kalerkantho


দুই দশকের ক্যারিয়ার

৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



দুই দশকের ক্যারিয়ার

যুক্তরাষ্ট্র থেকে সংগীতের ওপর কোর্স করছেন। একই সঙ্গে চলছে সংগীত পরিচালনার কাজও। গত অক্টোবরে পূর্ণ করেছেন সংগীত জীবনের ২০ বছর।

ইমন সাহাকে নিয়ে লিখেছেন আতিফ আতাউর, ছবি তুলেছেন সাইফুল রাজু

 

সদ্য মুক্তি পাওয়া ‘দহন’ ছবির ‘প্রেমের বাক্স’র সংগীত করেছেন ইমন সাহা। কণা ও ইমরানের গাওয়া গানটি এরই মধ্যে শ্রোতাপ্রিয়তা পেয়েছে। এই ছবির আবহসংগীতও করার কথা ছিল ইমন সাহার। চেয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরে কাজটা শেষ করবেন। কিন্তু বিমানে উঠেই শরীর বেঁকে বসে। অসুস্থ হয়ে পড়েন ইমন সাহা। ঝুঁকি নিতে চাননি ছবির প্রযোজক জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ। ভিন্নভাবে কাজ শেষ করেন। ইমন সাহা বলেন, ‘কয়েক বছর ধরেই জাজের ছবির গান ও আবহসংগীতের কাজ করছি। আমার কাজে তারা সন্তুষ্ট। চেষ্টার কোনো কমতি করি না। কিন্তু এবার পারিনি।’ শুধু কি ‘দহন’-এর কাজ করতেই দেশে ফিরেছেন? “আমি সংগীতের মানুষ। সংগীতই ধ্যানজ্ঞান। অনেক দিন দেশের বাইরে। হোমসিকনেস ছিল, পরিবারের প্রতি দায়িত্ববোধ আছে। তবে এবার এসেছি প্রধানত ‘দহন’-এর কাজ করার জন্য।”

অনেক দিন পর দেশে ফিরলেও বেশি দিন থাকতে পারবেন না। ডিসেম্বরের শেষেই আবার উড়াল দিতে হবে যুক্তরাষ্ট্রের উদ্দেশে। সেখানকার ফুল সেইল ইউনিভার্সিটিতে মিউজিক প্রডাকশনের ওপর ব্যাচেলর কোর্স করছেন ইমন সাহা। এর আগে ভারতের মাদ্রাজে এ আর রহমান প্রতিষ্ঠিত কে এম কলেজ অব মিউজিক অ্যান্ড টেকনোলজি থেকে ওয়েস্টার্ন ক্লাসিক্যাল মিউজিকের ওপর দুই বছরের কোর্স করেছেন। তার দুই বছরের মাথায় গেলেন যুক্তরাষ্ট্রে। কবে শেষ হবে এই পড়াশোনা? ‘আমার জীবনে কোনো দিন পড়াশোনা শেষ হবে না। শেষ হোক তা আমি চাইও না। এই কোর্সটা বছরখানেকের মধ্যে শেষ করতে পারব।’

ইমনের ছোটবেলাও কেটেছে যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানেই স্কুল-কলেজের গণ্ডি পেরিয়েছেন। সে কারণে পথঘাটের পাশাপাশি দেশটির অনেক কিছুই তাঁর নখদর্পণে। জানালেন, বেশ ভালো আছেন সেখানে। পড়াশোনার পাশাপাশি সময় কাটে গান আর আড্ডাবাজিতে। কয়েক দিন আগে দেশটির চলচ্চিত্রেও কাজ করার প্রস্তাব পেয়েছেন। সব কিছু ঠিক থাকলে হলিউডে অভিষেক হবে তাঁর। পুরোটা খোলাসা না করলেও ইঙ্গিত দিলেন, ‘বাংলাদেশের একজন পরিচালক কাজটি করছেন। তিনি আমেরিকায় বড় হয়েছেন। তাঁর সঙ্গে আমার কথা হচ্ছে। সব কিছু চূড়ান্ত হলে বিস্তারিত জানাব।’

ক্যারিয়ারের সেরা সময়ে এসেও কাজের দিকে মনোযোগ না দিয়ে পড়াশোনাতেই বেশি আগ্রহ দেখিয়েছেন। বলেন, ‘কাউকে কোনো প্রতিষ্ঠানে চাকরি করতে গেলে অনার্স-মাস্টার্স ডিগ্রিধারী হতে হয়। কিন্তু আমাদের একটা মাইন্ডসেট হচ্ছে চলচ্চিত্র কিংবা সংগীতে কোনো ডিগ্রির দরকার নেই। এটা সম্পূর্ণ ভুল। আমরা না জেনেই সব কিছু করছি। এখানে-সেখানে এর-ওর কাছে শিখে কাজে নেমে পড়ছি। এভাবে আর কোথাও চলে না। প্রতিনিয়ত বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলাতে সবাইকে প্রতিযোগিতায় নামতে হচ্ছে। সেখানে আন্তর্জাতিক মান ধরে রাখতে না পারলে আমি সম্পূর্ণভাবে পিছিয়ে যাব। দেশও পিছিয়ে যাবে। শিক্ষাটা এ জন্যই জরুরি।’

শিক্ষাটা যে ইমন সাহার কাজে দিচ্ছে তা বোঝা যাচ্ছে তাঁর কাজের তালিকা দেখেই। একের পর এক ছবিতে কাজ করছেন। চলতি বছর মুক্তি পাওয়া ‘ক্যাপ্টেন খান’, ‘জান্নাত’, ‘মনে রেখো’, ‘পবিত্র ভালোবাসা’, ‘পোড়ামন ২’, ‘নায়ক’, ‘দহন’ প্রভৃতি ছবিতে তাঁর সংগীত পরিচালনায় গান রয়েছে। কোনো কোনোটির করেছেন আবহসংগীতও। এর মধ্যে ‘পোড়ামন’-এর ‘ওহে শ্যাম’, ‘জান্নাত’-এর ‘তুমি জান্নাত পৃথিবীতে’ গান দুটিও এখন শ্রোতাদের পছন্দের তালিকায়। সম্প্রতি কাজ করছেন গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘সাপলুডু’, দেবাশীষ বিশ্বাসের ‘শ্বশুরবাড়ী জিন্দাবাদ ২’, ওয়াহিদুজ্জামান ডায়মন্ডের ‘রোহিঙ্গা’সহ কয়েকটি নতুন ছবিতে। বিদেশে থেকেও কিভাবে দেশের চলচ্চিত্রের কাজ করেন? ‘আমি দেশে থাকি বা যুক্তরাষ্ট্রে থাকি সেটা কোনো বিষয় নয়। প্রথম সিটিংয়ের পর সে মোতাবেক ডিজাইন করি। এরপর সেগুলো কলকাতা, মুম্বাই পাঠিয়ে দিই। তারা আমার ডিজাইনমতো কাজ করে পাঠিয়ে দেয়। বিশ্বব্যাপী এভাবেই কাজ হচ্ছে এখন।’

গত অক্টোবরে সংগীত ক্যারিয়ারের ২০ বছর পূর্ণ করেছেন। অনুভূতি জানতে চাইলে বলেন, ‘এতগুলো বছর সংগীতের সঙ্গে কাটাতে পেরে আমি অনেক আনন্দিত। এই সময়টাতে বিভিন্নভাবে যাঁরা আমার পাশে থেকেছেন, ভালোবাসা দেখিয়েছেন সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। যদি সুস্থ থাকতে পারি আগামী দিনগুলোতে আরো ভালো ভালো কাজ উপহার দিতে চাই।’ এরই মধ্যে ছয়টি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ঘরে তুলেছেন। এটাকে নিজের কাজের অনুপ্রেরণা হিসেবে দেখেন তিনি, ‘পুরস্কার পাওয়ার পর কাজের প্রতি দায়িত্ববোধ আরো বেড়ে যায়। আমি প্রতিনিয়তই চেষ্টা করছি নতুন কিছু, সুন্দর কিছু শ্রোতাদের মাঝে উপস্থাপন করার জন্য।’

 



মন্তব্য