kalerkantho


নেতৃত্ব দেবেন জাহানারা

১৪ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



নেতৃত্ব দেবেন জাহানারা

ক্রিকেটটা এতই মনপ্রাণ দিয়ে খেলেন জাহানারা আলম যে দল হারলে তাঁর নিজেকেই দায়ী মনে হয়। কেন ব্যাটিংটা ভালো হলো না, কেন আরো কিছু রান বেশি করে আসতে পারলেন না, কেন আরেকটু ভালো বোলিং করতে পারলেন না—এসব আক্ষেপই তাঁকে পোড়ায় অহর্নিশ।

মেয়েদের টি-টোয়েন্টির বিশ্ব আসরে বাংলাদেশ মহিলা দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন জাহানারা। খুলনার এই অলরাউন্ডার বছর পাঁচেক ধরেই খেলছেন জাতীয় দলে। বিশ্বকাপে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার স্বপ্নপূরণের খুব কাছাকাছি দাঁড়িয়ে জাহানারা, তাঁর নেতৃত্বেই ব্যাংককে বাছাই পর্বে রানার্স-আপ হয়েছে বাংলাদেশ। ভারতের বিমানে চড়ার আগে শুনিয়েছেন তাঁর বিশ্বকাপ ভাবনা। বেশ কিছুদিন ধরেই শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে কোনো ম্যাচ খেলছে না বাংলাদেশের মহিলা দল। চলছে শুধুই অনুশীলন। নিজেরা ভাগ হয়ে ম্যাচ খেলা আর ছেলেদের বয়সভিত্তিক সমন্বিত দলের বিপক্ষে ম্যাচ খেলার মধ্য দিয়েই বিশ্ব টি-টোয়েন্টির প্রস্তুতি নিচ্ছে জাহানারার দল। এ নিয়ে একটু আক্ষেপ আছে তাঁর, তবে অভিযোগ নেই কোনো। জানালেন, আগের চেয়ে অনেক উন্নতি করেছে বাংলাদেশ মহিলা দল। দলের ভেতর প্রতিযোগিতা বেড়েছে, ১৫ জনের স্কোয়াড থেকে একাদশ বাছাই করাটাই কঠিন হয়ে উঠছে।

জাহানারার দলের মূল শক্তি বোলিং ও ফিল্ডিং। নিজেদের দিনে শক্তিশালী কোনো প্রতিপক্ষকেও টি-টোয়েন্টিতে ১২০-১৩০ রানের মধ্যে বেঁধে ফেলার আত্মবিশ্বাস তাঁর কথায়। আর প্রতিপক্ষ যদি সমশক্তির হয়, তাহলে তাদের আরো কমেই আটকে ফেলা সম্ভব বলে মনে করেন জাহানারা। তবে তাঁর দুর্ভাবনা দলের ব্যাটিং শক্তি নিয়ে। অনুশীলনের সফল প্রয়োগ যে দেখা যাচ্ছে না ম্যাচে! তবু আশা হারাচ্ছেন না জাহানারা। টি-টোয়েন্টির এবারের বিশ্ব আসরে প্রতিপক্ষে আছে ভারত, ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও পাকিস্তানের মতো শক্তিশালী প্রতিপক্ষ। শুধু পাকিস্তান বাদে আর কোনো দলের বিপক্ষেই জয়ের কোনো স্মৃতি নেই বাংলাদেশের মেয়েদের। জাহানারার আশা, সবার বিপক্ষেই মাঠে কঠিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলবে তাঁর দল। জাহানারা খুলনার মেয়ে। ওয়ানডে দলে অভিষেক ২০১১ সালের ২৬ নভেম্বর, আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে মহিলা বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচে। টি-টোয়েন্টিতেও অভিষেক একই দলের বিপক্ষে, ২০১২ সালের ১২ আগস্ট ডাবলিনে।


মন্তব্য