kalerkantho


প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণার পরও টনক নড়েনি

কাগজে-কলমে থাকলেও বাস্তবে নেই ছয়টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র

শাহজাদপুর

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০



সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে কাগজে-কলমে ছয়টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র থাকলেও বাস্তবে কেন্দ্রগুলোর কোনো অস্তিত্বই নেই। এ অবস্থায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে ইউনিয়নগুলোর লোকজন। বাধ্য হয়ে অনেকেই হাতুড়ে চিকিৎসকদের কাছে যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, গ্রামের লোকজনের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে ইউনিয়ন পর্যায়ে উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রতিটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের দূরত্ব ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় কাগজে-কলমে ১৪টি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র থাকলেও বাস্তবে রুপবাটি, গাড়াদহ, জালালপুর, কায়েমপুর, হাবিবুল্লাহনগর ও পোতাজিয়া উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের কোনো ভবনই নির্মাণ করা হয়নি। তবে পোতাজিয়া ইউনিয়ন পরিষদের পাশেই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থাকায় এ ইউনিয়নের লোকজন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা নিতে পারছে। প্রতিটি উপস্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে এমবিবিএস চিকিৎসকদের মাধ্যমে রোগীদের সেবা দেওয়ার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। চিকিৎসক সংকটে বৃহাতকড়া, কৈজুরী, পুঠিয়া, নরিনা উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলো থেকে কোনো সেবা পাচ্ছে না রোগীরা। 

অন্যদিকে অবকাঠামো না থাকায় রুপবাটি, গাড়াদহ, জালালপুর, কায়েমপুর, হাবিবুল্লাহনগর ও পোতাজিয়া উপস্বাস্থ্য কেন্দ্রের চিকিৎসকরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অলস সময় পার করছেন বলে অভিযোগ। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার দাবি, তাঁরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী দেখছেন।  

এ ব্যাপারে রুপবাটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম শিকদার জানান, তাঁর ইউনিয়নে প্রায় এক লাখ মানুষের বাস। বড়াল, হুড়াসাগর ও করতোয়া—এই তিনটি নদী পাড়ি দিয়ে ইউনিয়নবাসীকে চিকিৎসাসেবা নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেতে হয়।

অন্যদিকে জালালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদের অভিযোগ, সরকারি খাসজমি থাকার পরও বিষয়টি নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা কোনো ব্যবস্থা নেননি।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জুবায়দা মেহের নাজ বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রতি মাসে রিপোর্ট করলেও অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি।’ তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. নাজমুল হুসেইন খান জানান, সমস্যাগুলো দূর করতে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।



মন্তব্য