kalerkantho


পানছড়িতে দুর্বৃত্তের গুলিতে ইউপিডিএফ সংগঠক নিহত

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি    

২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ০০:০০



পাহাড়ি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর বিরোধে আবারও লাশ পড়েছে খাগড়াছড়িতে। এবার জেলার পানছড়ি উপজেলার দুর্গম মরাটিলা এলাকায় দুর্বৃত্তের গুলিতে প্রাণ হারালেন ইউপিডিএফ সংগঠক। গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন আরেক গ্রামবাসী যুবক।

রবিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার জন্য পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি-পিসিজেএসএস (এমএন লারমা) পক্ষকে দায়ী করেছে ইউপিডিএফ। এদিকে পুলিশ ঘটনায় আহতের কথা স্বীকার করলেও নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেনি।

এর আগে গত ১৬ এপ্রিল জেলা সদরের আপারপেরাছড়া এলাকায় দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন সূর্য বিকাশ চাকমা নামে কমলছড়ি এলাকার এক বাসিন্দা। তিনি ইউপিডিএফের সমর্থক ছিলেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, একদল অস্ত্রধারী দুটি অটোরিকশায় করে এসে পানছড়ির মরাটিলা নামক স্থানে একটি দোকানের সামনে ব্রাশফায়ার করলে ঘটনাস্থলেই নিহত হন সুনীল বিকাশ ত্রিপুরা ওরফে কাতাং ত্রিপুরা (৩৮)। এ সময় দোকানে অবস্থান করা অনন্ত ত্রিপুরা (২৬) নামে এক গ্রামবাসী যুবক দৌঁড়ে পালানোর সময় গুলিবিদ্ধ হন। তাঁর পায়ে গুলি লাগে। খবর পেয়ে পানছড়ি পুলিশ ছুটে গিয়ে গুলিবিদ্ধ অনন্ত ত্রিপুরাকে উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে রক্তক্ষরণ বেশি হওয়ায় খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়। নিহত ও আহত দুজন মরাটিলা এলাকার বাসিন্দা।

জানা গেছে, নিহত সুনীল বিকাশ ত্রিপুরা ওরফে কাতাং ত্রিপুরা ইউপিডিএফের গুইমারা ও মাটিরাঙা উপজেলার সমন্বয়কারী।

পানছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান জানান, মরাটিলা এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুপক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হওয়া অনন্ত ত্রিপুরাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে নিহতের ব্যাপারে কিছুই জানাতে পারেননি তিনি।

ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) দাবি করেছে, বিশেষ মহলের ছত্রছায়ায় সংস্কারপন্থী জনসংহতি সমিতির অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা ব্রাশফায়ার করে সুনীল ত্রিপুরাকে হত্যা করেছে। অবশ্য জনসংহতি সমিতির (এমএন লারমা) কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সুধাকর ত্রিপুরা জানান, কোনো হত্যাকাণ্ডের রাজনীতিতে জনসংহতি সমিতি বিশ্বাস করে না।

অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে তিনি দাবি করেন।

ইউপিডিএফ খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের প্রধান সংগঠক সচিব চাকমা এক বিবৃতিতে খুনের রাজনীতি পরিহার করে জনগণের কাতারে এসে আন্দোলনে শামিল হওয়ার জন্য জনসংহতি সমিতির প্রতি আহ্বান জানান। অন্যথায় কৃতকর্মের জন্য জনগণের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে বলে হুঁশিয়ার করে দেন।

বিবৃতিতে অবিলম্বে সুনীল বিকাশ ত্রিপুরার হত্যাকারী জেএসএস সংস্কারপন্থী সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি জানান।


মন্তব্য