kalerkantho


চকরিয়ায় এলজিইডির প্রকল্প

১৮৫ নারী শ্রমিক পেলেন সঞ্চয়ের দেড় কোটি টাকা

চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) অধীনে জরুরি মেরামত কাজে শ্রমিক হিসেবে নিয়োজিত গরিব, অসহায়, এতিম, দুঃস্থ, স্বামী পরিত্যক্তা ও বিধবা শ্রেণির ১৮৫ নারী শ্রমিকের হাতে সঞ্চয়ের ১ কোটি ৪৮ লাখ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তন মোহনায় আনুষ্ঠানিকভাবে এসব নারী শ্রমিকের হাতে তুলে দেওয়া হয় সঞ্চয়ের টাকা। এতে একেকজন নারী শ্রমিক পেয়েছেন প্রায় ৮০ হাজার টাকা করে। একসঙ্গে এই বিশাল অঙ্কের টাকা পেয়ে নারী শ্রমিকেরা বেশ খুশিমনে বাড়ি ফিরেছেন।

এলজিইডি চকরিয়া অফিস জানায়, গত পাঁচবছর ধরে এসব নারী শ্রমিক এলজিইজির রোলার এমপ্লয়মেন্ট অ্যান্ড রোড মেনটেইনেস (আরইআরএমপি-২) প্রকল্পের অধীনে কর্মরত ছিলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে কাজের বিনিময়ে প্রতিদিন একজন নারী শ্রমিকের জন্য বরাদ্দ ছিল ১৫০ টাকা করে। এর মধ্যে প্রতিদিন ১০০ টাকা করে নগদ প্রদান করা হলেও ভবিষ্যতে যাতে তাঁরা স্বাবলম্বী হতে পারেন সেজন্য প্রতিদিনের বাকি ৫০ টাকা হিসেবে প্রতিমাসে তাঁদেরই ব্যাংক হিসাবে ১৫০০ টাকা করে সঞ্চয় হিসাবে জমা রাখা হয়। জমাকৃত সেই টাকার লভ্যাংশসহ প্রায় ৮০ হাজার টাকার চেক বৃহস্পতিবার বিতরণ করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকৌশলী কমল কান্তি পালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন এলজিইডি চকরিয়া অফিসের প্রধান সহকারী উত্তম কুমার।

জাফর আলম বলেন, ‘সরকার আরইআরএমপি-২ প্রকল্পের আওতায় সমাজের গরিব নারীদের কর্মসংস্থানের সুযোগ করে দিয়েছিল। যার সুফল আজ পেলেন।’

ইউএনও বলেন, ‘সরকারের এটি একটি যুগান্তকারী পদক্ষেপ।’

সঞ্চয়ের ৮০ হাজার টাকার চেক পেয়ে খাদিজা বেগম, রুজিনা আক্তার, বিধবা রাজিয়া বেগম বলেন, এতে আমাদের পরিবারের সচ্ছলতা ফিরবে।



মন্তব্য