kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এ ফাইনাল সবার

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ক্রীড়া প্রতিবেদক : ক্রিকেট তো দেখেন। এশিয়া কাপ ফাইনালটা কেমন হবে?

আতিকুর রহমান : ভালো লাগছে, আমাদের ক্রিকেটাররা দেশকে শিরোপার দ্বারপ্রান্তে নিয়ে গিয়ে এমন একটা মুহূর্ত উপহার দিচ্ছে।

খারাপ লাগার বিষয় হলো, ফুটবলার হিসেবে এরকম আনন্দের উপলক্ষ তৈরি করতে পারিনি।

শিরোপা জিতবে কারা?

আতিকুর রহমান : সমর্থক হিসেবে অবশ্যই মাশরাফিদের হাতে দেখতে চাই ট্রফি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ দেখার পরপরই বাংলাদেশি অধিনায়কের শিরোপা ভাগ্য বিশেষভাবে আলোচনায়। দলের বড় তারকা সাকিব আল হাসানের অফফর্ম এবং হালের বিস্ময় মুস্তাফিজের অপঘাতে দলছুট হওয়ার পর যাদের মন ভেঙে গিয়েছিল সেই মনে ব্যাট হাতে রং লাগিয়েছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। এর সঙ্গে এসএ জোড়া সোনাজয়ী সাঁতারু মাহফুজা খাতুন শিলা যোগ করে দিচ্ছেন, ‘প্রথম ম্যাচে ভারতের কাছে হেরেছে ফাইনাল জেতার জন্য। সব বড় দলকে হারিয়েই শিরোপা জিতবে আমাদের ক্রিকেটাররা। কিন্তু অনেক চেষ্টা করেও ফাইনাল ম্যাচটি দেখার টিকিট পাইনি। ’

বাসার ড্রইংরুমে কিংবা রাস্তার ধারে চায়ের দোকানে নিজেদের মতো যুক্তি-তর্ক শেষে ১৬ কোটি মানুষই শিরোপাটা দেখতে পাচ্ছেন মাশরাফির হাতে। এ কারণেই কিনা ১৬ কোটি মানুষ মাঠে বসে ফাইনালটা উপভোগ করতে চায়। মারামারি করছে টিকিটির জন্য। টিকিট দুর্ভিক্ষ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে, দেড় শ টাকার টিকিট সাত-আট হাজার টাকা দিয়েও পাওয়া যাচ্ছে না! জাতি মোটামুটি ক্রিকেটে ভেসে গেছে।

সেটা বুঝেই কিনা অধিনায়ক আগেভাগেই স্বপ্নে লাগাম দিতে বলেছেন। হুজুগে জাতির যেমন ক্রিকেটাবেগ উথলে উঠেছে, সেটাই যে আবার দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে, ভালোভাবে জানেন মাশরাফি। তবে প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন সামর্থ্যের শেষ বিন্দু দিয়ে তারা লড়াই করবে, তারপর যা হওয়ার হবে। তার আগ পর্যন্ত আবেগকে প্রশ্রয় না দিয়ে ইতিবাচক থাকাই সংগত মনে করেন বাংলাদেশ দলের ডিফেন্ডার দলের নাসির উদ্দিন চৌধুরী, ‘একজন খেলোয়াড় হিসেবে বুঝি, প্রত্যাশার চাপ বড় মারাত্মক। কোনো চাপ না নিয়ে আমাদের ক্রিকেটাররা ফাইনালটা উপভোগ করুক। এটাই হলো ফাইনাল জেতার রেসিপি। ’

 

জনতার লাগামহীন স্বপ্নটা চাপ না হয়ে আজ ক্রিকেটারদের জন্য অনুপ্রেরণা হোক। নতুনভাবে অনুপ্রাণিত বাংলাদেশ ফাইনালে নামবে শিরোপার জন্য।


মন্তব্য