kalerkantho


বিএনপির অনশনে ছাত্রদলের দুপক্ষের মারামারি

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



বিএনপির অনশনে ছাত্রদলের দুপক্ষের মারামারি

চট্টগ্রাম নগরের কাজির দেউড়ি নাসিমন ভবনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির অনশন কর্মসূচি। ছবি : কালের কণ্ঠ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় বিএনপি ঘোষিত তিন দিনের কর্মসূচির শেষদিনে গতকাল বুধবার বিভিন্ন স্থানে অনশন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

কর্মসূচিতে নেতারা বলেন, সরকার কারাগারেও বেগম জিয়ার সঙ্গে অমানবিক আচরণ করছে। জামিন প্রক্রিয়া ও কারামুক্তি দীর্ঘায়িত করতে সরকার নতুন করে মামলা দেওয়া শুরু করেছে।

এদিকে নগর বিএনপির কার্যালয় নাসিমন ভবনের সামনে দলের অনশন কর্মসূচি চলাকালে ছাত্রদলের দুপক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় অনশনস্থলে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়।

মারামারির বিষয়টি বিএনপি নেতারা অস্বীকার করলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কর্মসূচি চলাকালে বুধবার দুপুর দেড়টার দিকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান শপথ উত্তর জেলা ছাত্রদলের এক জুনিয়রকর্মীকে দাঁড়ানো অবস্থা থেকে বসতে বললে ওই কর্মী সাইফুরকে ধাক্কা দেন। এতে নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর সমর্থিত ছাত্রদলকর্মীর সঙ্গে উত্তর জেলা ছাত্রদলের গিয়াস কাদের চৌধুরী পক্ষের কর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি-মারামারি হয়। পরে দলীয় নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এ ঘটনায় কেউ আহত হননি।

নগরের নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয় মাঠে নগর ও উত্তর জেলা বিএনপি পৃথকভাবে অনশন কর্মসূচি পালন করে। বিকেল ৪টায় কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুর রহমান শামীমকে জুস পানের মাধ্যমে অনশন ভাঙান প্রবীণ আইনজীবী বার কাউন্সিলের সাবেক সদস্য অ্যাডভোকেট কবীর চৌধুরী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. আবুল কালাম আজাদ ও ড. নসুরুল কাদির চৌধুরী।

নগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অনশন কর্মসূচিতে দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণির পেশাজীবী ও সাধারণ জনগণ অংশ নেন।

কর্মসূচিতে মাহবুবুর রহমান শামীম বলেন, ‘সরকার বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া আবারও ৫ জানুয়ারি মার্কা আরেকটি নির্বাচন করতে চায়। কিন্তু দেশের জনগণ সেটা হতে দেবে না।’

তিনি নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেনসহ গ্রেপ্তারকৃত নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি এবং নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্করসহ বিভিন্ন থানায় নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান।

কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা বেগম রোজী কবীর, বিএনপির কেন্দ্রীয় শ্রম বিষয়ক সম্পাদক এ এম নাজিম উদ্দিন, প্রকৌশলী কে এম সুফিয়ান, সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি, অধ্যাপক শেখ মহিউদ্দিন, এম এ আজিজ, হাজী মো. আলী, হারুন জামান, সৈয়দ আহমদ, অধ্যাপক নুরুল আলম রাজুু, নিয়াজ মো. খান, কামাল উদ্দিন কন্ট্রাক্টর, মো. ইকবাল চৌধুরী, এম এ হান্নান, এস এম সাইফুল আলম, কাজী বেলাল উদ্দিন, ইসকান্দর মির্জা, আর ইউ চৌধুরী শাহিন, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আনোয়ার হোসেন লিপু, মোশাররফ হোসেন দিপ্তী, টিংকু দাশ, কামরুল ইসলাম হোসাইনী, মনজুর আলম চৌধুরী মঞ্জু, শিহাব উদ্দিন মবিন, মহিলা দলের সভানেত্রী কাউন্সিলর মনোয়ারা বেগম মনি, সামশুল আলম, জি এম আইয়ুব খান, এস এম জি আকবর প্রমুখ।

এদিকে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা বিএনপির অনশন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয় নগরের শাহ আমানত সেতু সংলগ্ন ব্যাংক এশিয়ার সামনের মাঠে। কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী।

বিকেলে জাফরুল ইসলামসহ উপস্থিত নেতাকর্মীদের জুস পান করিয়ে অনশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন চট্টগ্রাম আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি ও চট্টগ্রাম জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী। কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. ইদ্রিস মিয়া, মোশাররফ হোসেন, নুরুল ইসলাম, চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান, মো. কাশেম চৌধুরী, আবু তাহের, ফৌজুল আমিন, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, নাজমুল মোস্তফা আমিন, শহীদুল আলম শহীদ প্রমুখ।

উত্তর জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি অধ্যাপক ইউনুস চৌধুরী। আবু তাহের ও আবদুল আউয়ালের সঞ্চালনায় কর্মসূচিতে বক্তব্য দেন এম এ হালিম, চাকসু ভিপি মো. নাজিম উদ্দিন, নুরুল আমিন, নুর মোহাম্মদ, আজম খান, জসীম সিকদার, সেকান্দর চৌধুরী, জসীম উদ্দিন চৌধুরী, ডা. খুরশিদ জামিল চৌধুরী, সেলিম চেয়ারম্যান, মো. মোস্তফা কামাল পাশা, আবু আহমেদ হাসনাত সৈয়দ নাছির উদ্দিন, সরোয়ার উদ্দিন সেলিম, তোফাজ্জল হোসেন, মোবারক হোসেন কাঞ্চন চেয়ারম্যান, জহুর আহমেদ, জাকির হোসেন, অধ্যাপক কুতুব উদ্দিন বাহার, হাসান মো. জসীম, সোলায়মান মনজু প্রমুখ।

 


মন্তব্য