kalerkantho


সাগরে মাঝিকে গুলি করে মাছধরা নৌকা লুট, চাঁদা দাবি

বাঁশখালী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়া চ্যানেলে গত মঙ্গলবার রাতে মাঝিকে গুলি করে বাঁশখালীর একটি মাছধরা নৌকায় ডাকাতি করেছে জলদস্যুরা। পরে ১২ মাঝি-মাল্লাকে অন্য একটি নৌকায় উঠিয়ে দিয়ে ওই নৌকা লুট করে নিয়ে যায় এরা।

এদিকে নৌকাটি ফিরিয়ে দিতে মালিকের কাছ থেকে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করছে জলদস্যুরা। ‘আল্লাহর দান’ নামে ওই মাছধরা নৌকার মালিক বাঁশখালীর শেখেরখীল ইউনিয়নের ফাঁড়ির মুখ এলাকার নুরুল কবির। তিনি ঘটনাটি কোস্টগার্ডকে জানালে তারা উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে বলে জানা গেছে। গুলিবিদ্ধ মাঝি মো. মনুকে (২৯) কক্সবাজারের একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

লুট হওয়া নৌকার মালিক নুরুল কবির বলেন, ‘জলদস্যুরা মাঝিকে গুলি করে মালামাল লুটের পর নৌকাটিও নিয়ে গেছে। পরে এরা মোবাইলে ফোন করে নৌকা ফিরিয়ে দিতে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। কিছুক্ষণ পর পর একেক মোবাইল নম্বর থেকে ফোন করছে এরা। ঘটনাটি কোস্টগার্ডকে জানিয়েছি। তারা উদ্ধার অভিযান চালাচ্ছে। গুলিবিদ্ধ মনু মাঝিকে কক্সবাজারে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। অন্য জেলেরা বাড়ি ফিরে এসেছে।’

শেখেরখীল ফিশিং বোট মালিক সমিতির সভাপতি মো. এয়ার আলী বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরে জলদস্যুদের উৎপাত ব্যাপকহারে বেড়ে গেছে। এ ব্যাপারে প্রশাসনিকভাবে কঠোর হস্তক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে জেলেদের এ পেশা ছেড়ে দিতে হবে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কিভাবে জেলেরা ব্যবসা চালিয়ে যাবে?’

কোস্টগার্ড পূর্ব জোনের স্টাফ অফিসার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘বোট ডাকাতি ও লুটের ঘটনা জানার সাথে সাথে আমাদের সবুজ বাংলা নামে জাহাজ দিয়ে উদ্ধার অভিযান চালানো হচ্ছে। জেলেদের উচিত জলদস্যুদের উৎপাত বন্ধে যেকোনো দুর্ঘটনা মুহূর্তের মধ্যে কোস্টগার্ডকে জানানো। সবুজ বাংলা জাহাজ অত্যাধুনিক সরঞ্জাম ও যন্ত্রপাতি নিয়ে সার্বক্ষণিক সহযোগিতার জন্য প্রস্তুত আছে।’

 

 



মন্তব্য