kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অপূর্ণতা রেখে গেলেন মুস্তাফিজ

ক্রীড়া প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



অপূর্ণতা রেখে গেলেন মুস্তাফিজ

একজন গেছেন তো আরেকজন ইতিমধ্যেই এসে পড়েছেন। চোটের কারণে এশিয়া কাপের দল থেকে মুস্তাফিজুর রহমান ছিটকে পড়লেও তাঁর জায়গায় দারুণ ছন্দে থাকা তামিম ইকবাল ঢুকে পড়েছেন।

দুইয়ে মিলে কাটাকুটি হয়ে যাওয়ার কথা এবং তাতে ভারসাম্যের বিচারে দলটির সমান-সমানই হওয়া উচিত। মুস্তাফিজের অভাবে বোলিং শক্তিতে কিছুটা ঘাটতি পড়ে গেলেও তামিম যে আবার ব্যাটিংয়ের গভীরতা বাড়িয়েছেন। কিন্তু বাংলাদেশ শিবির ব্যাটিংয়ের শক্তিবৃদ্ধি সাদরেই গ্রহণ করলেও মুস্তাফিজের শূন্যতা মানতে চাইছে না কিছুতেই।

দলের অন্দরমহল ছাড়িয়ে সেই মনোভাব গতকাল প্রকাশ্যেও চলে এলো। এমনিতে চলতি এশিয়া কাপে চার পেসার খেলিয়ে আসা বাংলাদেশ আজ পাকিস্তানের বিপক্ষেও তা-ই করবে, মুস্তাফিজ থাকলে এমনটি নিশ্চিত করেই বলে দেওয়া যেত। কিন্তু বাঁহাতি এই বোলিং বিস্ময় যেহেতু নেই, তাই হঠাৎ করে রণসজ্জায় পরিবর্তন এনে থাকলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। আর পরিকল্পনা অপরিবর্তিত থাকলেও স্বাগতিক শিবিরের প্রত্যাশায় ঠিকই পরিবর্তন আসছে। পেস আক্রমণে মুস্তাফিজ থাকলে যেমন ফললাভের আশা ছিল, এই বাঁহাতি পেসারের চোট-পরবর্তী ঘটনায় সে আশা অন্তত নেই।

বাংলাদেশ দলের হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহেও যেমন কাল বলছিলেন, ‘এটা বলা মুশকিল যে মুস্তাফিজ যা করছিল, ঠিক তেমনটি অন্যরাও করতে পারবে কি না। কারণ ও একদমই ব্যতিক্রমী এক প্রতিভা। আমি নিশ্চিত যে অন্যরা যথাসম্ভব ভালোই করতে চাইবে। কিন্তু সেটি মুস্তাফিজের মতো না-ও হতে পারে। ’ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার কণ্ঠেও তো একই সুর। চাহিবামাত্র সাতক্ষীরার তরুণ ফাস্ট বোলারের কাছ থেকে যা পাওয়া যেত, সেটি পাওয়া যাচ্ছে না বলেই যেন বেশি চিন্তিত দেখাল তাঁকে, ‘মুস্তাফিজের না থাকা আমাদের জন্য বড় ক্ষতি। ও যা দেয়, দলের জন্য সব সময়ই তা অসাধারণ কিছু। এটি প্রমাণিত বিষয়। ’

পাকিস্তানের বিপক্ষে চার পেসার খেলানোর সম্ভাবনার প্রসঙ্গ তুলতেই হাতুরাসিংহের পাল্টা প্রশ্নেই যেন লুকিয়ে অনেক কিছু, ‘একজন যদি ইনজুরিতে থাকে, তাহলে আমরা চারজন পেসার খেলাব কিভাবে?’ মুস্তাফিজকে হারিয়ে সম্ভবত স্পিনার বাড়িয়েই নামার ছক কাটছে স্বাগতিকরা। যদিও বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) তৃতীয় আসরে দুর্দান্ত বোলিং করা আরেক বাঁহাতি পেসার আবু হায়দার রনি স্কোয়াডেই আছেন। ওদিকে আবার পাকিস্তানের পেস অ্যাটাকও কম ঈর্ষণীয় নয়। আর মুস্তাফিজও যখন নেই, তখন পাকিস্তানের বিপক্ষে একজন বাড়তি স্পিনার খেলানোর সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

আর যদি চার পেসার খেলানোর চিন্তায় অটল থাকেও, তখন সিদ্ধান্তটি নিজেদের আশায় বাঁধ দিয়েই নেবে বাংলাদেশ। মাশরাফি সে কথাই তো বলে দিলেন এভাবে, ‘কম্বিনেশন তো পাল্টেই গেছে। যেহেতু মুস্তাফিজই খেলতে পারছে না। এটা আমাদের জন্য কঠিন এক চ্যালেঞ্জই। মুস্তাফিজের জায়গা নিয়ে খেলার মতো কোনো বোলার এখন বিশ্বেই নেই। ’ সেই সঙ্গে অধিনায়ক আরো যোগ করেছেন, ‘ওর জায়গায় যে আসবে, তার জন্যও কাজটি খুব চ্যালেঞ্জিং হবে। ’

গত বছর ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাত করে দিয়ে খ্যাতির ঝলমলে আলোর নিচে এসে পড়া মুস্তাফিজের অভিষেক কিন্তু এই পাকিস্তানের বিপক্ষেই। তা-ও আবার টি-টোয়েন্টি দিয়েই। আন্তর্জাতিক অভিষেকেই শহীদ আফ্রিদিসহ দুটি উইকেট তুলে নেওয়া মুস্তাফিজকে এবার সেই পাকিস্তানের বিপক্ষেই না পাওয়ার বেদনা ভুলে অবশ্য সামনে তাকানোর চেষ্টা আছে মাশরাফির, ‘আমরা ওর না থাকা নিয়ে এখন আর ভাবছি না। আমরা সামনের দিকে তাকাচ্ছি। ’


মন্তব্য