kalerkantho


সাক্ষাৎকার

‘আয়ু কমে যাচ্ছে’

উপমহাদেশের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী রুনা লায়লার জন্মদিন আজ। ১৯৫২ সালের ১৭ নভেম্বর সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন রবিউল ইসলাম জীবন

১৭ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



‘আয়ু কমে যাচ্ছে’

শুভ জন্মদিন।

ধন্যবাদ।

 

জীবনের আরেকটি বছরে পদার্পণ করলেন। কেমন লাগছে?

ভালোই লাগছে। আয়ু কমে যাচ্ছে। বয়স বাড়ছে। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন, যেন সুস্থ থাকতে পারি, আরো অনেক দিন ভালোভাবে গাইতে পারি।

 

আজকের দিনটি কাটাবেন কিভাবে?

বিশেষ কোনো পরিকল্পনা নেই। বাড়িতেই থাকব। নিকটাত্মীয়, পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাব।

 

মা-বাবার কথা নিশ্চয়ই খুব মনে পড়ছে?

খুব।

বড় বোনকেও মিস করি। তাঁরা থাকলে হয়তো আরো ভালো সময় কাটত। আনন্দে কাটত। এই একটা দুঃখ মনে।

 

কারো কাছ থেকে বিশেষ কোনো উপহার...

জন্মদিনের আগের দিন থেকে সবাই ফোনে, মেসেজে, ফেসবুকে বিভিন্নভাবে শুভেচ্ছা জানায়। ভালোবাসা পাঠায়। সবই আমার কাছে বিশেষ উপহার।

 

রাত ১২টায় একটি টিভি অনুষ্ঠানে গায়িকা লুইপা আপনারই গাওয়া ‘আয়রে মেঘ আয়রে’ এবং ‘কার তরে নিশি জাগো’ গেয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। নবীনদের এই প্রচেষ্টাকে কিভাবে দেখেন?

আমার গান গেয়ে শ্রদ্ধা জানাচ্ছে, গানগুলো বাঁচিয়ে রাখছে, এটা তো আনন্দের।

 

অনেক দিন হলো অডিওতে আপনার নতুন গান নেই।

এখন তো সিডি হয় না। একটা করে গান প্রকাশের কোনো যুক্তি দেখি না। আগে অন্তত ৮-১০টি গান দিয়ে আমরা অ্যালবাম করতাম। ফলে একটা সিডিতে অনেক ধরনের গান হতো। এখন ওই একটা গান করে ইউটিউবে দেওয়া—জানি না, কখনো করিনি। হয়তো এটাই এখন নিয়ম।

 

সর্বশেষ প্লেব্যাক করেছেন কবে?

কয়েক মাস আগে। গানটি ছিল আমার একক কণ্ঠের।

 

আমেরিকা থেকে শো করে এসেছেন কয়েক দিন আগে। দেশের বাইরে গাইতে কেমন লাগে?

আরেক দেশে গিয়ে নিজ দেশের গান গাইতে পারা যেকোনো শিল্পীর জন্য গর্বের। এবার আমেরিকায় গিয়েছিলাম ৬ অক্টোবর। এসেছি ২৮ অক্টোবর। সেখানকার তিনটি অনুষ্ঠানে গেয়েছি। প্রতিটি শোই শ্রোতারা এনজয় করেছে। এখন ভারতে যাওয়ার কথা হচ্ছে। জানুয়ারিতে শোটি হতে পারে।


মন্তব্য