kalerkantho


সাতকানিয়ায় জয় বাংলা স্লোগান দিয়ে মিছিল গাড়ি ভাঙচুর

নারীসহ আহত ১১

সাতকানিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি   

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় জয়বাংলা স্লোগান দিয়ে ঝটিকা মিছিল করে যানবাহন ভাঙচুর ও সড়কের ওপর টায়ার পুড়িয়েছে মুখোশধারী একদল যুবক। এ সময় তারা পৃথক দুটি স্থানে যাত্রীবাহী বাস, ট্রাক, ট্যাক্সি ও কারসহ আটটি যানবাহন ভাঙচুর করেছে।

এতে নারীসহ ১১ জন আহত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাতে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সাতকানিয়ার কেরানীহাটে এ ঘটনা ঘটেছে।   

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল রাত ৮টার দিকে কেরানীহাট-বান্দরবান রাস্তার মাথায় মুখোশধারী এক দল যুবক ঝটিকা মিছিল বের করে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু/কেরানীহাটের মাটি, সোহেল ভাইয়ের ঘাঁটি’ বলে চার-পাঁচবার স্লোগান দেয়। এরপর তারা সড়কের ওপর টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে দেয় এবং চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে সাতকানিয়ার কেরানীহাট স্টেশনে দুটি এসি বাস, দুটি ট্যাক্সি ও একটি ট্রাকে ভাঙচুর চালায়। এর ১০ মিনিট পর চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের কেরানীহাটের উত্তর মাথায় শাহ আমাত হাসপাতালের সামনে একই স্লোগান দিয়ে ঝটিকা মিছিল বের করে একটি ট্রাক, একটি প্রাইভেট কার ও দুটি যাত্রীবাহী বাসে ভাঙচুর চালিয়ে পালিয়ে যায়। এ সময় তাদের ছোড়া ইট ও লাঠির আঘাতে মহিলাসহ ১১ জন আহত হয়। লোকজন দিগ্বিদিক ছোটাছুটি শুরু করে। মুহূর্তের মধ্যে কেরানীহাট স্টেশন যানবাহনশূন্য হয়ে পড়ে। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক ও কেরানীহাট-বান্দরবান সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে।

খবর পেয়ে সাতকানিয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে আগুন নেভায় এবং ধীরে ধীরে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

সাতকানিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক এস এম আজিজ বলেন, ‘গত ৯ নভেম্বর রাতে উপজেলার কেঁওচিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. শফিউল আলম সোহেলকে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তাঁকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে আজ শনিবার বিকেলে সাতকানিয়া পৌরসভার আলিয়া মাদরাসা এলাকায় ছাত্র সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। এই সমাবেশ সফল করার জন্য গতকাল রাতে আমরা সাতকানিয়ায় প্রস্তুতি সভা করছিলাম। কেরানীহাটে যারা মিছিল করেছে এবং সোহেলের নামে স্লোগান দিয়েছে তারা সোহেলের চিহ্নিত শত্রু। তারা মূলত সোহেল এবং তাঁর পক্ষের নেতাকর্মীদের ফাঁসানোর জন্য মিছিলের নামে সড়কে টায়ার জ্বালিয়েছে এবং যানবাহন ভাঙচুর করেছে। ’

সাতকানিয়া থানার ওসি রফিকুল হোসেন বলেন, ‘বুধবার রাতে আমরা কেরানীহাট থেকে ইয়াবাসহ শফিউল আলম সোহেল ও নবাব আলী নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করেছি। গতকাল রাত ৮টার দিকে হঠাৎ ৮-১০ জন মুখোশধারী যুবক কেরানীহাটে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে আগুন দেয় এবং কয়েকটি যানবাহনের কাচ ভাঙচুর করে। ঘটনায় যারাই জড়িত থাকুক না কেন তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’


মন্তব্য