kalerkantho


অল্প অল্প প্রেমের গল্প

কাল মুক্তি পাচ্ছে \'অল্প অল্প প্রেমের গল্প\'। দীর্ঘদিনের মান-অভিমান ভেঙে ছবির প্রচারণায় আবার এক হয়েছেন নিলয় ও শখ। কখনো ফটোশুট, কখনো বা সাক্ষাৎকার। ছবিটি নিয়ে দুজনই দারুণ আশাবাদী। তাঁদের সঙ্গে কথা বলেছেন সুদীপ কুমার দীপ, ছবি তুলেছেন সুমন ইসলাম আকাশ   

২৮ আগস্ট, ২০১৪ ০০:০০



অল্প অল্প প্রেমের গল্প

গল্পটা বেশ রঙিনই ছিল। অল্প অল্প করে তৈরি হয়েছিল প্লট। কিন্তু হঠাৎ করে কোথা থেকে কী হয়ে গেল। রীতিমতো আনুষ্ঠানিকভাবে ব্রেকআপ! নিলয়ের এখন আর 'শখ' নেই। ভালো লাগে না প্রেমসংক্রান্ত ঝামেলা। মান-অভিমানও বন্ধ। দেখা হওয়া, কথা বলাও বন্ধ ছিল। এখন আবার মাঝেমধ্যে দেখা হচ্ছে। কালেভদ্রে ফোনে কথাও হচ্ছে। আজ তেমনই একটি দিন। 'অল্প অল্প প্রেমের গল্প' মুক্তি পাচ্ছে। তাই ছবিটির প্রচারণায় নেমেছেন তাঁরা। গুলশানের একটি লোকেশনে ফটোশুট করছেন। দুজনই বেশ হাসিখুশি। ফটোশুট শেষে শুরু হলো গল্প। নিলয় কথা পাড়লেন, 'নিজের ছবি সবাই ভালো বলবেন এটাই স্বাভাবিক। আমিও এর বাইরে নই। তবে ভালোর সংজ্ঞাটা আমি একটু অন্যভাবে দিতে চাই। এই ছবিটা বাণিজ্যিক হলেও সুন্দর একটি গল্প আছে। গান এবং লোকেশনেও চমক আছে। পরিচালক সানিয়াত হোসেন ভাই যতটা যত্ন করে বিজ্ঞাপন বানান ঠিক ততটাই যত্ন নিয়ে ছবিটি বানিয়েছেন। প্রতিটি ফ্রেম, ক্যামেরা কম্পোজিশন চোখে লাগার মতো। আশা করছি ছবিটি দেখে দর্শকদের মনের চাহিদা মিটবে। টিকিটের টাকাটা জলে যাবে না।' নিলয়ের কথা মনোযোগসহকারে শুনছিলেন শখ। নিলয়ের কথা শেষ হলে শুরু করলেন তিনি, 'আমি বরাবরই চলচ্চিত্র থেকে দূরে থাকতাম। অনেক ছবির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছি। শিডিউল নেই, গল্প ভালো না, চরিত্র পছন্দ হয়নি বলে এড়িয়ে গেছি। কিন্তু সানিয়াত ভাই যখন প্রস্তাব দিলেন সহজেই হ্যাঁ বলে দিয়েছি। আমার বিশ্বাস ছিল তাঁর ওপর। জানতাম তিনি ছবি নির্মাণ করলে অবশ্যই ভালো হবে। কিছুদিন আগে যখন ছবিটি দেখলাম, মনটা ভরে গেল।'

নিলয়ের হাতে এখন অনেক ছবি। মৌসুমীর সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন। কথা চলছে মালেক আফসারী, জাকির হোসেন রাজু, বদিউল আলম খোকনের মতো পরিচালকদের সঙ্গে। বলা যায় ভালোভাবেই ফিরছেন তিনি। কিন্তু শখ? সেই একই জায়গায় আছেন। 'অল্প অল্প প্রেমের গল্প'র পরও বড় বড় সব পরিচালককে ফিরিয়ে দিয়েছেন। মনের মতো গল্প, পরিচালক, বাজেট না মিললে কোনোভাবেই ছবি করতে চান না। বলেন, 'শুধু শুধু ছবির সংখ্যা বাড়িয়ে নিজের ইমেজ হালকা করার কোনো যুক্তি দেখি না। নিজেকে চেনানোর জন্য বছরে একটি ছবিই যথেষ্ট। আমি সব সময় মানে বিশ্বাস করি। সংখ্যায় না।' শখের কথার সঙ্গে একমত নিলয়ও। তিনি বলেন, 'প্রতিনিয়তই কোনো না কোনো পরিচালক গল্প শোনান, অভিনয় করার প্রস্তাব দেন। কিন্তু সহশিল্পী কিংবা ছবির বাজেট পছন্দ হয় না। এখন কি ৫০ লাখ টাকা দিয়ে ছবি বানালে চলবে! সেই একই গল্প। শুরুতে নায়কের বাবাকে মেরে দাও, পরে নায়ক প্রতিশোধ নেবে টাইপের গল্পের দিন এখন শেষ। তা ছাড়া এফডিসির কড়ইতলা কিংবা শুটিং ফ্লোরগুলো থেকেও আমাদের বের হতে হবে। এখন সময় এসেছে বদলে যাওয়ার। আমাদের ছবিরই তো কালার কারেকশন, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক, স্পেশাল ইফেক্টগুলো আজকাল ভারত থেকে করা হচ্ছে। শুটিংয়ের জন্য যাওয়া হচ্ছে ইংল্যান্ড পর্যন্ত। তাহলে কেউ কেউ কেন বদলাতে চান না!' তখনই ফোন বেজে উঠল শখের। এখন উঠতে হবে। যেতে হবে চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেওয়ার জন্য। নিলয়ও যাবেন তাঁর সঙ্গে। দুজন-দুজনের দিকে তাকিয়ে মুচকি হাসলেন। বললেন, 'চলো'। উঠে গেলেন তাঁরা। রয়ে গেল শুধু 'অল্প অল্প প্রেমের গল্প'।

 

 



মন্তব্য