kalerkantho

সড়কে ঝরল চার প্রাণ

দ্বিতীয় রাজধানী ডেস্ক   

১ জানুয়ারি, ২০১৮ ০০:০০



চট্টগ্রাম মহানগর ও কক্সবাজারের চকরিয়ায় রবিবার পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চারজনের মৃত্যু হয়েছে। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধির পাঠানো খবর :

চট্টগ্রাম : নগরীর চান্দগাঁও এবং ইপিজেড থানা এলাকায় পৃথক দুর্ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার সকালে চান্দগাঁও থানার বহদ্দারহাট  ফ্লাইওভার হতে নামতে গিয়ে একটি অটোরিকশাকে চাপা দেয় পণ্যবাহী একটি ট্রাক। একইভাবে ইপিজেড থানার নেভি গেট বি ব্লক এলাকায় একটি পণ্যবাহী ট্রাক অন্য একটি অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে তিনজনের মৃত্যু হয়।

নিহতরা হলেন নগরীর হালিশহর ঈদগাও বড়পুকুর এলাকার শাহাব উদ্দিনের ছেলে মো. শরীফ (৩০), পতেঙ্গা থানার কাঠগড় এলাকার নূর মোহাম্মদের ছেলে মো. রফিক (৫০) ও জেলার পটিয়া থানার জঙ্গলখাইন ইউনিয়নের সৈয়দ আহমদের ছেলে ওমর ফারুক (২৫)।

দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা পুলিশ মেডিক্যাল টিম-১ এর সহকারী উপ-পরিদর্শক আলাউদ্দিন তালুকদার জানান, বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার থেকে নামতে গিয়ে এক কিলোমিটার এলাকায় একটি যাত্রীবাহী অটোরিকশাকে চাপা দেয় একটি ট্রাক। এতে শরীফ ও ওমর আহত হন। তাদের গুরুতর আহত অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অন্যদিকে ইপিজেড থানা এলাকায় একটি অটোরিকশাকে চাপা দেয় একটি ট্রাক। এই সময় মো. রফিক গুরুতর আহত হন। তাকেও উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

চকরিয়া : চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের চকরিয়ার খুটাখালী স্টেশনে শ্যামলী পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন ব্যবসায়ী। তিনি রবিবার খুটাখালী স্টেশন জামে মসজিদে ফজরের নামাজ শেষে সড়কের পাশ দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। ভোর ৬টার দিকে কক্সবাজারগামী দূরপাল্লার বাসটি পথচারী ওই ব্যবসায়ীকে ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান তিনি। তাঁর নাম নুরুল ইসলাম (৫৫)। তিনি খুটাখালী ইউনিয়নের নয়াপাড়ার মৃত মোজাহের আহমদের ছেলে। তিনি খুটাখালী বাজারের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী।

মহাসড়কের মালুমঘাট হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ ও সার্জেন্ট মো. রুহুল আমিন কালের কণ্ঠকে জানান, খুটাখালী বাজারের মসজিদে ফজরের নামাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন ব্যবসায়ী নুরুল ইসলাম। এ সময় ঢাকা ছেড়ে আসা কক্সবাজারগামী শ্যামলী পরিবহনের যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান তিনি।

ঘাতক বাস কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও এলাকা থেকে জব্দ করা হয়। তবে চালক-সহকারী পালিয়ে যাওয়ায় তাঁদের আটক করা যায়নি। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।



মন্তব্য