kalerkantho


বাণিজ্য মেলার স্থায়ী জমি চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

৪ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



বাণিজ্য মেলার স্থায়ী জমি চায় চট্টগ্রাম চেম্বার

গতকাল চট্টগ্রাম নগরের পলোগ্রাউন্ডে শুরু হয়েছে ২৬তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। ফিতা কেটে মেলা উদ্বোধন করেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদসহ অতিথিরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

নিয়মিত বাণিজ্য মেলা আয়োজনের জন্য নগরের মধ্যেই একটি স্থায়ী জমি চেয়েছে চট্টগ্রাম চেম্বার।

বর্তমানে খোলা মাঠে বাণিজ্য মেলা আয়োজন করতে গিয়ে বিভিন্ন বিড়ম্বনার মুখোমুখি হতে হচ্ছে উল্লেখ করে চেম্বার সভাপতি এ দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘খেলার মাঠ খেলার জন্য বরাদ্দ রাখা উচিত।’

গতকাল শনিবার চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে চেম্বারের সাবেক সভাপতি ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এবং চেম্বারের সাবেক সভাপতি এম এ লতিফ এমপিও ওই দাবির  জোরালো সমর্থন দেন।

অনুষ্ঠানে যুক্তি দিয়ে চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, ‘২৬ বছর ধরে আমরা বেসরকারি উদ্যোগে দেশের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা আয়োজন করে আসছি। মেলা আয়োজনে দেরি হওয়ায় গতবছর বৃষ্টির কারণে দর্শক ক্রেতা কমে যায়। এতে ব্যবসায়ীদের আর্থিক ক্ষতি ও ভোগান্তি হয়। বিগত কয়েক বছর ধরেই এমনটি হচ্ছে।’

চট্টগ্রামে অনেক সরকারি খালি জমি পড়ে আছে উল্লেখ করে চেম্বার সভাপতি সেগুলোর মধ্য থেকে বাণিজ্য মেলার জন্য একটি জমি বরাদ্দের জন্য ভূমি প্রতিমন্ত্রী ও সিটি মেয়রের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

চেম্বার সভাপতি বলেন, ‘স্থায়ী জমি থাকলে ক্যালেন্ডার মেনে সবাই মেলা আয়োজন করতে পারব। এতে দেশি পণ্যের প্রসারে বেশ ভালো অবদান রাখার সুযোগ তৈরি হবে। অন্যরাও সেই সুযোগ নিতে পারবে।’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় চট্টগ্রাম ১১ আসনের সংসদ সদস্য ও চেম্বারের সাবেক সভাপতি এম এ লতিফ বলেন, ‘কর্ণফুলী নদীতে টানেল নির্মিত হচ্ছে। তাই ওপারে চেম্বার সদস্যদের জন্য একটি অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ করতে যাচ্ছি। সেই সঙ্গে আনোয়ারায় মেলা আয়োজনের জন্য একটি এক্সিবিশন হল বা একটি কনভেনশন সেন্টার স্থাপন করতে পারব।’

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ‘‘চট্টগ্রাম শহরে মাঠের বড় সংকট। যে মাঠগুলো আছে সেগুলোতে খেলাধুলা করা যাচ্ছে না। ফলে নতুন প্রজন্ম খেলাধুলার সুযোগ না পেয়ে ‘ফার্মের মুরগি’ টাইপ হয়েই বেড়ে ওঠছে। এজন্য মাঠ রক্ষা করতে হবে।’’

বাইরের দেশে শহর থেকে অনেক দূরেই এসব মেলা আয়োজন হয় উল্লেখ করে মেয়র বলেন, ‘স্থায়ী মেলা করার জন্য জমি পাওয়া কঠিন বিষয় নয়। কিন্তু আমাদের খুঁজে দেখতে হবে। আমি আপনাদের সহযোগিতা করবো।’

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ বলেন, ‘উন্নত বিশ্বে পাঁচতারা হোটেলের পাশেই এই ধরনের স্থায়ী কনভেনশন সেন্টার গড়ে ওঠেছে। তাই চট্টগ্রামের হার্ট অব দ্য সিটিতেই পাঁচতারা হোটেল আছে, এর পাশেই চট্টগ্রামের আউটার স্টেডিয়াম রয়েছে। সেটি ঘিরে এই ধরনের স্থায়ী কনভেনশন বা এক্সপো নির্মাণ করা যায়। সেটি পছন্দ না হলে আপনারা যদি আনোয়ারা বা অন্য কোনো স্থানে জমি খুঁজে দেন আমি সেখানেই জমি বরাদ্দের ব্যবস্থা নেব।’

তিনি জোর দিয়ে বলেন, ‘চট্টগ্রাম চেম্বার দেশের প্রথম ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার নির্মাণ করতে পারলে অবশ্যই একটি স্থায়ী এক্সিবিশন হলও নির্মাণ করতে পারবে।’

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন চেম্বার সিনিয়র সহসভাপতি ও মেলার আহ্বায়ক নুরুন নেওয়াজ সেলিম। সভাপতিত্ব করেন সহসভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান ২৬তম চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করেন। গতকাল শনিবার মাসব্যাপী মেলা নগরের পলোগ্রাউন্ডে শুরু হয়েছে।

আয়োজকরা জানান, পলোগ্রাউন্ডে চার লাখ বর্গফুটের বিশাল পরিসরে মেলার স্টল, প্যাভিলিয়ন সব বরাদ্দ হয়ে গেছে অনেক আগে। এবারও মেলার পার্টনার কান্ট্রি থাইল্যান্ড। এছাড়া ভারত, ইরান ও মরিশাস ২৩ হাজার বর্গফুট জায়গা নিয়ে বিশাল প্যাভিলিয়ন তৈরি করেছে। প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মেলা চলবে। দর্শনার্থীদের জন্য টিকিটের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা।


মন্তব্য