সমৃদ্ধ সংস্কৃতির আলোয় গড়ে উঠুক-335201 | শুভসংঘ | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১৪ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৬ জিলহজ ১৪৩৭


মাতৃভাষার মাসের আলোচনা সভা

সমৃদ্ধ সংস্কৃতির আলোয় গড়ে উঠুক বাংলাদেশ

জাকারিয়া জামান   

১৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সমৃদ্ধ সংস্কৃতির আলোয় গড়ে উঠুক বাংলাদেশ

আলোচনা সভায় বক্তব্য দিচ্ছেন শুভসংঘ এনআইইটি শাখার প্রধান উপদেষ্টা

‘প্রতি বছরই ঘুরে-ফিরে একুশ আসে আমাদের মাঝে। সারা বিশ্ব বিভিন্ন আঙ্গিকে উদ্যাপন করে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের তাত্পর্যকে তুলে ধরে। প্রাসঙ্গিকভাবেই সেখানে চলে আসে আমাদের প্রাণপ্রিয় বাংলাদেশের নাম। আমাদের দেশ, আমাদের মাতৃভাষা বাংলাকে নিয়ে তারা কথা বলে। কথা বলে আমাদের সেই বীর সন্তানদের নিয়ে, যারা তাদের প্রাণের বিনিময়ে রক্ষা করেছিল বাংলা ভাষাকে। সারা বিশ্ব যেখানে আমাদের দেশ, ভাষা ও বীর সন্তানদের বীরত্ব গাথার গুণকীর্তন করছে, সেখানে এই একুশের পটভূমিতে আমাদের বর্তমান ভাবনা, ভূমিকা নিয়ে আলোচনা আলাদা তাত্পর্য বহন করে  বৈকি! যে ভাষার জন্য এ দেশের দামাল ছেলেরা বুকের তাজা রক্ত ঝরিয়েছে, চরম আত্মত্যাগের মাধ্যমে জানান দিয়ে গেছে ভাষার অধিকারের কী মাহাত্ম্য। আজ সময় এসেছে একটু ভেবে দেখার, আসলে প্রাপ্তির বিচারে বাংলাভাষী জাতি হিসাবে আমরা কতটুকু পেরেছি তাদের ঋণের এই বোঝা পরিশোধ করতে ‘তারুণ্যের চেতনায় একুশ’ শীর্ষক আলোচনায় কথাগুলো বলছিলেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি (এনআইইটি) শাখা শুভসংঘের প্রধান উপদেষ্টা সৈয়দ মো. তোফাজ্জল হোসেন।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি মঙ্গলবার গ্রীন রোডের নিজস্ব ক্যাম্পাসে ‘তারুণ্যের চেতনায় একুশ’ শীর্ষক একটি আলোচনা অনুষ্ঠান আয়োজন করে এনআইইটি শাখা শুভসংঘের বন্ধুরা। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এনআইইটির উপাধ্যক্ষ সৈয়দ মো. তোফাজ্জল হোসেন। এ ছাড়া বক্তব্য দেন প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষক মো. ইকবাল হোসেন, মো. শাহীন পারভেজ ও জুয়েল খান।

ভাষাশহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালনের পর শুরু হয় আলোচনা। শুভসংঘের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা শেষে শুভসংঘের সদস্যরা একুশের গান ও কবিতা পরিবেশন করেন। মো. ইকবাল হোসাইন বলেন, ‘যে জাতির শিক্ষা, ভাষা ও সংস্কৃতি সমৃদ্ধ রুচিশীল, যাদের সৃজনশীলতা অনুকরণীয় ও অনুসরণীয়, তাদের গতিশীলতা হবে অভাবনীয়। তাদের নেতৃত্ব হবে সাবলীল। ভালো কিছু গ্রহণে সকলে হবে উদার, অপসংস্কৃতির আগ্রাসনে থাকবে সজাগ আর রক্ষায় হবে কঠোর। তাহলেই সম্ভব জাতি হিসেবে নিজেদের স্বকীয়তা রক্ষা, সমৃদ্ধ ভাষা আর সংস্কৃতিতে পরিপূর্ণ একটা আদর্শ দেশ গঠন। আর এটাই হোক মহান একুশের অঙ্গীকার।’

শাহীন পারভেজ বলেন, ‘আমরা স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসি। আমরা স্বপ্ন দেখি মায়ের ভাষাকে ঘিরে আমাদের জাতীয়তাবোধের বিকাশ ঘটার। একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের স্বীকৃতি পেয়েছে। তাই অন্য জাতিকে মাতৃভাষার অধিকার শেখাবার আগে আমরা নিজেরা যেন নিজেদের মাতৃভাষাকে যোগ্য সম্মানের আসনে বসাতে পারি, সেটাই আমাদের আশা।’ আলোচনা অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন  মো. তোফায়েল আলম, সাবরিমা শারমিন, মো. মিনহাজুর রহমান, মো. মোরশেদ শেখ, মো. আবু বকর সিদ্দিক, কুলসুম আক্তার টুম্পা, মো. বিল্লাল হোসেন, মো. সজীব আলী, মো. মারুফ আহম্মেদ, তানজিদ আহম্মেদ, মো. মিঠুন, মো. শরীফুল ইসলাম, মো. স্বপন হোসেন, মো. শাহাবুদ্দিন, মো. হযরত আলী, মাকছুদুর রহমান প্রমুখ।

মন্তব্য