kalerkantho


নায়িকার প্রশ্ন ,নায়িকার উত্তর

দুজনই ঈদের ছবির নায়িকা। ববি আসছেন ‘বেপরোয়া’ নিয়ে, মাহিয়া মাহি আসছেন ‘জান্নাত’ ও ‘মনে রেখ’ নিয়ে। দুই প্রতিযোগী নায়িকা একে অপরকে করেছেন তিনটি প্রশ্ন, উত্তর দিয়েছেন অপরজন। শুনেছেন মীর রাকিব হাসান

১৬ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০



নায়িকার প্রশ্ন ,নায়িকার উত্তর

ববির প্রশ্ন

মাহির উত্তর

 

১. মাহির তো অনেক গুণ। সংসার ও ক্যারিয়ার একই সঙ্গে এত সুন্দর করে চালাচ্ছ কিভাবে?

—আমি মোটেও অত গুণী নই। আমার চেয়ে আপনি বরং অনেক বেশি গুণী।

আমার জামাই (অপু) খুব ভালো (হাসি)। ক্যারিয়ার ও সংসার একই সঙ্গে সামলানোর পেছনে ওর কৃতিত্ব তো আছেই। ওর সঙ্গে সম্পর্কটা বন্ধুর মতো। আমি এটা করব কিন্তু তুমি কিছু বলতে পারবে না—আমি ওকে এমন কোনো শর্ত দিইনি। ওকে বুঝিয়েছি, অভিনয় আমার কাজ। আর এগুলো জেনে ও মেনেই ও আমাকে বিয়ে করেছে। অনেক সময় ও আমার সঙ্গে শুটিংয়ে যায়। আমি কতটা ভালো বউ হতে পেরেছি জানি না। তবে প্রতিটি মেয়ের ক্যারিয়ারের পাশাপাশি ভালো বউ হওয়াও জরুরি। সংসার ও ক্যারিয়ার একই সঙ্গে চালানো কষ্টকর, তবে অসম্ভব নয়।

 

২. জাজ মাল্টিমিডিয়া থেকে বের হলে অনেকে বলছে ‘মাহি শেষ’। বিয়ের পরও অনেকে বলছে ‘মাহি শেষ’। কয়েক দিন বিরতি নিলেও একই কথা শুনতে হয় তোমাকে। নানা সময়ে এমন সমস্যা ও মানুষের কথা কিভাবে ফেইস করো? এত আলোচনা-সমালোচনা উপেক্ষা করে তুমি ভালো থাকোই বা কী করে? 

—জীবনটাকে সহজ ও সুন্দর করে দেখি। চলার পথে সমস্যা আসবেই। কিন্তু আমি হাইপার হই না। পরিবারও সব সময় আমাকে সাপোর্ট দেয়। কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও ঘটেছে। সময়ের ব্যবধানে সেসব ভুলেও যাই। জাজ থেকে বের হলে শেষ হয়ে যাব—এমন আশঙ্কা অনেকেই করেছেন। এখন কতটা ভালো বা খারাপ করছি সেটাও জানি না। আগেও অনেকে বিভিন্ন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের বা পরিচালকের হাত ধরে চলচ্চিত্রে এসেছেন। একটা সময় তাঁদেরও দলছুট হতে হয়েছে। আমি মনে করি, জাজ বরাবরই আমার শুভাকাঙ্ক্ষী। আর মানুষের সমালোচনা আমি হাসিমুখে ফেইস করতেই ভালোবাসি। কখনো মনে হয় না, আজ আচ্ছা করে       বকে দেব।

 

৩. তোমাকে সব সময় হাসিখুশি দেখা যায়। এমনই কি তোমার ভিতর-বাহির?

—অভিনয়টা শুধু ক্যামেরার সামনেই করতে পারি আমি। হা হা হা।

 

 

মাহির প্রশ্ন

ববির উত্তর

১. কিভাবে এতটা ফিট থাকেন? আমার তো প্রচুর খেতে ইচ্ছা করে। জিমও নিয়মিত করতে পারি না। ফলে শরীরের গড়নও ঠিক রাখতে পারি না।

—কাজের প্রতি শতভাগ নিবেদন থাকে আমার। নিজে যদি ফিট না থাকি তাহলে পরিচালকরা তো ছবিতে নেবে না। সব নায়িকাকে অবশ্যই ফিট থাকতে হয়। তার মানে আমি নিয়মিত জিম করি বা অনেক বেছে খাবার খাই, তা-ও না। আমার মা-বাবাসহ পরিবারের সবাই স্লিম। জিনগত কারণে আমিও স্লিম। তবে কিছু রিচ ফুড তো পরিহার করতেই হয়।

 

২. বিভিন্ন এক্সপ্রেশন দেওয়ার সময় বা পরিস্থিতিতে আমাদের একটু ঝুঁকতে হয়। কিন্তু কথা বলার সময় আপনাকে কখনো কুঁজো হতে দেখিনি। এটা কিভাবে সম্ভব?

—ও মা! মাহির এত খেয়াল আমার প্রতি! ও একটা ভালোবাসা। এটা আসলে অভ্যাস হয়ে গেছে। বরং কুঁজো হয়ে ঠিকমতো কথাই বলতে পারি না।

 

৩. আপনি বেশ ঠোঁটকাটা। সব সময় এভাবে মুখের ওপর কথা বলে দেন কিভাবে?

—আমি কখনোই ভণিতা পছন্দ করি না। যেটা জিজ্ঞেস করা হয়, সেটার উত্তরই দিই। বাড়তি কথা বলতেও পছন্দ করি না। এ কারণে অনেকে হয়তো ভুল বোঝে, অহংকারী ভাবে। কিন্তু আমি আমার মতো চলতেই পছন্দ করি। কে কী ভাবল সেটা ভাবি না। আমার আশপাশের মানুষ এভাবেই অভ্যস্ত হয়ে গেছে। ছোটবেলা থেকেই আমি এমন।

 



মন্তব্য