kalerkantho


ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত হত্যা

গ্রেপ্তার রুবেল চবির ছাত্র তাপস খুনেরও আসামি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২ মার্চ, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁর নাম রুবেল দে (২৪)। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুই দিনের হেফাজতে (রিমান্ড) পেয়েছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, ছাত্রলীগকর্মী রুবেল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তাপস হত্যা মামলারও আসামি। গত বুধবার রাতে তাঁকে নগরের পাঁচলাইশ থানা এলাকার মুরাদপুর মোড় থেকে আটক করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে তাঁকে আদালতে সোপর্দ করা হয়। শুনানি শেষে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম মো. সফিউদ্দিন দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দিন আহমেদ জানান, রুবেল চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণির ছাত্র। সুদীপ্ত হত্যায় এ পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা পাঁচ আসামির মধ্যে অন্যতম রুবেল পুলিশের কাছে চশমা রুবেল হিসেবে পরিচিত।

সুদীপ্ত হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও সদরঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রুহুল আমিন জানান, ২০১৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে নিহত হন তাপস সরকার। ওই হত্যা মামলার আসমি রুবেল। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী রুবেল সোহরাওয়ার্দী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হলেও আলাওল হলে থাকেন। ২০১৫ সালে হাটহাজারী থানার একটি অস্ত্র মামলারও আসামি তিনি।

তাপস হত্যার পর তাঁর বন্ধু হাফিজুল ইসলামের করা মামলায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের বিলুপ্ত কমিটির নেতা আশরাফুজ্জামান আশা, রুবেল দে, ফরহাদ হোসেন, এনামুল হাসেন অভি, সাহরিদ শুভ, সোহেল খান, রাশেদ হাসানসহ ৩০ জনকে আসামি করা হয়। তাপস হত্যা মামলায় ২০১৬ সালের ২ মে ২৯ জনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

গত ৬ অক্টোবর সকালে নগরের দক্ষিণ নালাপাড়ার বাসা থেকে ডেকে নিয়ে পিটিয়ে খুন করা হয় নগর ছাত্রলীগের সহসম্পাদক সুদীপ্ত বিশ্বাসকে। নগর আওয়ামী লীগের প্রয়াত সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী ছিলেন তিনি।

এ ঘটনায় সুদীপ্তর বাবা সদরঘাট থানায় অজ্ঞাতপরিচয় সাত-আটজনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পুলিশ মোক্তার, ফয়সাল আহমদ পাপ্পু, খাইরুল নূর ইসলাম ওরফে খায়ের, আমির হোসেন ওরফে বাবু নামে চারজনকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশ পরিদর্শক রুহুল আমিন জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে মোক্তার ও পাপ্পু আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে তাঁরা জানান, ‘বড় ভাইয়ের’ নির্দেশে সুদীপ্তর ওপর হামলা করা হয়েছে। তাঁদের জবানবন্দিতে হামলার পরিকল্পনাকারী হিসেবে রুবেল দে, আইনুল কাদের নিপুসহ কয়েকজনের নাম এসেছিল।


মন্তব্য