আরো সরাসরি নেওয়া যেত এই সিদ্ধান্ত-331580 | খেলা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


মুখোমুখি প্রতিদিন

আরো সরাসরি নেওয়া যেত এই সিদ্ধান্ত

জাতীয় দল থেকে বিভিন্ন মেয়াদে নিষিদ্ধ হয়েছেন চার খেলোয়াড়। সাম্প্রতিক সময়ে দলের হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর এই নিষেধাজ্ঞার ঘটনা ফুটবল অঙ্গনকে নাড়িয়ে দিয়েছে আরো একবার। কালের কণ্ঠ স্পোর্টসের মুখোমুখি হয়ে এ প্রসঙ্গেই কথা বলেছেন সাবেক অধিনায়ক জুয়েল রানা

৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



আরো সরাসরি নেওয়া যেত এই সিদ্ধান্ত

কালের কণ্ঠ স্পোর্টস : নিষেধাজ্ঞার খবর শুনেছেন নিশ্চয়, এমন কিছু কি ধারণা করেছিলেন?

জুয়েল রানা : বিষয়টা বুঝতে আমার সময় লাগছে। শৃঙ্খলাভঙ্গ এমন একটা ইস্যু, যা নিয়ে এত কর্মকাণ্ডের প্রয়োজন হয় না। এসব ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় সরাসরি। কিন্তু আপনারা দেখেছেন, কিছুদিন থেকেই এ বিষয়টা নিয়ে কত কথাবার্তা হয়েছে, দফায় দফায় বৈঠক হয়েছে। এসব কেন? দ্বিতীয় কথা হলো, এই সিদ্ধান্তে এক দিক দিয়ে জাতীয় দলের ক্ষতি হলো, বেশ কয়েকজন প্রতিষ্ঠিত খেলোয়াড়কে এখন পাওয়া যাবে না। তারাই আবার সারা বছর ক্লাবের হয়ে খেলতে পারবে নির্বিঘ্নে। তো, বিষয়টা কি সব দিক দিয়ে ইতিবাচক হলো? আমার সংশয় আছে।

প্রশ্ন : আপনি কি বলতে চাইছেন, এই সিদ্ধান্ত কোনো দৃষ্টান্ত তৈরি করবে না?

জুয়েল : আমার সংশয় আছে। আপনি যদি এভাবে ভাবেন, এ হলো জুয়েল রানা, ওকে আমরা নিষিদ্ধ করব, তাহলে তো কথা নেই। ডিডোর কথা মনে আছে, বিকেএসপির ক্যাম্প থেকে একজন সহকারী কোচসহ ছয় খেলোয়াড়কে তিনি বের করে দিয়েছিলেন শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে। এরপর বাফুফে কী করল? ডিডোকেই একরকম তাড়াল। সেটা কি দৃষ্টান্ত হয়েছিল? তখন তো তারা এখনকার মতো কঠোর হতে পারেনি। তো, এ ধরনের সিদ্ধান্তের যথার্থতা যাচাই আমাদের জন্য সহজ নয়, এটা ওরাই ভালো বলতে পারবে।

প্রশ্ন : গত দেড়-দুই বছর এই খেলোয়াড়রা একটা দল হিসেবেই খেলছে, সাফ থেকে কী এমন হলো যে সব ওলটপালট হয়ে গেল—মাঠের বাজে পারফরম্যান্স, তারপর এই নিষেধাজ্ঞা?

জুয়েল : একজন খেলোয়াড়ের মান তার নিজের কাছে। একজন কোচ এসে তাকে অনেক কিছু শেখাতে পারবে, কিন্তু সে যদি নিজের ভেতর থেকে তার জন্য তাড়না অনুভব না করে তাহলে সেই শিক্ষাটা হবে ভঙ্গুর। একটা না একটা সময় তা বেরিয়ে পড়বেই। আর সাফে মারুফ ভাই দায়িত্ব নিলেন, তিনি মাত্র ২৫ দিনের এই ঝুঁকিটা নেবেন আমরা ভাবিনি। সাফের মতো বড় আসরের জন্য এভাবে একটা দলকে তৈরি করা যায় না। কিন্তু তিনি ঝুঁকিটা নিলেন, তাতে যা হওয়ার তা-ই হলো।

প্রশ্ন : তো, সামনে জর্দান ম্যাচ, তার আগে আরব আমিরাতের বিপক্ষেও খেলতে হবে। সিনিয়র এই খেলোয়াড়দের ছাড়া দল নিশ্চয় ভুগবে?

জুয়েল : কিছুই করার নেই, যারা আছে তাদেরই দায়িত্ব নিয়ে খেলতে হবে। প্রস্তুতির সময়ও কম, টিম ম্যানেজমেন্টের উচিত এখন যতভাবে সম্ভব তাদের উজ্জীবিত রাখা।

মন্তব্য