একটা হাফসেঞ্চুরি চান নিগার-334261 | খেলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


একটা হাফসেঞ্চুরি চান নিগার

১০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



একটা হাফসেঞ্চুরি চান নিগার

উইকেটের পেছনে সব সময় প্রাণবন্ত মুখটা নিগার সুলতানার। গোটা ম্যাচেই সতীর্থদের এতটাই উদ্দীপ্ত করে যান যে ‘এনার্জি ড্রিংক’-এর আর প্রয়োজনই পড়ে না। ছোটবেলা থেকেই পাড়ার বন্ধুবান্ধব, ভাইদের সঙ্গে খেলতেন নিগার, ক্যাচটা ভালো ধরতে পারতেন বলে উইকেটের পেছনে দাঁড় করিয়ে দেওয়া হতো তাঁকে। এভাবেই উইকেটকিপিংয়ের শুরুটা। একসময় তাঁর জেলা শেরপুরে বিকেএসপির শিক্ষার্থী অন্বেষণে একটা ক্যাম্প হলো। দুই সপ্তাহের সেই প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে শেষ পর্যন্ত বিকেএসপির টিকিট মেলেনি জ্যোতি ডাকনামের মেয়েটির। কিন্তু নামেই যাঁর আলো, আঁধার কী করে গ্রাস করে তাঁকে! বিভাগীয় পর্যায়ে খেললেন, শেখ জামাল ক্লাবে পরিচিত একজনের মাধ্যমে মেয়েদের ক্লাব টুর্নামেন্টে খেলার সুযোগও হলো। প্রথম পেশাদার চুক্তি তাঁর জীবনের, তখন পড়তেন নবম শ্রেণিতে। শেখ জামালে খেলে পেয়েছিলেন ২০ হাজার টাকা, বাসায় সেই টাকাটা পরিবারের হাতে তুলে দিতে পারার আনন্দটা ভুলতে পারেন না নিগার।

জাতীয় দলে অভিষেক গত বছরের পাকিস্তান সফরে। নিরাপত্তার কারণে প্রবল প্রশ্নবিদ্ধ সেই সফরে পাকিস্তান যাওয়ার উত্কণ্ঠা একদমই স্পর্শ করেনি উচ্চ মাধ্যমিক পড়ুয়া মেয়েটিকে, কারণ জাতীয় দলে যে সুযোগ মিলে গেছে! বিকেএসপির ক্যাম্পে যাঁদের পেয়েছিলেন, যাঁরা মনোনীত হয়েছিলেন তাঁদের কাউকে জাতীয় দলে আসার পর দেখেননি নিগার। তাই মনে মনে ভাবেন, সেদিন মনোনীত না হয়েই বোধ হয় ভালো হয়েছিল! উইকেটের সামনে ও পেছনে সমান দক্ষ নিগার। বাছাই পর্বের ফাইনালে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলেছিলেন ৪১ রানের গুরুত্বপূর্ণ ইনিংস। সেই সঙ্গে গোটা আসরে ১২টি ডিসমিসালের কারণে আইসিসির চোখে পাঁচ উদীয়মান নারী ক্রিকেটারের একজন হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন নিগার। উইকেটের পেছনে স্পিনার ফাহিমার সঙ্গে তাঁর বোঝাপড়া দারুণ, চোখের ইশারাতেই হয়ে যায় যোগাযোগ। ভালো লাগে বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিমকে। বিশ্ব আসরে অন্তত একটা হাফসেঞ্চুরি করতে চান নিগার, সঙ্গে লক্ষ্য থাকবে কোনো ক্যাচ না ছাড়া ও অতিরিক্ত রান বেশি হতে না দেওয়া। স্বপ্ন দেখেন অস্ট্রেলিয়ায় মেয়েদের বিগ ব্যাশ লিগে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করার।

মন্তব্য