kalerkantho


গাজীপুরে বিএনপির মানববন্ধন

পুলিশের হঠাৎ ফাঁকা গুলি লাঠিপেটা আটক ৯

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০



গাজীপুরে গতকাল সোমবার সকালে বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিপেটায় ও হুড়াহুড়িতে পড়ে গিয়ে ১১ নেতাকর্মী আহত হয়েছে। এ সময় পুলিশ শটগানের ফাঁকা গুলি ছোড়ে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সাবেক মন্ত্রী বিএনপির স্থায়ী কমিটির প্রয়াত সদস্য আ স ম হান্নান শাহর ছেলে রিয়াজুল হান্নান ও গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হান্নান মিয়া হান্নুসহ ৯ জনকে আটক করে।

আহতদের মধ্যে জেলা মহিলা দলের সাবেক সভানেত্রী আনোয়ারা বেগম আছেন। পুলিশ দাবি করেছে, বিএনপির নেতাকর্মীদের হামলায় তিন পুলিশ কনস্টেবল আহত হয়েছেন।

গাজীপুর মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক মো. সোহরাব উদ্দিন জানান, খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল সকাল ১১টার দিকে জেলা ও মহানগর বিএনপি শহরের রাজবাড়ী সড়কের দলীয় কার্যালয়ের সামনে শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনের আয়োজন করে। বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করায় দলীয় কার্যালয়ের সামনের প্রাঙ্গণ পূর্ণ হয়ে নেতাকর্মীরা সড়কে অবস্থান নেয়। কর্মসূচির শেষ মুহূর্তে হঠাৎ পূর্ব দিক থেকে পুলিশ নেতাকর্মীদের লক্ষ্য করে ফাঁকা গুলি এবং লাঠিপেটা শুরু করে। নেতাকর্মীরা দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। এতে নগরবাসী ও পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৯ জনকে আটক করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাসেল শেখ জানান, রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ ও পুলিশের ওপর ইট-পাথর নিক্ষেপ করায় পরিস্থিতি শান্ত করতে পুলিশ ৩০-৩৫ রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি ছোড়ে। পরে পুলিশ লাঠিপেটা করে বিএনপির উচ্ছৃঙ্খল কর্মীদের সরিয়ে দেয়। পুলিশকে ইট মেরে আহত করা এবং আসামি ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় শাহ রিয়াজুল হান্নান, সিটি কাউন্সিলর হান্নান মিয়া হান্নুসহ ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জয়দেবপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে মামলা করা হবে।

 



মন্তব্য