kalerkantho


পানছড়িতে বিজয় হত্যা : স্কুলশিক্ষক গ্রেপ্তার

মহালছড়িতে ৩ গ্রামবাসীকে অপহরণের অভিযোগ

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি   

২০ জুন, ২০১৮ ০০:০০



মহালছড়ি উপজেলা সদর এলাকার তিনজন গ্রামবাসীকে অপহরণের অভিযোগ ওঠেছে। ইউপিডিএফ অভিযোগ করেছে, মঙ্গলবার সকালে মহালছড়ি বাজার থেকে প্রকাশ্য দিবালোকে তাঁদেরকে ধরে নিয়ে যায় জনসংহতি সমিতির সংস্কারপন্থীরা।

এদিকে অপহরণের অভিযোগকে ভিত্তিহীন দাবি করেছে জনসংহতি সমিতি। ‘অপহৃতরা’ হলেন রাঙামাটির রণুচন্দ্র কার্বারি পাড়ার মৃত রায় মোহন চাকমার ছেলে উৎপল চাকমা (৪০), একই এলাকার মৃত বিন্দু কুমার চাকমার ছেলে পূর্ণবরণ চাকমা (৫০) ও হিরো মোহন চাকমার ছেলে রিকেল চাকমা (৩২)।

ইউপিডিএফ প্রচার ও প্রকাশনা বিভাগের প্রধান নিরন চাকমার পাঠানো এক বিবৃতিতে অপহরণের তথ্য জানানো হয়। বিবৃতিতে এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন সংগঠনটির খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের প্রধান সংগঠক সচিব চাকমা। তবে মহালছড়ি থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক মো. হোসাইন বলেন, ‘এ ব্যাপারে এখনো কেউ অভিযোগ করেননি। খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে।’

স্কুলশিক্ষক গ্রেপ্তার : পানছড়িতে দুর্বৃত্তের গুলিতে জনসংহতি সমিতির এমএন লারমা পক্ষের সদস্য বিজয় ত্রিপুরা হত্যার ঘটনায় এক স্কুলশিক্ষককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাতে উপজেলার দক্ষিণ নালকাটায় নিজ বাড়ি থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জানা যায়, পানছড়ি পুলিশ সোমবার দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার দক্ষিণ নালকাটা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করে দেবদাশ চাকমাকে (৪২)। তিনি পানছড়ি কুঞ্জপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এবং হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি।

নিহতের স্ত্রী কালিন্দ্রী চাকমা গত রবিবার পানছড়ি থানায় মামলা করেছিলেন। মামলার প্রধান আসামি ইউপিডিএফ (প্রসীত খীসা) পানছড়ি উপজেলা শাখার অন্যতম সংগঠক সমাজপতি চাকমা। এছাড়া মামলার আসামি করা হয় ইউপিডিএফ সমর্থিত পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, লোগাং ইউপি চেয়ারম্যান প্রত্যুত্তর চাকমাসহ ১০ জনকে। পানছড়ি থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, অন্য আসামিদের ধরতে অভিযান চলছে।

উল্লেখ্য, গত ১৬ জুন বিকেলে পানছড়িতে দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন জনসংহতি সমিতি এমএন লারমা পক্ষের সদস্য বিজয় ত্রিপুরা। এই খুনের জন্য পাহাড়ের আরেক আঞ্চলিক দল ইউপিডিএফকে দায়ী করা হয়েছে। যদিও সংগঠনটি অভিযোগ অস্বীকার করেছে।



মন্তব্য