kalerkantho


অপ্রকাশিত চিঠি : প্রচারবিমুখ হেমিংওয়ে

২ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



অপ্রকাশিত চিঠি : প্রচারবিমুখ হেমিংওয়ে

আর্নেস্ট হেমিংওয়ে

যুদ্ধক্ষেত্রে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করা, ঝঞ্ঝাবিক্ষুব্ধ সাগরে মাছ শিকারে যাওয়া কিংবা ষাঁড়ের লড়াইয়ে অংশ নেওয়ার মতো দুঃসাহসিক কাজগুলো ব্যক্তিগত জীবনে থোরাই পরোয়া করেছেন আর্নেস্ট হেমিংওয়ে। তাঁর অনেক গদ্যেও এসব উঠে এসেছে প্রধান বিষয় হয়ে। কিন্তু ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে অত্যন্ত স্পর্শকাতর ছিলেন হেমিংওয়ে। তিনি কখনোই চাইতেন না তাঁর ঘরের কথা পরে জানুক। নিজের পরিবারে সদস্যদের তো বটেই, এমনকি বন্ধুদের পর্যন্ত তিনি অনুরোধ করতেন যে, তাঁর ব্যক্তিগত বিষয়-আশয় যেন অন্যের কাছে তাঁরা প্রকাশ না করেন। হেমিংওয়ের লেখা চিঠিপত্র থেকেই জানা গেছে এ তথ্য। এসব চিঠি এর আগে কখনো প্রকাশিত হয়নি। কেমব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস হেমিংওয়ের লেখা চিঠিপত্র প্রকাশের উদ্যোগ নিয়েছে। ১৭ খণ্ডে এগুলো প্রকাশিত হবে। এর চতুর্থ খণ্ডের একটি চিঠিতে দেখা যায় হেমিংওয়ে লিখেছেন, ‘আমাকে যদি সবার কাছে লিখতে হয়, তবে তাতে আমার ব্যক্তিগত জীবন সম্পর্কে কোনো তথ্য থাকবে না।’ কারণ আমি চাই শুধু লেখাটাই সাহিত্যের মূল্যে বিচার হোক।’ তার মাস্টারপিস হিসেবে পরিচিত উপন্যাস ‘দ্য সান অলসো রাইজেস’ প্রকাশিত হওয়ার পর এর ব্লার্বে হেমিংওয়ের পরিচিতি ছাপা হওয়ায় এর এডিটরকে তিনি চিঠি লিখে এর প্রতিবাদ জানান এবং প্রকাশককে ব্লার্ব থেকে পরিচিতি সরিয়ে নিতে বলতে বলেন। তাঁর কথা না শুনলে ভবিষ্যতে ওই প্রকাশককে আর কোনো লেখা দেবেন না বলেও হুমকি দেন হেমিংওয়ে। তবে গবেষকরা জানান, ব্যক্তিগত বিষয়-আশয় সম্পর্কে কাউকে কিছু বলা অপছন্দ করলেও নিজের লেখা সম্পর্কে পাঠক অভিমতের বিষয়ে ব্যাপক আগ্রহ ছিল হেমিংওয়ের।

রিয়াজ মিলটন


মন্তব্য