kalerkantho

বাসচাপায় যুবক হত্যা

দেড় মাস পর চালক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৭ অক্টোবর, ২০১৮ ০০:০০



নগরের সিটি গেট এলাকায় যুবক রেজাউল করিম রনিকে বাস থেকে ফেলে পিষ্ট করার দেড় মাস পর ওই বাসচালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

সোমবার রাতে কুমিল্লা বালুতোবা এলাকার একটি হোটেল থেকে বাসচালক মোহাম্মদ দিদার ওরফে দিদারুল আলমকে (৪২) গ্রেপ্তার করা হয়।

দিদারুল আলম সন্দ্বীপ উপজেলার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কুচিয়ামোরা গ্রামের মোহাম্মদ ইয়াসিনের ছেলে। দুর্ঘটনার পর চট্টগ্রাম থেকে পালিয়ে মাস দেড়েক আগে তিনি কুমিল্লার বালুতোবা এলাকার একটি হোটেলে চাকরি নিয়েছিলেন বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পিবিআই পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘মাস দেড়েক আগে চট্টগ্রাম থেকে পালিয়ে কুমিল্লায় যায়। সেখানে পরিচয় গোপন করে নতুন খোলা একটি হোটেলে চাকরি নেয়।’

২৭ আগস্ট নগরের সিটি গেট সংলগ্ন কালীরহাট এলাকায় ৪ নম্বর রুটের লুসাই পরিবহনের একটি বাস থেকে ফেলে দেওয়া হয় রেজাউল করিম রনি (৩৫) নামের স্থানীয় বাসিন্দা ওই যুবককে। বাস থেকে ফেলে দেওয়ার পর ওই বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যান রনি। রনির মৃত্যুর ঘটনায় একদিন পর তার মামা আবদুর রহমান বাদী হয়ে নগরের আকবরশাহ থানায় হত্যা মামলা করেন।

পরে পিবিআইর ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদারের নির্দেশে মামলার তদন্তভার নেয় সংস্থাটি।

এ ঘটনায় বাসচালকের সহকারী মানিক সরকারকে লক্ষ্মীপুর থেকে ৬ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করা হয়। ৪ নম্বর রুটের লুসাই পরিবহনের চট্টমেট্রো-জ-১১-১৮০৩ নম্বরের গাড়িটিও আটক করেছে পুলিশ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে দিদারুল জানিয়েছে, সেদিন হাতে ব্যথা থাকায় সে বাস চালাচ্ছিল না। বদলি চালক সাদেকুল ইসলাম গাড়িটি চালাচ্ছিল।

নিহত রেজাউল করিম রনি ওই বাসের যাত্রী ছিলেন না। তিনি ছিলেন কাজী পরিবহনের অন্য একটি বাসের যাত্রী। দুই বাসের মধ্যে সড়কে সাইড দেওয়া নিয়ে সমস্যা হয়। পরে রেজাউল করিম রনি মাঝপথে লুসাই পরিবহনের বাসটিতে ওঠেন। তখন চালক সাদেকুলের সাথে রনির বিতণ্ডা হয়। এক পর্যায়ে সহকারী মানিক সরকার এবং দিদারুল মিলে ধাক্কা দিয়ে তাকে গাড়ি থেকে ফেলে দেয়। রাস্তায় পড়ে যাওয়ার পর চালক লুসাই পরিবহনের চাকায় রনিকে পিষ্ট করে হত্যা করে।

নিহত রনির ২২ মাস বয়সী এক কন্যাসন্তান আছে। ২০১১ সালে দুবাই থেকে দেশে ফেরেন রনি। দেশে তিনি মামার ব্যবসা দেখাশোনা করতেন।



মন্তব্য