ভাগ্যের সঙ্গে পরিশ্রমটাও লাগে-333088 | খেলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শুক্রবার । ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৫ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৭ জিলহজ ১৪৩৭


ভাগ্যের সঙ্গে পরিশ্রমটাও লাগে

শিরোপা জিতে ধোনি

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ভাগ্যের সঙ্গে পরিশ্রমটাও লাগে

ঝাড়খণ্ড থেকে উঠে আসা লম্বা চুলের এক ডাকাবুকো তরুণ। আর জুলপিতে পাক ধরে যাওয়া মিলিটারি ছাঁটের চুলের এক অভিজ্ঞ যুবক, এক মেয়ের বাবা। মহেন্দ্র সিং ধোনি বদলে গেছেন অনেকটাই। অনেকটাই বদলেছে তাঁর ব্যাটিংয়ের ধরনটাও। শুধু বদলায়নি তাঁর ‘ক্যাপ্টেন্স লাক’। এই ধোনি অখ্যাত যোগিন্দর শর্মাকে দিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শেষ ওভার করিয়ে জিতে যান, বাংলাদেশের সঙ্গে এশিয়া কাপের ফাইনালে ঝোড়োবৃষ্টির পর ধাতব মুদ্রাটাও যেন শুনল তাঁর কথাই। শিরোপা জয়ের পর ধোনি সংবাদ সম্মেলনে এসে বলে গেলেন, ক্রিকেটে ভাগ্যের ভূমিকা থাকেই, তবে কঠিন পরিশ্রম করে সেই ভাগ্যের ফসল তোলাটা হলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

মিরপুরে সব শেষ সফরগুলোর স্মৃতি খুব একটা মধুর নয়। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে হার, বাংলাদেশের সঙ্গে ওয়ানডে সিরিজে হার। এশিয়া কাপের ফাইনালে আল-আমিনকে ছক্কা হাঁকানো ধোনিকে দেখে বছর পাঁচেক আগের এক এপ্রিলের ধোনিই মনে হলো। যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দিয়ে ধোনির ‘ক্যাপ্টেন কুল’ হয়ে ওঠা, দেশের মাটিতে সেই আসরের আগেই যেন সৌভাগ্য ধরা দিল ধোনির কাছে। নিজেই বললেন, “ক্রিকেটে ভাগ্য অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ, কারণ খেলাটা শুরুই হয় মুদ্রা নিক্ষেপ দিয়ে। এমন একটা বৃষ্টিভেজা রাতে টসে হারলে আমাদের যদি আগে ব্যাট করতে হতো, তাহলে যা বাংলাদেশের হয়েছে সেটা আমাদের সঙ্গেও হতে পারত। তবে ভাগ্যের সঙ্গে পরিশ্রমটাও দরকার। ভাগ্য যে সুযোগটা তৈরি করে দেয়, পরিশ্রমের মাধ্যমে অর্জন করা দক্ষতা দিয়েই সেটা কাজে লাগাতে হয়।’ ভারতীয়  গণমাধ্যমের সঙ্গে সম্পর্কটা  যে ঠিক উষ্ণ নয় ধোনির, সে কথা অনেকেরই জানা। এশিয়া কাপ জয়কে বিশেষ মুহূর্ত হিসেবে উল্লেখ করার কারণ জানতে চাইলে ধোনির উত্তর, ‘বাংলাদেশকে হারালে গণমাধ্যম এমন একটা ভাব করে যে এ তো হওয়ারই কথা। আর হারলে চোখ পাকিয়ে তাকিয়ে বলে, ‘তোমরা তো বাংলাদেশের সঙ্গেও হেরেছ।’ এ যেন এমন এক প্রতিপক্ষ—যাদের সঙ্গে খেলাটা উভয় সংকটের। আমি বলছি, এই বাংলাদেশ ২০০৪ সালের বাংলাদেশ নয়। এই বাংলাদেশ অনেক বদলে গেছে, অনেক উন্নতি করেছে, তারা এখন দারুণ মানসম্পন্ন একটা প্রতিপক্ষ। তাই টিভিতে ক্রিকেট খেলা দেখে যারা এসব কথা বলে যে এটা কেন করলে আর ওটা কেন করলে, তাদের উচিত এসে বাস্তবতাটা পরখ করে যাওয়া।”

আজ সকালেই দেশে ফেরার বিমানে চড়ছে ভারতীয় দল। আইপিএল খেলে খেলে ঝানু হয়ে যাওয়া ভারতীয় ক্রিকেটাররা ঘরের মাঠে খেলবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। ধোনি জানালেন, সেখানে মাঠে নামার আগে এশিয়া কাপ জয়টা অনেক অনুপ্রেরণাই দেবে ‘টিম ইন্ডিয়া’কে, ‘এখানে বেশ কিছু কঠিন ম্যাচ খেলেছি আমরা। দলের অনেকেই দারুণ ফর্মে আছে, নতুনরা ভালো করছে সঙ্গে পুরনোরাও দারুণ ছন্দে আছে। আশা করছি আত্মবিশ্বাস নিয়েই দেশের মাটিতে আমাদের টি-টোয়েন্টি বিশ্ব আসরের অভিযান শুরু হবে।’

মন্তব্য