kalerkantho


৫৯তম গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডস

অ্যাডেল ৫, বিয়ন্সে ২

লতিফুল হক   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



অ্যাডেল ৫, বিয়ন্সে ২

অ্যাডেল

অন্য উচ্চতায় অ্যাডেল

 

ঠিক যেন ফিরে এলো ২০১২। পাঁচ বছর আগে দ্বিতীয় অ্যালবাম ‘২১’ দিয়ে বাজিমাত করেছিলেন।

এবারও মাতালেন তৃতীয়টি ‘২৫’ দিয়ে। গ্র্যামির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তিন পুরস্কার—‘রেকর্ড অব দ্য ইয়ার’, ‘সং অব দ্য ইয়ার’, ‘অ্যালবাম অব দ্য ইয়ার’সহ পাঁচটি পুরস্কার জিতলেন এই ব্রিটিশ শিল্পী। এ ছাড়া ‘বেস্ট পপ অ্যালবাম’ ও ‘বেস্ট পপ সলো পারফরম্যান্স’ পুরস্কারও গেছে ২৮ বছর বয়সী গায়িকার ঘরে। গ্র্যামিতে সবচেয়ে বেশি মনোনয়ন পেয়েছিলেন বিয়ন্সে। অথচ অ্যাডেলের কাছে কোনো পাত্তাই পেলেন না। কিন্তু প্রতিক্রিয়ায় পুরস্কার বিয়ন্সেকে উৎসর্গ করে সবার মনও জেতেন অ্যাডেল, ‘এটা আমার আদর্শ রানি বিয়ন্সের জন্য, যাঁকে অসম্ভব শ্রদ্ধা করি। আপনি প্রতিদিনই আমার হৃদয় নাড়িয়ে দেন। ’

 

 

বিয়ন্সে জাদু

যমজ সন্তানের মা হতে যাচ্ছেন—এ ঘোষণার পর প্রথম বিয়ন্সেকে দেখার জন্য মুখিয়ে ছিল গ্র্যামির মঞ্চ। বিয়ন্সে জিতেছেন দুই পুরস্কার—‘লোমোনেড’-এর জন্য ‘বেস্ট আরবান অ্যালবাম কনটেম্পোরারি অ্যালবাম’ এবং ‘ফরমেশন’ হয়েছে ‘বেস্ট মিউজিক ভিডিও’।

তবে বিয়ন্সের জাদু তখনো বাকি। খানিক বাদে রানির সাজে যখন তিনি মঞ্চে উঠলেন তখন পুরো মিলনায়তন মুগ্ধ। ১২ সঙ্গীকে নিয়ে বিয়ন্সের দীর্ঘ পারফরম্যান্স যেন হয়ে ওঠে নারী অধিকারের প্রতীক। দুটি নতুন গান করেন শিল্পী, তবে সেটাকেও ছাড়িয়ে যায় বক্তব্য। বিয়ন্সে বলেন, ‘আমাদের সন্তানদের কাছে এমন ইমেজ তৈরি করতে চাই, যা তাদের সৌন্দর্যকেই প্রতিফলিত করে। এটা যেন একটা আয়না হয়। যেন তাঁরা যা সেটাই দেখে সারা দুনিয়ায়, খবরে, সুপার বৌলে, অলিম্পিকসে, হোয়াইট হাউসে, গ্র্যামিতেও। ’

 

চান্স দ্য র‍্যাপার

হঠাৎই আলোচনায় চ্যান্স দ্য র‍্যাপার। ২৩ বছর বয়সী মার্কিন এই হিপহপ শিল্পী জিতেছেন তিন তিনটি গ্রামি। এর মধ্যে আছে ‘বেস্ট নিউ আর্টিস্ট’, ‘বেস্ট র‍্যাপ পারফরম্যান্স’ ও ‘বেস্ট র‍্যাপ অ্যালবাম’। এসেই জয় করা এই শিল্পী প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আমি ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিতে চাই আমার মা-বাবাকে দেওয়ার জন্য, যাঁরা খুব ছোট থেকেই আমাকে সমর্থন করেছেন। আমি ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিতে চাই আমার চারপাশে অসাধারণ মানুষদের উপহার দেওয়ার জন্য। ’

 

না থেকেও ছিলেন তাঁরা

প্রিন্স, ডেভিড বোওয়ি আর জর্জ মাইকেল—প্রয়াত তিন শিল্পীকে শ্রদ্ধা জানানো হয় গ্র্যামির মঞ্চে। ব্রিটিশ গায়ক জর্জ মাইকেলকে ‘ফাস্ট লাভ’ গেয়ে শ্রদ্ধা জানান স্বদেশি অ্যাডেল। গাইতে গাইতে শেষ দিকে অ্যাডেলের চোখ বেয়ে অনবরত জলের ধারা বইছিল। যদিও শুরুতে ভুল সুরে গেয়ে ব্রিবত হন অ্যাডেল। প্রিন্সকে শ্রদ্ধা জানাতে যেন ‘প্রিন্স’ হয়ে উঠেছিলেন ব্রুনো মার্স। সেই পার্পল জ্যাকেট, হাতে গিটার হাতে যখন মার্স ‘লেট’স গো ক্রেজি’ গাইছিলেন তখন তাঁকে ঠিক প্রিন্সই মনে হচ্ছিল।

শ্রদ্ধার সঙ্গে পুরস্কারও জিতেছেন ডেভিড বোওয়ি। গেল বছর তাঁর মৃত্যুর মাত্র দুই দিন আগে প্রকাশ পায় অ্যালবাম ‘ব্ল্যাকস্টার’। যার জন্য ‘বেস্ট অলটারনেটিভ অ্যালবাম’ সম্মান পান বোওয়ি। যদিও দীর্ঘ ক্যারিয়ারে জীবনদশায় মাত্র একটি গ্র্যামি জিতেছিলেন তিনি। মানের চেয়ে শ্রদ্ধাই এ পুরস্কারে বড় হয়ে এসেছে কি না সেটা নিয়েও কথা উঠেছে।

 

কর্ডনের প্রথম

রবিবার লস অ্যাঞ্জেলেসের স্টেপলেস সেন্টারে উপস্থাপকের ভূমিকায় ছিলেন জেমস কর্ডন। ‘সিবিসি’ চ্যানেলের টক শো ‘লেট লেট শো’র এ উপস্থাপক এবারই প্রথম গ্র্যামি উপস্থাপনায়। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিদ্রূপ করে কর্ডনের পারফরম্যান্স উপস্থিত দর্শকদের হাততালি পায়।

 

ফ্লপ গাগা

কিছুদিন আগেই সুপার বৌলে লেডি গাগার পারফরম্যান্স ভক্তদের মাতোয়ারা করেছিল। সাধারণ দর্শক থেকে শিল্পী—অনেকেই গাগার পারফরম্যান্সের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ছিলেন। কিন্তু দিন দশেক পার না হতেই মুদ্রার উল্টো পিঠও দেখলেন শিল্পী। যদিও গ্র্যামিতে মেটালিকার সঙ্গে তাঁর পারফরম্যান্স নিয়ে অনেক আলোচনা ছিল। কিন্তু ‘মথ ইনটু ফ্লেম’ দিয়ে যৌথ পারফরম্যান্সে উদ্দাম নৃত্য ছাড়া তেমন কিছুই ছিল না।   কেটি পেরির পারফরম্যান্স বরং প্রশংসা কুড়ায়। এ ছাড়া গ্র্যামির মঞ্চে পারফর্ম করেন ডেমি লোভাটো, টোরি কেলি, এড শিরান, ক্যারি আন্ডারউড, দ্য উইকেন্ড প্রমুখ।


মন্তব্য