kalerkantho


বৃষ্টিতে মহাসড়কে গর্ত বিপদের আশঙ্ক

সৌমিত্র চক্রবর্তী, সীতাকুণ্ড (চট্টগ্রাম)   

১৪ জুন, ২০১৮ ০০:০০



বৃষ্টিতে মহাসড়কে গর্ত বিপদের আশঙ্ক

যানবাহনকে সতর্ক করতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ডের মাদামবিবিরহাটে গর্তে খুঁটির সঙ্গে লাল পতাকা। ছবি : কালের কণ্ঠ

টানা বর্ষণে সীতাকুণ্ডে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের একটি অংশ ধসে পড়েছে। এতে সড়কে বিশালাকার গর্ত হয়েছে। তবে সড়ক ও জনপথ বিভাগ এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সীতাকুণ্ডে গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হওয়ায় বিভিন্ন স্থানে ভূমিধসের ঘটনা ঘটছে। বুধবার সকালে মাদামবিবিরহাট ইছামতি খালের উপর মহাসড়কের চট্টগ্রামমুখী লেনে একটি সেতুর একপাশ ধসে পড়েছে। ওই গর্তের পাশ দিয়ে প্রতিমুহূর্তে অসংখ্য যানবাহন চলাচল করছে। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষ গর্তটির চারপাশে লাল পতাকা টাঙিয়ে দিয়ে কর্তব্য শেষ করেছে!

চট্টগ্রামগামী একটি লোকাল বাসের যাত্রী মো. ইকবাল হোসেন বলেন, ‘সীতাকুণ্ডের এই অংশ হলো বন্দরনগর চট্টগ্রামের প্রবেশদ্বার। এখানে প্রতিমুহূর্তে হাজার হাজার গাড়ি চলাচল করে। এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক যদি ভেঙে পড়ে তাহলে চট্টগ্রামের সঙ্গে সারাদেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার মত ঘটনাও ঘটতে পারে।’

গাড়ি চালকরা জানান, ওই সেতু খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। কিন্তু ভালোভাবে নির্মাণ না হওয়ায় বিগত দিনে আরো কয়েকবার সেতুটির আশপাশের মহাসড়কে ধস নেমেছিল। গত বছরও এটি ধসে পড়ে। ঠিক সে স্থানটিতে এবারও ধসে পড়েছে। এ অবস্থায় দ্রুতগতিতে যানবাহন চলার সময় দুর্ঘটনার আশঙ্কা করছেন তাঁরা। বারৈয়ারহাট-চট্টগ্রাম রুটের বাসচালক মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঠিক এমন জায়গায় ধস নেমেছে যেখানে যেকোনো সময় যানবাহন পড়ে গিয়ে দুর্ঘটনার শঙ্কা রয়েছে।’

জানতে চাইলে বারআউলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি মো. আহসান হাবীব বলেন, ‘মাদামবিবিরহাট এলাকায় আবুল খায়ের স্টিল মিলস সংলগ্ন মহাসড়ক ৫-৬ ফুটের মতো ধসে গেছে। সেখানে আমাদের পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। আমরা এর চারপাশে লাল কাপড় টাঙিয়ে দিয়েছি। পাশাপাশি সড়ক ও জনপথ বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের বিষয়টি জানিয়েছি।’ তিনি জানান, সওজ দ্রুত এসে অংশটি সংস্কার করবে। পাশাপাশি রাতে অতিরিক্ত বৈদ্যুতিক বাতির ব্যবস্থা করা হবে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ চট্টগ্রামের নির্বাহী প্রকৌশলী জুলফিকার আহমেদ বলেন, ‘এটি বড় কোনো ঘটনা নয়। মহাসড়কের যে অংশ ধসে পড়েছে সেখানে সংস্কার করা হচ্ছে। যাতে কোনো দুর্ঘটনা না ঘটে। যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।’

 


মন্তব্য