kalerkantho


সাক্ষাৎকার

গৌতম ঘোষ ও প্রসেনজিতের সঙ্গে কাজ করতে পারাটা অর্জন

৩০ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গৌতম ঘোষ ও প্রসেনজিতের সঙ্গে কাজ করতে পারাটা অর্জন

সম্প্রতি ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সেরা বাংলা ছবি হয়েছে গৌতম ঘোষের ‘শঙ্খচিল’। এতে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের কুসুম শিকদার। তাঁর সঙ্গে কথা বলেছেন সুদীপ কুমার দীপ

মুক্তির আগেই এত বড় সাফল্য পেল ‘শঙ্খচিল’। কেমন লাগছে?

ভারতে সাধারণত সেন্সর হয়ে গেলেই যেকোনো প্রতিযোগিতায় ছবি অংশ নিতে পারে।

গত বছরের ডিসেম্বরে সেন্সর হয় ‘শঙ্খচিল’ ছবির। ফলে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে। শুরুতে গৌতম ঘোষের মতো পরিচালক এবং প্রসেনজিতের মতো অভিনেতার সঙ্গে কাজ করতে পেরেছি, এটা অনেক বড় অর্জন। আর ২৮ মার্চ যখন শুনলাম সেরা বাংলা ছবি হিসেবে পুরস্কার পাচ্ছে—এটা আমার কাছে বিরাট প্রাপ্তি মনে হয়েছে।

 

ছবিটির প্রেক্ষাপট কী নিয়ে?

মূলত দেশভাগ নিয়ে ছবির গল্প। তবে এর পাশাপাশি দেখানো হয়েছে মধ্যবিত্ত একটি পরিবারের সহজ-সরল জীবন। একজন গৃহবধূর সাংসারিক টানাপড়েন।

আপনার চরিত্রটি সম্পর্কে বলুন।

আমার চরিত্রটির নাম লায়লা।

স্বামী ও এক সন্তান নিয়ে আমার সংসার। দেশভাগের পর আমার সংসারে নেমে আসে নানা জটিলতা। তখন আমার মধ্যেও পরিবর্তন আসে, বদলে যেতে থাকে স্বাভাবিক জীবন।

ছবির শুটিং হয়েছে সাতক্ষীরার প্রত্যন্ত অঞ্চলে। শুটিংয়ের অভিজ্ঞতা কেমন?

আমার দাদার বাড়ি যশোরে। ফলে ওই এলাকার মানুষের চলাফেরা সম্পর্কে আগে থেকেই কিছুটা জানা ছিল। তবে শুটিংয়ের সময় গিয়ে বিস্তারিত জেনেছি। ওখানকার মানুষ খুব সাধারণ। অল্পতে খুশি থাকে। তা ছাড়া শুটিং ইউনিটের জন্য তারা ছিল নিবেদিতপ্রাণ।

প্রথমবার গৌতম ঘোষের সঙ্গে কাজ করলেন। তাঁর সম্পর্কে বলুন।

গৌতম ঘোষ অনেক বড় মাপের পরিচালক। তিনি খুব পরিশ্রমী। তাঁর চরিত্রের প্রধান বৈশিষ্ট্য হলো তিনি বিনয়ী। এত পরিশ্রম করেন কিন্তু ইউনিটে কখনো রাগতে দেখিনি। কটু কথাও বলতে শুনিনি। এত বড় ইউনিট মেইনটেইন করে কিভাবে মেজাজ ভালো রাখেন, ভাবতেই অবাক লাগে।

ছবিটি একই দিনে কলকাতা ও বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে। দুই দেশের প্রচারণা নিয়ে কী পরিকল্পনা করছেন?

কলকাতায় ছবির প্রচারণা চলছে ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে। এই দিন নন্দনের একটি অনুষ্ঠানে ছবির প্রথম লুক প্রকাশ করা হয়। এরপর ১২ মার্চ মোহর কুঞ্জে ছবির অডিও প্রকাশ করা হয়। দুই দিনই আমি উপস্থিত ছিলাম। সেখানে সাতটি রেডিও, চারটি টিভি চ্যানেল ও অসংখ্য পত্রপত্রিকায় সাক্ষাৎকার দিয়েছি। এখন বাংলাদেশের পালা। ১২ এপ্রিল প্রিমিয়ার অনুষ্ঠান হওয়ার কথা এখানে। তা ছাড়া টিভি, রেডিও ও পত্রিকা তো আছেই।


মন্তব্য