kalerkantho

দাগনভূঞায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা খুন

দুই ছাত্রলীগকর্মী আটক

ফেনী প্রতিনিধি   

২২ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



দুই ছাত্রলীগকর্মী আটক

দাগনভূঞায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা ফখরুল উদ্দিন চৌধুরীকে হত্যার অভিযোগে পুলিশ দুই ছাত্রলীগকর্মীকে আটক করেছে। এঁরা হলেন মো. হিরু ও আমীর হোসেন বাহাদুর। শনিবার রাতে উপজেলার দুটি স্থানে অভিযান চালিয়ে তাঁদের আটক করা হয়। এদিকে ঘটনার দুদিন পরও এ ব্যাপারে থানায় মামলা হয়নি।

দাগনভূঞা থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ দুজনের আটকের সত্যতা স্বীকার করে জানান, এঁদের মধ্যে হিরু মাতুভূঞার জাফর আহমেদের ছেলে এবং বাহাদুর একই উপজেলার জায়লস্কর ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রামের আব্দুল মোমিনের ছেলে।

নিহতের ভাই ইতালি প্রবাসী নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘আমার ভাই ফখরুলকে স্থানীয় সওদাগর বাড়ির ছায়দুল হক পারভেজ ও তাঁর সহযোগী হিরু, বাহাদুর ও দিদার পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেছেন। এঁরা কয়েকদিন আগে ফখরুলের মোটরসাইকেল আটকে ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। শুক্রবার রাতে এরাই ফখরুলকে খবর দেয় এবং মোটরসাইকেল নিয়ে যেতে বলে। শনিবার সকালে তাঁর মরদেহ পাওয়া যায়।’ এদিকে অভিযুক্ত পারভেজের ভাই ও দাগনভূঞা পৌরসভার প্যানেল মেয়র সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘যে সময় ফখরুল নিখোঁজ হয়েছেন মর্মে বলা হচ্ছে, তখন পারভেজ তাঁর বন্ধু সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রবিন ও শাকিলকে নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিক্যালে ছিল।’ তবু সে ঘটনার সাথে ন্যূনতম জড়িত থাকলে যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে তারও বিচার হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সভাপতি দিদারুল কবির রতন বলেন, ‘এটা কোনো দলীয় কোন্দল নয়, ব্যক্তিগত বিরোধের ফল।’ তিনি ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবি করেন।

প্রসঙ্গত, দাগনভূঞা পৌর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল উদ্দিন চৌধুরীকে শুক্রবার রাতে কে বা কারা ডেকে নিয়ে হত্যা করে মরদেহ মাতুভূঞা বাজারের পাশে একটি ধানক্ষেতে ফেলে যায়। শনিবার সকালে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।



মন্তব্য