাউন্ডারকে ধুয়ে দিয়েছেন সাবেক অধিনায়ক জাভেদ মিয়াঁদাদ। এমনকি লাহোরের হাইকোর্ট থেকে নোটিশও পাঠানো হয়েছে পাকিস্তানের টি-টোয়েন্টি অধিনায়কের কাছে।

নিরাপত্তার বিষয়ে ভারত সরকার লিখিত নিশ্চয়তা দেওয়ার পর পাকিস্তান দল পাঠিয়েছে বিশ্ব টি-টোয়েন্টিতে। সূচির দুই দিন পর ভারতে পা রেখে আফ্রিদি ভারতীয়দের প্রশংসা করতে গিয়ে এতটাই ‘আবেগপ্রবণ’ হয়ে পড়েছিলেন যে নিজ দেশের সমর্থকদের খাটো করে ওপরে তোলার চেষ্টা করেছেন ভারতীয় ক্রিকেটভক্তদের। মালিক আবার মন্তব্য করেছেন, তিনি কখনো ভারতে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন না। যেখানে নিরাপত্তার কারণেই পাকিস্তান দল পাঠাতে রাজি হয়নি ভারতে! ‘ভারতের জামাই’-এর মন্তব্য অবশ্য ঢাকা পড়ে গেছে আফ্রিদির ‘ভারতপ্রীতি’তে।

পাকিস্তানের লাখো ক্রিকেটপ্রেমীকে ‘নিচু’ করার অভিযোগ এনে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন লাহোর হাইকোর্টের আইনজীবী আজহার সিদ্দিকী। আফ্রিদিকে তাই কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠিয়েছেন আদালত। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে নিজের বক্তব্যের পক্ষে যুক্তি দেখাতে হবে আফ্রিদিকে।

আইনি সমস্যায় পড়ার সঙ্গে সাবেকদের সমালোচনার তীরে বিদ্ধ হতে হচ্ছে আফ্রিদিকে। এই অলরাউন্ডারের তীব্র সমালোচনা করে মিয়াঁদাদ জানিয়েছেন, পাকিস্তান ভারতে খেলতে গেছে বলে এই নয় যে খেলোয়াড়রা ‘দালালি’ করবেন স্বাগতিকদের। ‘আজ টিভি’কে দেওয়া সাক্ষাত্কারে সাবেক এই অধিনায়ক বলেছেন, ‘খেলোয়াড়রা যা বলেছে, সে জন্য তাদের লজ্জা পাওয়া উচিত। ভারতীয়রা আমাদের কী দিয়েছে? ভারতে থাকলেও সত্যটা বলো। গত পাঁচ বছরে ভারত আমাদের কী দিয়েছে কিংবা পাকিস্তানের ক্রিকেটের জন্য কী করেছে। পাকিস্তান ক্রিকেটের সঙ্গে অনেক দিন কাজ করা একজন মানুষ হিসেবে আমি ধাক্কা এবং আঘাত পেয়েছি আমাদের খেলোয়াড়দের মুখ থেকে এমন মন্তব্য শুনে। ’ ১২৪ টেস্ট খেলা সাবেক এই ব্যাটসম্যান পাকিস্তান ক্রিকেট কর্তৃপক্ষকে বিষয়টার দিকে নজর দিতে বলেছেন। একই সঙ্গে বিদেশে খেলতে যাওয়ার আগে খেলোয়াড়দের মিডিয়ার সামনে কথা বলার ক্লাস করে নেওয়া উচিত বলেও মনে করছেন তিনি। রেগেই বললেন, ‘দলের কাজ হলো ভারতে গিয়ে ভালো পারফর্ম করা, অহেতুক কোনো কথাবার্তা বলার জন্য তারা যায়নি। ’

আরেক সাবেক ওপেনার মহসিন খানও খেপেছেন আফ্রিদির মন্তব্যে। পাকিস্তানের সাবেক এই কোচের বিস্ময়টা তখনো কাটেনি, ‘ওরা সিনিয়র খেলোয়াড়। ওদের অবশ্যই উচিত মিডিয়ার সামনে ঠিকমতো কথা বলা, বিশেষ করে সফরটা যখন ভারতে। ’ পিটিআই


মন্তব্য