kalerkantho


বর্তমান প্রজন্ম লোকগান ভালোবাসে

১১ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০



বর্তমান প্রজন্ম লোকগান ভালোবাসে

আর্মি স্টেডিয়ামে চলছে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক লোকসংগীত উৎসব ২০১৭’। আজ উৎসবের শেষ দিনে বিদেশি শিল্পীদের পাশাপাশি  গাইবেন শাহনাজ বেলী।

তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন সুদীপ কুমার দীপ

 

মঞ্চে উঠবেন কখন?

সন্ধ্যা ৭টায়।

 

কোন কোন গান পরিবেশন করবেন?

আমি বিভিন্ন ধারার গান করি। তবে লালনের গান দিয়েই ক্যারিয়ার শুরু। আজ তাঁর গান দিয়ে শুরু করতে চাই। এরপর একে একে হাসন রাজা, শাহ আব্দুল করিম, আবুল সরকার, মাইজভাণ্ডারী পরিবেশন করব। জানি না কতটা সময় পাব। যদি সময় পাই তাহলে নিজের কিছু গানও গাইব।

 

এবারের ফোক ফেস্ট কেমন জমেছে বলে মনে করছেন?

বেশ জমজমাট। প্রথম দিনেই হাজারো শ্রোতায় গ্যালারি ভরে গিয়েছে।

তারা যেমন আমাদের শিকড়ের গান উপভোগ করেছে তেমনি বিদেশিদের গানও মন দিয়ে শুনেছে। এই উৎসব নিয়মিত হলে মাটির গানের শ্রোতা আরো বাড়বে। শিল্পীরাও আগ্রহী হবেন।

 

আপনি তো দেশের বাইরেও প্রচুর শো করেন। সেখানে আমাদের লোকগানের গ্রহণযোগ্যতা কেমন?

প্রবাসী বাঙালিরা অধীর আগ্রহে বসে থাকে ফোক গানের জন্য। বিদেশিরাও আমাদের লোকগান মনোযোগ দিয়ে শোনে। ভাষা না বুঝলেও সুরে মুগ্ধ হয় তারা।

 

১৫০টিরও বেশি অ্যালবামে কণ্ঠ দিয়েছেন। নতুন কী আসছে?

এখন অ্যালবাম করতে হয় নিজের টাকা খরচ করে। তার ওপর আবার মিউজিক ভিডিও করে ইউটিউব চ্যানেলে দিয়ে বুস্টও করতে হয়। এগুলো আমার সঙ্গে যায় না। আমরা মাটির গান করি। শিকড়কে ভালোবেসে শিল্পী হয়েছি। বাণিজ্য করতে চাই না। তবু ভক্তরা নতুন গানের জন্য অনুরোধ করে। সে কারণেই ভাবছি, শিগগির নতুন অ্যালবাম করব।

 

তরুণ প্রজন্মের কাছে লোকগানের চাহিদা কেমন লক্ষ করছেন?

মাঝখানে একটা প্রজন্ম গেছে যারা পপসংগীতে বেশি আগ্রহী ছিল। বর্তমান প্রজন্ম লোকগান ভালোবাসে। লক্ষ্য করলে দেখবেন, অন্য যেকোনো কনসার্টের চেয়ে ফোক ফেস্টের দর্শক বেশি। লোকগানকে যে এই প্রজন্ম অন্য রকমভাবে নিচ্ছে তার বড় প্রমাণ এটিই।


মন্তব্য