kalerkantho


চট্টগ্রামে রাশেদ খান মেনন

বৈষম্য না কমলে উন্নয়নের সুফল জনগণ পাবে না

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেছেন, দেশে উন্নয়নও হচ্ছে, বৈষম্যও বাড়ছে। সবার বেতন বাড়ল, কিন্তু শ্রমিকের বেতন বাড়ল না।

মজুরি কমিশন এখনো হয়নি। যদি বৈষম্য না কমে, তাহলে এই উন্নয়নের সুফল জনগণ পাবে না।

গতকাল শুক্রবার বিকেলে নগরীর মুসলিম হলে অক্টোবর বিপ্লবের শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেনন এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশ ওয়ার্কার্স পার্টি চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে আয়োজিত সভায় রাশেদ খান মেনন আরো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়েছে। দেশে পদ্মা সেতু হচ্ছে, মেট্রো রেল হচ্ছে, পায়রা বিদ্যুেকন্দ্র হচ্ছে। চোখের সামনে পোস্টার, বিলবোর্ড দেখছি। পদ্মা সেতু দৃশ্যমান, মেট্রো রেল দৃশ্যমান। কিন্তু আমরা নিচের দিকে কী দেখছি? উন্নয়ন হচ্ছে আর বৈষম্য বাড়ছে। উন্নয়ন হচ্ছে আর গ্রাম ও শহরে জনসংখ্যা বাড়ছে।

সভায় বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. মঈনুল ইসলাম বলেন, ‘প্রায়োগিক সমাজতন্ত্রের সাময়িক পতন হতে পারে। কিন্তু সমাজতন্ত্রের দর্শনের পতন হতে পারে না। সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক সমাজে জনগণের খাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থান-শিক্ষা-চিকিৎসাসহ সব মৌলিক প্রয়োজন নিশ্চিত করেছিল। সেখানে কোনো বেকার যুবক ছিল না। পুঁজিবাদ কখনো বৈষম্য কমাতে পারে না। ’

মুখ্য আলোচক বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অনুপম সেন বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধ চলাকালে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে চারবার ভেটো দিয়ে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় বিশাল ভূমিকা রেখেছে সোভিয়েত ইউনিয়ন। আমেরিকা সপ্তম নৌবহর পাঠিয়েছিল। নিক্সন-কিসিঞ্জার প্রবলভাবে পাকিস্তানকে সমর্থন করার পরও বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। পুঁজিবাদ প্রতিষ্ঠা পেতে আট শ বছর লেগেছে। সমাজতন্ত্র একটুখানি ভেঙেছে মাত্র। আজকের বিশ্ব পুঁজিবাদী বিশ্ব। এই বিশ্ব কখনো টিকবে না। সেই বিশ্ব প্রতিষ্ঠিত হবে, যেখানে মানুষের প্রয়োজনকে বড় করে দেখা হবে।

ওয়ার্কার্স পার্টি চট্টগ্রাম জেলার সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু হানিফের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শরীফ চৌহানের সঞ্চালনায় সভায় উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহসভাপতি ডা. চন্দন দাশ, লেখক ও গবেষক শরীফ শমসীর প্রমুখ বক্তৃতা করেন।


মন্তব্য