kalerkantho


চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

সাংবাদিককে ছাত্রলীগকর্মীদের মারধর

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে মিনহাজ তুহিন নামে এক সাংবাদিকে মারধর করেছে ছাত্রলীগকর্মীরা। গতকাল সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় রেলস্টেশনে এ ঘটনা ঘটে। মারধরের শিকার মিনহাজ তুহিন বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির (চবিসাস) সদস্য এবং আলোকিত বাংলাদেশ পত্রিকায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি।

মারধরকারীরা হলেন ইংরেজি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহমুদুল হাসান রূপক, একই বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের আলী তানভীর, মাকেটিং বিভাগের প্রথম বর্ষের মাহিম হোসাইন ও ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রাজিবুল আলম। তাঁরা সবাই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদের অনুসারী হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত।

জানা যায়, শহরগামী দুপুর দেড়টার ট্রেনে আসন ধরাকে কেন্দ্র করে এক শিক্ষার্থীকে হেনস্তা করে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির কার্যকরী সদস্য মাহমুদুল হাসান রূপক। কেন হেনস্তা করছেন?-এমন প্রশ্ন করায় রূপক এবং তাঁর অনুসারীরা তুহিনকে মারধর করেন। পরে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যালে তাঁকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

মারধরের ঘটনা অস্বীকার করে রূপক বলেন, ‘জুনিয়ররা একটু ঝামেলা করেছিল। আমি তাদের সরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছি।’

মারধরের শিকার তুহিন বলেন, ‘ওই শিক্ষার্থীকে হেনস্তা করার কারণ জানতে চাইলে রূপক এবং তার সঙ্গে থাকা জুনিয়ররা আমাকে মারধর করে। এ বিষয়ে সাংবাদিক সমিতির পক্ষ থেকে প্রক্টর অফিসে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।’

অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। কিছুদিন ধরে একটি চক্র ছাত্রলীগের ব্যানারে বিশ্ববিদ্যালয়কে অস্থিতিশীল করার জন্য পাঁয়তারা করছে। এসব অপরাধের সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে তাদের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত প্রশাসনিক ও একাডেমিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে সাংবাদিককে মারধরের ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতি (চবিসাস)।

গতকাল দুপুরে এক জরুরি সভায় সমিতির সভাপতি সৈয়দ বাইজিদ ইমন ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল ফয়সাল উদ্বেগ জানিয়ে বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সাংবাদিকদের হুমকি ও মারধরসহ নির্যাতনের ঘটনা বেড়েই চলছে। এটি মুক্ত সাংবাদিকতার পরিপন্থী বলে আমরা মনে করি। তাই এসব ঘটনা বন্ধে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।



মন্তব্য